মোহাম্মদ আলম চৌধুরী

মনোয়ারা চৌধুরী। আমার মা। আজকে সফল জননী নারী ক্যাটাগরিতে উপজেলা পযায়ে শ্রেষ্ট জয়িতা সম্মাননা পেলেন। রামু উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে শংসাপত্র ও একখানা ক্রেস্ট তাঁর হাতে তুলে দেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার। সাধারণ মানুষের অসাধারণ ভালোবাসায় তিনি দুইবার রামু উপজেলার খুনিয়াপালং ইউনিয়ন পরিষদের সংরক্ষিত আসনে মহিলা সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। এখনও তিনি এ-দায়িত্বপালন করছেন। আমি যেমন আমার মায়ের জীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশ, ঠিক তেমনি মায়ের নির্বাচনী এলাকার ভোটারদেরও তিনি তেমনই মনে করেন। আমার মা এ-পুরস্কার পেয়ে আবেগাপ্লুত কন্ঠে আমাকে যা বলেছেন, আমি তো ভাষায় প্রকাশ করতে পারছি না। এমন ভাষা শুধু বুকের ভেতরই অমলিনভাবে গেঁথে রাখা যায়, শুধু এটুকুই বুঝি। পৃথিবীতে মায়েরা বুঝি এ-রকমই হন। মাকে নিয়ে তো বহুস্মৃতিময় ঘটনা লেখা যাবে, নিশ্চিত শেষ লিখে শেষ করা যাবে না। আমি মায়ের কথাই সবচেয়ে বেশি মনোযোগ দিয়ে শোনতাম। তিনি আমাকে পড়ালেখা করতে বলতেন। ছোটোবেলায় আমি পড়তে বসলে তিনি আমার পাশে বসে থাকতেন। আমার পড়ালেখার নির্দ্দিষ্ট কোন সময় ছিলো না বিধায় যখনই ইচ্ছে পড়তাম আর যখনই ইচ্ছে খেলতাম। মা কখনও বিরক্তবোধ করতেন না। মা এখনও আমার লেখালেখির প্রথম পাঠক।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •