cbn  

ইমাম খাইর, সিবিএন:
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কক্সবাজার জেলার চারটি আসনের মধ্যে প্রার্থী বাছাইয়ে চারজনের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে। বিভিন্ন অভিযোগে ঝুলে আছে আরও চার প্রার্থীর আবেদন।
বাতিল প্রার্থীরা হলো- ট্যাক্স ফাঁকি ও সম্পদের বিবরণী জমা না দেয়ায় কক্সবাজার-২ (মহেশখালী-কুতুবদিয়া) আসনে জাতীয় পার্টির মনোনীত প্রার্থী মোহাম্মদ মোহিবুল্লাহ, প্রার্থীর পক্ষে নেয়া স্বাক্ষরে জালিয়াতির অভিযোগে মহেশখালী উপজেলা বিএনপি’র আহ্বায়ক স্বতন্ত্র প্রার্থী আবু বক্কর সিদ্দিক, অসম্পূর্ণ আবেদনের কারণে কক্সবাজার-৩(সদর- রামু) আসনে কক্সবাজার পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহাম্মদ নজিবুল ইসলাম এবং কক্সবাজার-৩ (উখিয়া-টেকনাফ) আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী পালংখালী ইউপি চেয়ারম্যান গফুর উদ্দিন চৌধুরী।

বিভিন্ন অভিযোগে যাদের মনোনয়নপত্র গৃহীত হয়নি তারা হচ্ছেন কক্সবাজার-২ (মহেশখালী-কুতুবদিয়া) আসনে ডক্টর আনসারুল করিম, জামায়াতের এএইচএম হামিদুর রহমান আযাদ, কক্সবাজার-৩ (সদর-রামু) আসনের লুৎফর রহমান কাজল এবং কক্সবাজার-৪ ( উখিয়া-টেকনাফ) আসনে জাপা মনোনীত প্রার্থী মাস্টার এমএ মনজুর। তাদেরকে বিকাল চারটা পর্যন্ত সময় দেয়া হয়েছে।
আজ রবিবার সকাল দশটায় কক্সবাজার হিল ডাউন সার্কিট হাউজ-এর সম্মেলন কক্ষে বাছাই প্রক্রিয়া চলে।
এসময় রিটার্নিং অফিসার ও জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেন, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট (এডিএম) মাসুদুর রহমান মোল্লা, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক আশরাফুল অাফসার, জেলা নির্বাচন অফিসার মোহাম্মদ বশির আহমদসহ সকল সহকারী রিটার্নিং অফিসার ও  সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
তবে বাছাইয়ে উত্তীর্ণ হওয়ার পরও কেউ প্রার্থীতা প্রত্যাহার করতে চাইলে আগামী ৯ ডিসেম্বরের মধ্যে তার মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করতে পারবেন। এ পর্বের পর ১০ ডিসেম্বর প্রার্থীদের প্রতীক বরাদ্দ দেবে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। প্রতীক বরাদ্দের পরই আনুষ্ঠানিকভাবে প্রার্থীরা প্রচার চালাতে পারবেন।
গত ৮ নভেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। পরদিন থেকে মনোনয়নপত্র বিক্রি শুরু হয়। ২৮ নভেম্বর মনোনয়ন দাখিলের শেষ দিন ছিল। সব ঠিকঠাক থাকলে ভোটগ্রহণ হবে ৩০ ডিসেম্বর।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •