আলমগীর মানিক,রাঙামাটি :

রাঙামাটির বাঘাইছড়িতে শহীদ মিনারে ফুল দেয়াকে কেন্দ্র করে ক্ষমতাসীনদল আওয়ামীলীগ ও বিএনপির মধ্যে সংঘর্ষে উভয় পক্ষের অন্তত ২১জন আহত হয়েছে। এদের মধ্যে বাঘাইছড়ি পৌরবিএনপির সভাপতি নিজাম উদ্দিন বাবু ও হুমায়ুন রশীদ নামে দুইজনকে খাগড়াছড়ি জেলা হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, আওয়ামীলীগের কর্মী সমর্থকরা শহীদ মিনারে ফুলদিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদনের পর শ্লোগান দিয়ে ফিরে আসার সময় চৌমূহনী চত্বরে বিপরীত দিক থেকে বিএনপির একটি মিছিল এসে যায়। এসময় দু’পক্ষের শ্লোগানের কারনে পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়। দু’দলের সমর্থকদের কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া শুরু হয়ে ইট পাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে। এতে ২১জন আহত হয়। বাঘাইছড়ি থানার ওসি মানজারুল ইসলাম জানান, ঘটনার সাথে সাথে পুলিশ আনসার বিজিবি ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নেয়। তিনি জানান, শহীদ মিনারে ফুল দেওয়াকে কেন্দ্র করে এই হামলার ঘটনা ঘটে।

এদিকে এই ঘটনার নিন্দা জানিয়ে গণমাধ্যমে প্রেস বিজ্ঞপ্তি পাঠিয়েছে রাঙামাটি জেলা ছাত্রদল। সংগঠনটির পক্ষ থেকে ইমেইলে পাঠানো প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, রাঙামাটির বাঘাইছড়ি উপজেলাতে বিএনপি ও অঙ্গ সহযোগী সংগঠন মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে রোববার সকাল ৯.০০ ঘটিকায় শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে র‌্যালী নিয়ে শহীদ মিনার যাওয়ার সময় উপজেলা সদরে আগে থেকে উৎপেতে থাকা আওয়ামীলীগের সন্ত্রাসীরা রড, রাম দা, হকিষ্টিক, হাতুড়ী নিয়ে অতর্কিত হামলা চালায়।

হামলায় মিছিলে থাকা বিএনপি ও ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়। পরবতীতে আবার দ্বিতীয় দফায় চৌমুহনী শাপলা চত্বরে হামলা চালায়। হামলায় উপজেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক নূরউদ্দিন, কলেজ ছাত্রদলের সভাপতি হুমায়ুন রশিদ, সাংগঠনিক সম্পাদক মহর আলি, পৌর সাংগঠনিক সম্পাদক জিন্নাত তালুকদার, ছাত্রনেতা নুর কবির, মমিন, রবিউল, নাহিদ, সুমন, শাহাদাত মোল্লা, ইউনুছ, মানিক, হেলাল, রাজন, সজিব, নাঈম, মো: খোরশেদ, আলমগীর, মিজান, জালাল সহ প্রায় ৩৫-৪০জন নেতাকর্মী আহত হয়। এরমধ্যে কলেজ ছাত্রদলের সভাপতি হুমায়ন রশিদসহ ৪জন গুরুতর আহত হয়, আওয়ামী সন্ত্রাসীদের হামলায় হুমায়নের বাম পা সম্পূর্ণ ভেঙ্গে যায়। আহতরা বর্তমানে বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের উপর ছাত্রলীগের নৃশংস হামলার তিব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন রাঙামাটি জেলা ছাত্রদলের সভাপতি ফারুক আহম্মেদ সাব্বির, সাধারণ সম্পাদক আলী আকবর সুমন, সাংগঠনিক সম্পাদক বেলাল হোসেন সাকু।

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে ছাত্রদল নেতৃবৃন্দ আরো বলেন, রাঙামাটির মত শান্তিপূর্ণ একটি জেলায় আওয়ামীলীগ ছাত্রলীগ যুবলীগ নির্বাচনের আগ মুহুর্তে কোন প্রকার কারন ছাড়াই বিনাউস্কানিতে বার বার সন্ত্রাসী হামলার মাধ্যমে সহিংস করে তুলছে, ১৫ই ডিসেম্বর রাঙামাটি শহরে ছাত্রদলের দুই কর্মী জুনায়েদ পারভেজ ও মো: মুক্তারের উপর হামলা করে স্থানীয় ছাত্রলীগের সন্ত্রাসীরা, বিভিন্ন উপজেলা ও রাঙামাটি শহরের প্রায় যায়গায় ধানের শীষের পোষ্টার চিড়ে ফেলছে ছাত্রলীগের সন্ত্রাসীরা, এছাড়াও ছাত্রদলের বিভিন্ন স্তরের নেতাকমীদের হুমকী ধমকী ভয় ভীতি দেখাচ্ছে ছাত্রলীগ। যা কারো জন্যই সুখকর হবে না। ছাত্রদল বরাবরই শান্তিপূর্ণ অবস্থানে বিশ্বাসী। ছাত্রদল সহিংসতা সন্ত্রাসী কর্মকান্ড পরিহার করেই সুষ্ঠ ভাবে রাজনীতি করে যাচ্ছে।

আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পরিবেশ অশান্ত করার জন্যই আওয়ামীসন্ত্রাসীরা পরিকল্পিতভাবে হামলা শুরু করেছে। আওয়ামীলীগ পাহাড়ে সুষ্ঠ রাজনীতির পরিবেশ নষ্ট করে সহিংস করে তুলছে যা পাহাড়ের পরিবেশকে আরো ঘোলাটে করবে। তাই পাহাড়কে শান্তিপূূর্ণ রাখতে হামলা মামলা দমন পীড়ন পরিহার করে সুষ্ঠ ধারায় রাজনীতি করতে ছাত্রদলের নেতৃবৃন্দ আহবান জানান। ছাত্রদল নেতৃবৃন্দ আশা করেন ছাত্রলীগ তাদের সন্ত্রাসী কর্মকান্ড পরিহার করে সুপথে ফিরে আসবে।

এদিকে রাঙামাটি জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আব্দুল জব্বার সুজন জানিয়েছেন, উত্তেজনাকর শ্লোগান দেয়ায় সামান্য উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে বিএনপির আরেকটি গ্রুপ ছাত্রলীগের মিছিলে অনুপ্রবেশ করে মারামারির ঘটনাটি ঘটায়। এতে ছাত্রলীগের মূল নেতাকর্মীরা কেউ জড়িত আছে এমন তথ্য আমি পাইনি। ছাত্রলীগ সভাপতি বলেন, আমার সংগঠনের নেতাকর্মীদের কেউ যদি অন্যায়ভাবে কিছু করে থাকে তাহলে আমি বিষয়টি খতিয়ে দেখে তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নিবো। এক প্রশ্নের জবাবে সুজন বলেন, বাঘাইছড়িতে বিএনপির দুটি গ্রুপ বিবদমান আছে এবং তাদের ভেতরে অভ্যন্তরীন কোন্দল চরমভাবে বিদ্যমান। মাত্র দুদিন আগেও বিএনপির প্রার্থী বাঘাইছড়িতে নির্বাচনী প্রচারনায় গেলেও সেই গ্রুপটি অংশগ্রহণ করেনি। তারা বিএনপির প্রার্থীকে বর্জন করেছে বলেও আমি জেনেছি। তাদেরই একটি পক্ষ আমাদের মাঝে প্রবেশ করে হামলা চালিয়ে আহত করেছে বলে আমি জেনেছি। আমার ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা এই হামলায় জড়িত ছিলোনা।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •