প্রেস বিজ্ঞপ্তি:
নৌকা প্রতীকের স্লোগানে প্রকম্পিত হয়ে উঠেছে মাতারবাড়ি। এটিযে দ্বিতীয় টুঙ্গিপাড়া তা আবার প্রমাণ করলেন মাতারবাড়ির ৬০ হাজার মানুষ।
শুক্রবার বিকাল ৫টায় আওয়ামী লীগ মনোনীত সংসদ সদস্য পদপ্রার্থী আশেক উল্লাহ রফিক এমপিকে বরণ করে নিতে যেন একাকার হয়ে গিয়েছিল মাতারবাড়ি ইউনিয়নের সর্বস্তরের জনতা। সকলের মুখে একই ধ্বানি শেখ হাসিনার সালাম নিন নৌকা মার্কায় ভোট দিন, আশেক ভাইয়ের সালাম নিন নৌকা মার্কায় ভোট দিন। জনতার উপচে পড়া ভিড়ে পুরো মাতারবাড়ি কয়েক ঘন্টার জন্য যেন অচল হয়ে পড়ে। তিনি ধলঘাটার দুইটি পথসভা শেষে রাজঘাটে পৌঁছে হাজার-হাজার জনতা তাকে বরণ করে নেন। এ সময় ঢাক-ঢোল বাজিয়ে জনতা উল্লাসে ফেটে পড়েন। তিনি গতকাল মাতারবাড়ির বিভিন্ন ওয়ার্ডে ৭টি পথসভায় বক্তব্য রাখেন। এ সময় তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মাতারবাড়িবাসীর প্রতি যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তা পর্যায়ক্রমে বাস্তবায়ন হচ্ছে। শেখ হাসিনার জাতির জনকের কন্যা তিনি কখনো মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয় এমন কিছু করেন না মাতারবাড়ি ও ধলঘাটায় যে দুইটি মেগা প্রকল্প বাস্তবায়ন হচ্ছে এ সব প্রকল্পের বিরুদ্ধে একটি মহল নানা ভাবে অপ-প্রচার চালিয়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ইতোমধ্যে ঘোষণা দিয়েছেন গ্রাম হবে শহর, এবং শহরের চেয়েও বেশী সুবিধা পাবে গ্রামের মানুষ। দেশের মধ্যে মাতারবাড়িই প্রথম ইউনিয়ন যেটি শহরের সুযোগ সুবিধার আওতায় আসছে। তিনি আরো বলেন ইতোমধ্যে কয়লা বিদ্যুতের জন্য অধিগ্রহনকরা জমির মুল্য বৃদ্ধি করেছে সরকার। আপনাদের দাবীর প্রেক্ষিতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সাথে স্বাক্ষাত করে এ ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছে। এই মেগা প্রকল্পের কারণে পুরো মাতারবাড়ি ও ধলঘাটায় ব্যাপক উন্নয়ন হবে। যার অধিকাংশ দৃশ্যমান হয়েছে। ইতোমধ্যে বিদ্যুৎ সরবরাহ শতভাগ নিশ্চিত হয়েছে। আগে বিদ্যুৎ সংযোগ পেলেও বিদ্যুৎ পায়নি মানুষ। এখন বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মীরা গ্রাহক খুঁজছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনাদের ভালবাসেন বিধায় এই মাতারবাড়িতে দুই জনসভা করেছেন একই সাথে মাতারবাড়িকে দ্বিতীয় জন্ম স্থান বলে ঘোষণা করেছেন। তাই উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে নৌকা প্রতীকের বিকল্প নেই। নৌকা প্রতীকই এনে দিতে পারে অর্থনৈতিক মুক্তি। আগামি ৩০ তারিখ নৌকা প্রতীকে ভোট দিয়ে শেখ হাসিনাকে আবারো প্রধানমন্ত্রী করার জন্য সকলের প্রতি তিনি আহবান জানান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, মহেশখালী উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি এস.এম মুজিবুল হক, সহ-সভাপতি সাবেক চেয়ারম্যান এনামুল হক রুহুল, কক্সবাজার জেলা পরিষদের সদস্য মাস্টার রুহুল আমিন, জেলা পরিষদ সদস্য মশরফা জান্নাত, জেলা কৃষকলীগের সহ-সভাপতি এডঃ মোস্তাক আহমদ, জাহাঙ্গীর আলম বাদশা, মাতারবাড়ির চেয়ারম্যান মাস্টার মোহাম্মদ উল্লাহ, হোয়ানকের চেয়ারম্যান মোস্তফা কামাল, ছোট মহেশখালীর চেয়ারম্যান জিহাদ বিন আলী উপস্থিত ছিলেন মোস্তাক আহমদ তালুকদার, সেনতু, উপজেলা শ্রমিকলীগের সভাপতি মোহাম্মদ জাকরিয়া, উপজেলা আওয়ামী লীগের শ্রম বিষয়ক সম্পাদক মোস্তফা আনোয়ার চৌধুরী, জাহাঙ্গীর বাদশা, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি জিএম ছমি উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক এস.এম আবু হায়দার, উপজেলা আওয়ামী লীগের বিজ্ঞাপন ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক নুর বক্স, যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক নবীর হোসেন ভুট্টু, ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি শওকত ইকবাল মুরাদ, জেলা ছাত্রলীগের সহসভাপতি আশহাদ উল্লাহ সায়েম, ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রিয় সদস্য সরওয়ার আজম ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি মোঃ কাসেম, সাধারণ সম্পাদক আবদুল কুদ্দুচ। এ ছাড়া স্থানীয় আওয়ামী লীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, শ্রমিকলীগ যুবলীগ, ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

বেলা সাড়ে ১১টায় তিনি ধলঘাটার সাপমারার ডেইল, পন্ডিতের ডেইলে ব্যাপক গনসংযোগ করেন। পরে সাপমারার ডেইল জামে মসজিদে জুমার নামাজ আদায় শেষে তিনি সুতরিয়া বাজারে আয়োজিত ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের পথ সভায় বক্তব্য রাখেন। বক্তব্যে তিনি বলেন, ধলঘাটা এখন অবহেলিত ইউনিয়ন নয়। ধলঘাটা দেশের অর্থনীতির কেন্দ্র বিন্দু হতে চলেছে। লবণের ন্যায্যমুল্য ইতোমধ্যে নিশ্চিত হয়েছে। লবণ আমদানির বন্ধের জন্য সকল পদক্ষেপ নিয়েছে সরকার। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চাষিদের ক্ষতি হয় এমন কোন পদক্ষেপ অতীতেও গ্রহন করেনি এখনো গ্রহন করবে না। ইতোমধ্যে ধলঘাটায় স্থায়ী বেড়িবাঁধ নির্মাণ কাজ শুরু হয়েছে। আগামি বছরের মধ্যে ধলাঘাটা দেশের অন্যতম একটি নিরাপদ ইউনিয়ন হিসাবে স্বীকৃতি পাবে। ধলাঘাটা ইউনিয়নের সভাপতি সাঈদ আলমের সভাপতিত্বে ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নুরুল আবচারের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন ধলঘাটার চেয়ারম্যান কামরুল হাসান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাবেক চেয়ারম্যান আহসান উল্লাহ বাচ্চু, মহেশখালী উপজেলা শ্রমিকলীগের সভাপতি মোহাম্মদ জাকরিয়া, সাবেক ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান নুরুল হক, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আমান উল্লাহ, মহেশখালী উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম আহবায়ক নুরুদ্দিন মাসুদ, ধলঘাটা যুবলীগের সভাপতি নবীর হোসেন মেম্বার, আকতারুজ্জামান মেম্বার, আজিজুল হক মেম্বার, সাবেক মেম্বার করিমা বেগম, ছাত্রনেতা ইরফানুল ইসলাম রায়হান, ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি কামরুজ্জামান হিরু।

এরপর ধলঘাটার মুহুরীঘোনায় এক পথসভায় তিনি বক্তব্য রাখেন। বক্তব্যে তিনি বলেন, ধলঘাটা মাতারবাড়িতে যে মেগা প্রকল্প বাস্তবায়ন হচ্ছে এতে চাকরির ক্ষেতে স্থানীয়রাই প্রাধান্য পাবে। তাই নিজের যোগ্য হিসাবে গড়ে তুলতে হবে। সাবেক চেয়ারম্যান আহসান উল্লাহ বাচ্চুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় আরো বক্তব্য রাখেন ইউপি মেম্বার রুহুল আমিনসহ স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •