ছবি :পূর্ববড় ভেওলা ইউনিয়নে নাগরিক কমিটির সংবর্ধনায় এমপি জাফর আলমকে জনগনের পক্ষ থেকে নৌকা উপহার দিচ্ছেন

বার্তা পরিবেশক

মাতামুহুরী সাংগঠনিক উপজেলার পূর্ববড় ভেওলা ইউনিয়নে নাগরিক কমিটির আয়োজনে গণসংবর্ধনায় জনগনের শুভেচ্ছায় সিক্ত হয়েছেন চকরিয়া-পেকুয়া আসনের নবনির্বাচিত এমপি ও চকরিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ জাফর আলম। গতকাল মঙ্গলবার ২২ জানুয়ারী বিকালে নাগরিক কমিটির আয়োজনে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ ও শ্রেণী-প্রেশার নাগরিকদের আয়োজনে এমপি জাফর আলমকে গণসংবর্ধনা দেয়া হয়েছে।

জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সহ-সভাপতি ও পুর্বববড় ভেওলার প্রাক্তন চেয়ারম্যান শফিকুল কাদের শফির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন চকরিয়া-পেকুয়া আসনের নবনির্বাচিত এমপি ও চকরিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ জাফর আলম। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন চকরিয়া আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য আমিনুর রশিদ দুলাল, মাতামুহুরী সাংগঠনিক উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাহারবিল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মহসিন বাবুল, সমাজসেবক রফিকুল কাদের কালামনু, চকরিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ছৈয়দ আলম কমিশনার, পূর্ববড় ভেওলা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আওয়ামীলীগ নেতা ইব্রাহিম খলিল, সাবেক চেয়ারম্যান এমডি নুরুল কাদের, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি নুরুল আমিন চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক আশরাফ আহমদ মেম্বার।

বক্তব্য রাখেন ইউনিয়ন চকরিয়া উপজেলা যুবলীগের সভাপতি শহীদুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক কাউছার উদ্দিন কছির, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি শওকত হোসেন, সাধারণ সম্পাদক বাবলা দেবনাথ, উপজেলা শ্রমিকলীগের সভাপতি জামাল উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক সাইফ উদ্দিন মামুন, মাতামুহুরী কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক ফজল কাদের, পূর্ববড় ভেওলা ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি আলাউদ্দিন চৌধুরী, যুবলীগ নেতা সৈয়দ মইন উদ্দিন সজিব, চকরিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মোহাম্মদ মারুফ, সাধারণ সম্পাদক রুবেল মাহমুদ, চকরিয়া পৌরসভা ছাত্রলীগের সভাপতি মিজানুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক সোহেল রানা পারভেজ, ছাত্রনেতা আবদুল বারেক টিপু প্রমুখ।

সংবর্ধনার জবাবে কক্সবাজার-১ আসনের নবনির্বাচিত এমপি জাফর আলম বলেছেন, স্বাধীনতার ৪৫ বছর পর আপনারা নৌকায় ভোট দিয়ে আওয়ামী লীগকে এই আসনট উপহার দিয়েছেন। জননেত্রী শেখ হাসিনার মুখ উজ্জল করেছেন। এইজন্য আমি আপনাদের কাছে ঋণী। উন্নয়নের মাধ্যমে আমি আপনাদের এই মর্যাদার প্রতিদান দিতে চাই।

তিনি বলেন, আমার নির্বাচনী ইশতেহারে চকরিয়া-পেকুয়ার উন্নয়নের রূপরেখা ঘোষণা করি। এ মধ্যে আমি কাজ শুরু করে দিয়েছি। পাঁচ বছরের মধ্যে চকরিয়া-পেকুয়া উপজেলার প্রতিটি গ্রামে শহরের সব সুবিধা দেয়া হবে। এছাড়াও উন্নয়নের ক্ষেত্রে অবহেলিত এলাকা গুলোকে অধিক গুরুত্ব দেয়া হবে। উন্নয়নের ক্ষেত্রে আমি চকরিয়া-পেকুয়ার দলমত নির্বিশেষে সকলস্তরের জনগনের ভাগ্য উন্নয়নে আজীবন অবিচল থাকবো। সেইজন্য প্রিয় চকরিয়া-পেকুয়াবাসির দোয়া ও সহযোগিতা চাই।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •