বিশেষ সংবাদদাতা:
কক্সবাজার পৌরসভার ১১নং ওয়ার্ডস্থ পশ্চিম বাহারছড়ার বালিকা মাদ্রারাসা সংলগ্ন এলাকার ৫০০ ভূমিহীন পরিবার উচ্ছেদ আতঙ্কে রয়েছে। বিমানবন্দর সম্প্রসারণের কাজকে কেন্দ্র করে পশ্চিম বাহারছড়াশহ আশপাশের এলাকায় বসবাসরত প্রায় ৫ হাজারের অধিক ভূমিহীন মানুষের মাঝে এই উচ্ছেদ আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। এ নিয়ে ওই এলাকার সাধারণ মানুষের মাঝে ব্যাপক চাঞ্চল্যকর সৃষ্টি হয়েছে।
এছাড়াও উন্নয়নের দোহাই দিয়ে জেলা শহরের ঐতিহ্যবাহী খেলার মাঠসহ বিভিন্ন সরকারি খাস জমি দখলে নিচ্ছে ভূমিদস্যুরা। এ অবস্থায় নিজেদের মাথা গুজার ঠাঁই রক্ষার দাবিতে ঐক্যবদ্ধভাবে সোচ্চার হয়ে উঠেছেন ভূমিহীন ভুক্তভোগীসহ সচেতনমহ।
ভূমিহীনদের নিয়ে উক্ত এলাকায় গড়ে উঠেছে “পশ্চিম বাহারছড়া ভূমিহীন সমবায় সমিতি লি:”। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সমবায় অধিদপ্তর থেকে সমিতির রেজি: নং-২১৩০, স্মারক নং-১৫৬২/২।
স্থানীয়দের ভাষ্য, ভূমিহীন হিসেবে বাব-দাদা থেকে শুরু করে আমরা যুগ যুগ ধরে এই এলাকায় বসবাস করে আসছি। আমাদের স্কুল, মাদ্রারাসা, মসজিদ ও মক্তব থেকে শুরু করে পড়া শুনার সহজ উপায় এই এলাকায় গড়ে উঠেছে। সম্প্রতি সময়ে সরকারী উন্নয়নের দুহাই দিয়ে সরকারী আমলাদের সাথে আতাত করে একটি প্রভাশালী মহল আমাদের বাব-দাদার ভিটে মাটি দখলে নিতে মরিয়া হয়ে উঠেছে। আমরা এর প্রতিকার চাই।
এলাকার ষাটোর্ধ মুরব্বি শফি বলেন, আমাদের পুনর্বাসন না করার আগ পর্যন্ত বাব-দাদার এই ভিটে মাটি ছেড়ে কোথাও যাব না। বাড়ি ভিটার রক্ষার জন্য যদি আমাদের জীবনও দিতে হয় তা করব। আমরা সরকারের কাছে দাবী জানাই আমাদের একমাত্র মাথা গুজার ঠাঁই ফিরে দিতে। না হয় কর্মসূচির মধ্য দিয়ে কঠোর আন্দোলনে নামব।
পশ্চিম বাহারছড়া ভূমিহীন সমবায় সমিতির সভাপতি মোঃ হোছাইন মাসু বলেন, এলাকার প্রায় ৫শ’ পরিবারের সদস্যদের নিয়ে ভূমিহীন সমিতি গঠিত হয়েছে। ক্রমান্বয়ে আমরা সরকারের সমবায় অধিদপ্তর থেকে উক্ত সমিতির রেজিষ্ট্রেশন নিয়েছি। সমিতির আওতাভুক্ত ভূমিহীনদের বাস্তুহারা করতে সরকারের উন্নয়নের দোহাই দিয়ে স্থানীয় প্রশাসনের সাথে আতাত করে একটিচক্র আমাদের ভিটে বাড়ি উচ্ছেদের পাঁয়তারা চালিয়ে আসছে।
তিনি বলেন, সরকার চাইলে আমরা সরকারের উন্নয়নের জন্য সবকিছু ছাড় দিতে পারব। তবে আমাদের একমাত্র মাথা গুজার ঠাঁই কেড়ে নিলে আমরা কোথায় যাব? সরকারের কাছে দাবী, আমাদের পূর্নবাসন পূর্বক ব্যবস্থা নিন। না হয় আমরা আন্দোলনে নামব।
কক্সবাজার পৌরসভার ১১নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নুর মোহাম্মদ জানান, এলাকার খেটে খাওয়া সাধারণ মানুষদের একমাত্র মাথা গুজার ঠাঁই হিসেবে এ জায়গা ছাড়া আর কিছুই নেই। বারবার সরকারের উন্নয়নের নামে এক শ্রেণীর ভূমিদস্যুরা উক্ত জায়গা দখলে নেওয়ার পাঁয়তারা চালিয়ে আছে। বাসবাসকারীরা বারবার ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে তাদের পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে। এখন অসহায় এ মানুষদের সম্বল বলতে কিছু না থাকায় চরম আতঙ্কে রয়েছে।
জানতে চাইলে কক্সবাজার পৌরসভার মেয়র ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধরণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান বলেন, সরকার অসহায় ভূমিহীন গরীবদের মাঝে খাস জমি বণ্টনের কার্যক্রম শুরু করেছে। এরই ধারাবাহিকতায় উক্ত এলাকায় বসবাসরত ভূমিহীন ৫শ’ পরিবারকে পুর্নবাসন করতে হবে। না হয় তারা যাবে কোথায়।
মেয়র মুজিব বলেন, ভূমিহীন পরিবার গুলোকে পুনর্বাসনের পর বাকি কার্যক্রম পরিচালনা করতে আমি সরকারের কাছে জোরদাবী জানাচ্ছি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •