আদালত প্রতিবেদক :

গত ২৫ ডিসেম্বর রামু উপজেলার কচ্ছপিয়া ইউনিয়নের মৌলভীকাটা চালের দোকান নামক স্থানে নৌকা প্রতীকের পথসভার সন্নিকটে স্ট্রোক (!) করে মৃত্যুবরন করা তাজউদ্দীন রাসেলকে হত্যার অভিযোগ এনে কক্সবাজার-৩ আসনের পূণঃনির্বাচিত সংসদ সদস্য আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল বাদী হয়ে রামু থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। মামলায় কচ্ছপিয়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মাওলানা মোক্তার আহামদকে প্রধান আসামী করে ১৭ জনকে এজাহারভুক্ত ও ১৫ জনকে অজ্ঞাতনামা সহ মোট ৩২ জনকে আসামী করে মামলাটি দায়ের করা হয়। রামু থানা মামলা নম্বর ৪২ এবং জি.আর মামলা নম্বর ৪৩৩/২০১৮ (রামু)। মামলার ধারা হচ্ছে-১৪৩/৩৫২/৩৬৪/৩০২/১১৪/৩৪ পেনালকোড, তৎসহ ১৯০৮ সালের বিষ্পোরক দ্রব্য আইনের ৫ ধারা।
মামলার বিবরনে উল্লেখ করা হয়েছে-গত ২৫ ডিসেম্বর রাত ৮’১০ মিনিটের সময় নৌকা প্রতীকের পথসভায় গুলি ও ককটেল মেরে আসামীরা ত্রাস সৃষ্টি করে। একপর্যায়ে নিহত তাজউদ্দীন রাসেলকে আসামীরা অস্ত্রের মুখে শাহসুজা রোডের বদুপাড়া রাস্তার মাথায় নিয়ে যায়। তাজউদ্দীন রাসেলকে সেখানে জোর করে নিয়ে ঘাড় মচকাইয়া ঘাড়ের রগ ছিড়িয়া ফেলে এবং তাকে শ্বাসরুদ্ধ করে কিল ঘুষি মেরে হত্যা করে। মামলার বাদী সংসদ সদস্য আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল সহ সাক্ষীরা তাঁর গাড়ির লাইটের আলোতে ঘটনা সচক্ষে দেখেছেন বলে এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে। মামলার এজাহারভুক্ত অন্যান্য আসামীরা হলো-কলিমউল্লাহ, মহিউদ্দিন, সালাহউদ্দিন, আবু ইছা, মাহবুবুল আলম, নাছের উল্লাহ, নজরুল ইসলাম, জামশেদ আলম, রাসেল, আসাদুজ্জামান রিপন, সাইফুল ইসলাম, হেলাল উদ্দিন, নুরুল আজিম, নুরুল আলম, মোহাম্মদ আবদুল্লাহ্ ও নুরুল আজিম। রামু থানার এস.আই সোহেল রানাকে মামলাটির তদন্ত কর্মকর্তা (আইও) নিয়োগ দেয়া হয়েছে।
রামু উপজেলার ফতেখাঁরকুল ইউনিয়নের মন্ডলপাড়ার মরহুম মন্ঞ্জুর আলমের পুত্র তাজউদ্দিন রাসেল(৩২) কে মামলার এজাহারে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা ও সংসদ সদস্য আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমলের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সদস্য বলে উল্লেখ করা হয়েছে। তাজউদ্দিন রাসেল গত ২৩ ডিসেম্বর দুবাই থেকে দেশে ফিরেন। তাজউদ্দিন রাসেলের মৃত্যুর পর ডাক্তারি পরীক্ষার উদ্ধৃতি দিয়ে স্ট্রোক করে তাজউদ্দিন রাসেল মারা যায় বলে তার পরিবারেরে পক্ষ থেকে দাবি করা হয়। পরে তাজউদ্দিন রাসেলের লাশ ময়নাতদন্ত নাকরে কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট থেকে মামলা নাকরার শর্তে দাফনের অনুমতি নিয়ে দাফন করা হয়। ২৬ ডিসেম্বর মন্ডলপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে অনুষ্ঠিত তাজউদ্দিন রাসেলের জানাজার নামাজের আগে বক্তৃতায় তাজউদ্দিন রাসেল স্ট্রোক করে মারা গেছেন এবং এ বিষয়ে কাউকে দোষারোপ করে মামলা করা হবেনা বলে তাজউদ্দিন রাসেলের ছোট ভাই মোহাম্মদ রুবেল জানিয়েছিলেন। তাজউদ্দিনের পরিবারে দুই ভাই, দুই বোন, এক স্ত্রী ও এক বছর বয়সী এক পুত্র সন্তান রয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •