সাইফুল ইসলাম বাবুল:

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কাংখিত ফল পাওয়ায় এলাকায় উৎসাহের রেশ না কাটতেই উপজেলা নির্বাচনের হাওয়া শুরু হয়ছে। চলতি বছরের মার্চে উপজেলা নির্বাচন হতে পারে। এমন অভাসে পেকুয়ায় শুরু হয়েছে নানান আলোচনা। কোন দল থেকে কে প্রার্থী হবেন সেই হিসেব কষছেন অনেকেই।

গত দুই দিন ধরে উপজেলা নির্বাচন নিয়ে পেকুয়ায় রাজনৈতিক মাঠে চলছে আলোচনা। সময় কম থাকার কারণে পূর্ব থেকে মাঠে কাজ করতে প্রস্তুতির ব্যাপার বলেও কথা উঠেছে। মাঠে আলোচনায় এ পর্যন্ত পেকুয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী হবেন যারা তাদের মধ্যে কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী সদস্য, পেকুয়া উপজেলা জঙ্গি ও সন্ত্রাস প্রতিরোধ কমিটি সভাপতি, চট্রগ্রাম আইন কলেজের সাবেক ভিপি, পরিচ্ছন্ন রাজনীতিবিদ এস এম গিয়াস উদ্দিনের নাম আওয়ামী লীগের তৃণমূল নেতা-কর্মীদের এবং পেকুয়ার সচেন মহলের মুখে মুখে। পেকুয়ার খেটে খাওয়া, দিনমজুর, শ্রমিক, মেহনতী মানুষের একটাই প্রত্যাশা আগামী উপজেলা নির্বাচনে এস এম গিয়াস উদ্দিনকে নৌকা প্রতীক বরাদ্দ দিয়ে পেকুয়া উপজেলা নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার সুযোগ করে দেওয়া।

রাজাখালী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব নুরুল ইসলাম বি এস সি বলেন, গিয়াস উদ্দিন একজন গরিবের সন্তান, তিনি মাটি ও মানুষের রাজনীতি করেন, খেটে খাওয়া মানুষের রাজনীতি করেন, তিনি একজন পরীক্ষিত এবং পরিচ্ছন্ন রাজনীতিবিদ। আমরা চাই গিয়াস উদ্দিন আগামীতে নৌকা মার্কা নিয়ে পেকুয়া উপজেলায় হাজির হোক। তার জন্য অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাবো।

পেকুয়া সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগরে সাধারণ সম্পাদক বেলাল উদ্দিন বিএসসি বলেন,এস এম গিয়াস ভাই এক জন সৎ এবং ন্যায় পরায়ন ব্যাক্তি। তার মত মানুষ মনোনয়ন পেলে মাথায় কাপড় বেধে দিন রাত পরিশ্রম করবো তার বিজয়ের জন্য। জাফর আলমকে যেভাবে কষ্ট করে সংসদ সদস্য বানিয়েছি গিয়াস উদ্দিনকে ও উপজেলা চেয়ারম্যান বানাতে পিছপা হব না।

পেকুয়া উপজেলা মৎস্যজীবী লীগের সভাপতি জাকিরুল ইসলাম বলেন,আগামীতে আমরা এমন একজন ব্যক্তিত্বকে নেতৃত্বে বেছে নেবো যার মাধ্যমে এলাকার উন্নয়ন হয়। পেকুয়াবাসীর পক্ষ থেকে মাননীয় নেত্রী শেখ হাসিনা এস এম গিয়াসউদ্দিনকে মনোনয়ন দিলে আমরা তাকে নির্বাচিত করবো। তারুণ্যের দীপ্তমান নেতা এস,এম গিয়াস উদ্দিনকে সামনে নিয়ে আমরা নেত্রীর কাছে মনোনয়ন চাইবো। তিনি গিয়াস উদ্দিন ভাইকে মনোনয়ন দিলে আমরা তার যথাযথ মূল্যায়ন করবো।’

এস এম গিয়াস উদ্দিন বলেন, চকরিয়া-পেকুয়ার মাননীয় সাংসদ আমার প্রিয় নেতা জনাব আলহাজ্ব জাফর আলমের
পরামর্শ ও নির্দেশ মোতাবেক এবং কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সিদ্ধান্তে সবকিছু হবে। দল যাকে মনোনয়ন দেবে তার পক্ষে কাজ করবো। আমাকে দিলে সবাইকে সাথে নিয়ে পেকুয়া স্বার্থে কাজ করবো। নৌকার সঙ্গে ছিলাম, আছি এবং থাকবো। আমরা সঠিক সময়ে সঠিক নেতৃত্ব পেয়েছি জাফর ভাইকে। আগামী উপজেলা নির্বাচনে জাফর ভাই এর নেতৃত্বে নৌকা থাকবে যার হাতে আমরা আছি তার সাথে। নৌকার বাইরে যাওয়ার সুযোগ আমাদের নাই।’

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •