লাইফস্টাইল ডেস্ক:

টুইটার, ফেসবুকের মতো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম কিংবা অনলাইন নিউজপেপার- সারাক্ষণ চোখ ঘুরছে এগুলোতেই। ফলে ব্যক্তিগত জীবনে একাকী হয়ে পড়া, চোখের সমস্যা, হতাশাসহ বাড়ছে বিভিন্ন ধরনের সমস্যা। জেনে নিন স্মার্টফোনের আসক্তি কাটানোর কিছু উপায় সম্পর্কে।

যতগুলো সম্ভব অ্যাপের পুশ-নোটিফিকেশন বন্ধ করে দিন। এতে আপনার স্ক্রিনে নিয়মিত নোটিফিকেশন আসাটা বন্ধ হবে। নিজের ইচ্ছে মতো আপনি ফোন থেকে নোটিফিকেশন চেক করতে পারবেন।
দিনের নির্দিষ্ট সময় ফোন বন্ধ রাখুন। বিশেষ করে রাতে ঘুমোতে যাওয়ার সময়। পাশাপাশি খাওয়ার সময়, কাজ থেকে ফিরে পরিবারের সঙ্গে কাটানোর সময় কিংবা খাওয়ার সময় ফোন বন্ধ রাখুন।
ঘড়ি দেখার জন্য ফোন ব্যবহার করবেন না। হাতে ঘড়ি পরার অভ্যাস করুন। এতে অহেতুক ফোন ব্যবহার বন্ধ হবে।
বন্ধুদের আড্ডায় ফোন বের করবেন না।
যে অ্যাপ ব্যবহার করেন না, সেটি ফোনে রাখবেন না। এতে নোটিফিকেশন কমবে।
কেবল কল ও বার্তা পাঠানোর কাজে যদি ফোন ব্যবহার করতে পারেন, তবে খুবই ভালো হয়। স্মার্টফোনে করা বাকি কাজগুলো সময় বের করে ডেস্কটপ বা ল্যাপটপে সামলে নিতে পারেন। এই নিয়মে অভ্যস্ত হতে বাটন ফোনে ফিরে যাওয়া যায়।
সকালবেলা ঘুম থেকে ওঠার জন্য স্মার্টফোনে অ্যালার্ম দেওয়ার অভ্যাস অনেকেরই আছে। কিন্তু এতে সকালে উঠেই প্রথম চোখে পড়ে ফোনটি। এবং সকালের প্রথম বেশ কিছুটা সময় এই ফোনের পিছনে চলে যায়। এ থেকে মুক্তি পেতে কিনে নিন অ্যালার্ম ঘড়ি।
কমবেশি অনেক ফোনেই গ্রেস্কেল বা সাদাকালো ডিসপ্লে মোড থাকে। আপনার স্মার্টফোনটিকে ওই মোডে পাঠিয়ে দিতে পারেন। এতে স্মার্টফোনের উপর আকর্ষণ কমবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •