শফিক আজাদ, উখিয়া:
আগামী ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। ইতিমধ্যে আ’লীগ-বিএনপিসহ অন্যান্য দলীয় প্রার্থীরা মাঠে ময়দানে ভোটযুদ্ধে অবতীর্ণ হয়েছে। গত কয়দিনে বিভিন্ন স্থানে অপ্রীতিকর কয়েকটি ঘটনাও ঘটেছে এ সংসদীয় আসনে। আগামীতে এমন পরিস্থিতির আশা করছেন না উখিয়া-টেকনাফের সাধারণ ভোটাররা। তাদের দাবী শান্তিপূর্ণ অবস্থানের মধ্যদিয়ে নির্বাচন অনুষ্টিত হলে প্রার্থীরা লাভবান হবেন, অন্যথায় এর প্রভাব পুরো এলাকায় ছড়িয়ে পড়বে বলে মনে করে তারা।

সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে উখিয়া-টেকনাফে বড় দু’দল আ’লীগ-বিএনপি প্রার্থীদের মধ্যে প্রচারনা চলতে তুঙ্গে। এবার বিএনপি তথা জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী হিসেবে রয়েছেন উখিয়া-টেকনাফ আসনে থেকে ৪বারের নির্বাচিত সংসদ সদস্য শাহজাহান চৌধুরী এবং বর্তমান সংসদ আবদুর রহমান বদির সহধর্মীনি শাহিন আক্তার চৌধুরী।

জাতীয়পার্টির (এরশাদ) প্রার্থী মাস্টার এম এ মনজুর নাঙ্গল প্রতীক নিয়ে মাঠে থাকলেও এখনো পর্যন্ত লক্ষ্যণীয় তৎপরতা চোঁখে পড়েনি। ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী মোহাম্মদ শোয়াইব হাতপাখা মার্কার প্রচারণা রয়েছে মাঠে। কিন্তু আগামী ৩০ ডিসেম্বর ভোট উৎসব নিয়ে সাধারণ ভোটারদের মধ্যে দেখা দিয়েছে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা। রাজনীতিক উত্তাপ ও ছোট খাটো সহিংসতা থাকলেও আগামীতে আর এ ধরনের পরিস্থিতির আশা করছেন না ভোটাররা।

উখিয়া উপজেলার তরুণ ভোটার শাহ আলম তার ব্যক্তিগত মতামত ব্যক্ত করে বলেন, এবার সে প্রথম বারের মতো ভোট দেওয়ার প্রস্তুতি নিয়েছে। দল বল নির্বিশেষে সে ক্লিনিং ইমেজের প্রার্থীকে ভোট দেবেন বলে জানান। তবে ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচন অনুষ্টিত হওয়ার আগ মুহুর্ত পর্যন্ত কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটলে যে দল দায়ী তাদেরকে বয়কট করবে নতুন ও সাধারণ ভোটাররা।

একই কথা মোঃ ফারুক নামের আরেক নতুন ভোটারের। সেও জানায়, প্রথম ভোটটি দিতে অধির আগ্রহে অপেক্ষা করছি। যদি ৩০ ডিসেম্বর ভোটটি দিতে পারে, তাহলে স্বাধীনতার পক্ষের শক্তিকে সে ভোটটি দেবেন।

টেকনাফ উপজেলার আব্দুস সালাম নামের এক ভোটার অভিযোগ করে বলেন, টেকনাফে বর্তমানে ভয়াবহ পরিস্থিতি বিরাজ করছে। এমন অবস্থা বিরাজমান থাকলে আগামী ৩০ডিসেম্বর ভোটারেরা ভয়ে ভোট কেন্দ্রে যাওয়ার সম্ভাবনা কম। এহেন পরিস্থিতি উত্তরণের জন্য স্থানীয় প্রশাসন ও নির্বাচন কমিশনকে উদ্যোগ নিতে হবে। যাতে সাধারণ মানুষেরা তাদের পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিতে পারে।

উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান সরওয়ার জাহান চৌধুরী জানান, প্রশাসন সরকার দলীয় প্রার্থী পক্ষে কাজ করছে। নিরপেক্ষতার প্রমাণ তারা এখনো দিতে পারেনি। পরিবেশ পরিস্থিতি অনুকুলে থাকলে তারা অবশ্যই বিজয় লাভ করবেন বলে আশাবাদী।

অপরদিকে আ’লীগ নেতারা জানিয়েছেন, প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা সরকারের উন্নয়ন অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখতে আবারো নৌকা মার্কা ভোট দিয়ে মহাজোটকে জয়যুক্ত করবেন এতে কোন সন্দেহ নেই। তবে বিরোধী পক্ষের আচরণের উপর নিভর করবে ভোটের মাঠে পরিবেশ পরিস্থিতি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •