মোঃ নিজাম উদ্দিন, চকরিয়া:
চকরিয়ায় গৃহকর্ত্রী হাতে মানসিক প্রতিবন্ধী কিশোরীকে অমানুষিক মারধরে গুরুতর আহত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।
এ ঘটনায় আহতকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হয়। বিষয়টি নিয়ে পুরো এলাকাজুড়ে তোলপাড় চলছে। ঘটনাটি ঘটে রবিবার দশটার দিকে চকরিয়া উপজেলার খুটাখালী বাজার এলাকার একটি ভাড়া বাসায়। আহত মানসিক প্রতিবন্ধী কিশোরী দিলোয়ারা বেগম (১৬) পিতা খোকন বলে জানা গেলেও তার বিস্তারিত পরিচয় পাওয়া যায়নি।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, খুটাখালী ইউনিয়নের (৯নং ওয়ার্ড) সবুজ পাহাড় এলাকার বেলাল উদ্দিন দীর্ঘ সময় ধরে খুটাখালী বাজার এলাকার মৃত সোলতান আহমদ কোম্পানির বাড়িতে ভাড়া বাসায় থাকেন। সম্প্রতি ওই ভাড়া বাসায় বেলালের স্ত্রী ইয়াসমিন আক্তার তাদের কাজের মেয়ে প্রতিবন্ধী দিলোয়ারাকে প্রতিনিয়ত মারধর করতে দেখতে পায় পার্শ্ববর্তী লোকজন। ঘটনার সময় গৃহকর্ত্রী ইয়াসমিন আক্তার কাজের মেয়ে ওই কিশোরীর পিঠে ও মুখে অনবরত কিল-ঘুষি মেরে মারাত্মক আঘাত করে। কিশোরী মাটিতে লুটিয়ে পড়লে লাকড়ি নিয়ে উপর্যুপরি আঘাত করতে থাকে গৃহকর্ত্রী। তার আর্তনাদ শোনে পার্শ্ববর্তী লোকজন ও বাড়ির মালিক মৃত সোলতান আহমদ কোম্পানির পুত্র টিটু এ মরন নির্যাতন থেকে কিশোরীকে উদ্ধার করে। পরে তাকে চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গিয়ে চিকিৎসা করান।
ঘটনার সত্যতা জানিয়ে বাড়ির মালিক মহিদুল আলম টিটু বলেন, প্রতিবন্ধী কিশোরীকে তাদের ভাড়াটিয়া মহিলার নির্যাতনের হাত থেকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায় এবং তিনি বাদী হয়ে চকরিয়া থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। এব্যপারে জানতে অভিযুক্ত মহিলা বেলাল উদ্দিনের স্ত্রী ইয়াসমিনের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি।
চকরিয়া থানার সাব ইন্সপেক্টর (এসআই) রুহুল আমিন জানায়, ঘটনার খবর পেয়ে তিনি সরেজমিনে তদন্ত করেন। মানসিক প্রতিবন্ধী ওই কিশোরীকে রাস্তায় পেয়ে ওই পরিবার তাকে সুস্থ করার চেষ্টা করে। শাসন করতে দিয়ে কিশোরীকে মারধর করেছে তবে অতিরিক্ত আঘাত সে পায়নি। বিষয়টি আরো তদন্ত করে আইনগত ব্যাবস্থা নেওয়া হবে বলেও তিনি জানান।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •