পঞ্চগড় প্রতিনিধি:

ভারতের ন্যাশনাল পারফর্মিং আর্টস এসোসিয়েশন অফ ইন্ডিয়া (এন.পি.এ.এ.আই) ও তক্ষশীলা কালচারাল অর্গানাইজেশন আসাম প্রদত্ত মহাকবি কালিদাস অ্যাওয়ার্ড পাচ্ছে নাট্যকার ও নির্দেশক রহিম আব্দুর রহিম। ভারতের এই সংগঠন দুটো প্রতিবছর বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিশেষ অবদান রাখায় এই পদক প্রদান করে থাকেন। এবছর অসম্প্রদায়িক চেতনা, মানবতা ও পারস্পরিক বন্ধন সৃষ্টিতে নাট্য আন্দোলনে বিশেষ ভূমিকা রাখায় এই অ্যাওয়ার্ড পাচ্ছে বাংলাদেশের উত্তর সীমান্ত জেলা পঞ্চগড়ের বিদ্রোহী শিশু-কিশোর থিয়েটারের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও বিশিষ্ট শিশুতোষ নাট্যকার ও নিদের্শক রহিম আব্দুর রহিম। আগামী ০৫ জানুয়ারি ভারতের আসাম রাজ্যে অনুষ্ঠিত এক আন্তর্জাতিক বহু ভাষা-ভাষিক ড্রামা, ড্যান্স প্রতিযোগিতা উৎসবে এই পদক প্রদান করা হবে।

রহিম আব্দুর রহিম শৈশব, কৈশোর থেকেই অভিনয় জগতে প্রবেশ করেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগ থেকে এম.এ পাশ করার পর অধ্যাপনা পেশায় নিয়োজিত হন। তিনি প্রথমে একটি স্কুলে ও পরে তিনি একটি মাদ্রাসায় বাংলা প্রভাষক হিসেবে যোগ দেন। বর্তমানে তিনি একই পদে পঞ্চগড় সদর উপজেলার গলেহাহাট ফাযিল মাদরাসার বাংলা প্রভাষক হিসেবে কর্মরত। অধ্যাপনার পাশাপাশি তিনি সম-সাময়িক একজন কলাম লেখক এবং নিয়মিত নাট্যকার। এ যাবৎ তার ২০টি নাটক জাতীয় পর্যায়ে মঞ্চস্থ হয়েছে। ৭৪’র চুক্তি এবং তৎকালীন ছিটমহলবাসীদের করুন জীবন চিত্র নিয়ে রচিত নাটক ‘চুক্তির মুক্তি’ ২০১২ সালে ভারতের বারানাসিতে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক নাট্য উৎসবে পরিবেশিত হলে বিষয়টি আন্তর্জাতিকভাবে সাড়া পড়ে। এই নাটকের মধ্য দিয়েই তিনি আন্তর্জাতিক নাট্যকার হিসেবে স্বীকৃতি পায়। এর পর থেকে এ যাবৎ তিনি ও তার দল ভারতের দিল্লী, বারানাসি, শিলিগুড়ি, নিউ জলপাইগুড়ি কলিকাতা, কুচবিহার, আগ্রা,দার্জিলিং ও উড়িষ্যায় অনুষ্ঠিত বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ও আঞ্চলিক নাট্য উৎসবে অংশগ্রহণ করে বাংলাদেশের সুনাম বয়ে আনে। তার প্রতিটি নাটকের বিষয়বস্তুু সম-সাময়িক, জাতীয় ও আন্তর্জাতিক ইস্যুভিত্তিক। নাটকের সংলাপ চয়নে উচ্চারিত হয়েছে অসম্প্রাদয়িক চেতনা, মানবতা এবং পারস্পরিক বন্ধন সৃষ্টির স্লোগান । নাট্যকার আব্দুর রহিম ২০১৪ খ্রি. রংপুরের ৬৩ পদাতিক ডিভিশন এর জিওসি ও এরিয়া কমান্ডার আয়োজিত এক নাট্য উৎসবে তাঁর লেখা ও নির্দেশিত নাটক ‘বাংলা আমার মা’ মঞ্চস্থ হওয়ার পর আয়োজক কর্তৃক তিঁনি সৈনিক উপাধিতে ভূষিত হন। ২০১৮ খ্রি. জানুয়ারিতে ভারতের উড়িষ্যায় অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক নাট্যউৎসবে তাঁকে নাট্য যাদুকর উপাধিতে ভূষিত করা হয়। শিক্ষকতা পেশায় তিনি ২০০৪ খ্রি. শ্রেষ্ঠ শ্রেণি শিক্ষক হিসেবে রাষ্ট্রপতি স্বর্ণপদক পাওয়ার গৌরব অর্জন করেন। রহিম আব্দুর রহিম বাংলা একাডেমির সাধারণ সদস্য এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সিনেটের আজীবন ভোটার। শিক্ষকতার পাশাপাশি তিনি তাঁর প্রতিষ্ঠিত সংগঠন পঞ্চগড় বিদ্রোহী শিশু-কিশোর থিয়েটারের ব্যানারে, নিজস্ব অর্থায়নে শিশুদের মেধা, মনন ও উৎকর্ষ সাধনে বিভিন্ন ক্রিয়েটিভ কর্মকান্ড পরিচালনা করছেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •