cbn  

নিজস্ব প্রতিবেদক:
কক্সবাজার পৌরসভার ঘোনার পাড়া এলাকার মো: ইউসুফের স্ত্রী ছলিমা আক্তার বিগত এক বছর পূর্বে কক্সবাজার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে একটি সিআর মামলা দায়ের করেছিলেন। মামলার অভিযোগে হালিমা উল্লেখ করেছিলেন, হালিমা ও তার পরিবারের সদস্যদের উপর জায়গা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে হামলার অভিযোগে প্রতিপক্ষের ৫জনকে আসামী করে মামলা করেছিলেন। মামলা দায়েরের পর থেকে ঘোনার পাড়া গ্রামের আবদুল হাকিমের পুত্র ওই মামলার অন্যতম আসামী হেলাল উদ্দিন ছোটন পালিয়ে সৌদি আরবে চলে যায়। আসামী ছোটন সৌদি আরবে চলে গেলেও উক্ত মামলার নির্ধারিত ধার্য্য তারিখগুলোতে তার ছোট ভাই জিয়াবুল হক নোটন জালিয়াতির আশ্রয় গ্রহণ করে নিয়মিত হাজিরা দেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ওই মামলার আসামী ছোটনের ভাই নোটন তার পক্ষের এক আইনজীবির মাধ্যমে আদালতে দীর্ঘ এক বছর ধরে হাজিরা দিয়ে আসছে। সম্প্রতি বিষয়টি নজরে আসে মামলার বাদী পক্ষের। গতকাল ২৮ নভেম্বর ছিল ওই মামলার নিধারিত ধার্য্য তারিখ। এ দিন মামলার বাদী ছলিমা আক্তার তার আইনজীবি নুর আহমদের মাধ্যমে আদালতে মিথ্যা পরিচয়ে হাজিরা প্রদানকারী ছোটনের ভাই জিয়াবুল হক নোটনের বিরুদ্ধে দরখাস্ত দায়ের করেন। দরখাস্তে বাদী উল্লেখ করেন, তিনি বিগত এক বছর পূর্বে হেলাল উদ্দিন ছোটনসহ কয়েকজনের বিরুদ্ধে আদালতে মামলাটি দায়ের করেছিলেন। মামলার আসামী ছোটন বর্তমানে সৌদি আরবে অবস্থান করছেন। ছোটনের পরিবর্তে তার ছোট ভাই নোটন দীর্ঘদিন ধরে মিথ্যার আশ্রয় নিয়ে আদালতে হাজিরা দিয়ে আসলেও এবার আর শেষ রক্ষা হয়নি।

মামলার বাদী ছলিমা আক্তার জানান, আদালতের মাননীয় বিচারিক হাকিম তামান্না ফারাহ তার আবেদন আমলে নিয়ে মামলার আসামী ছোটনের পরিবর্তে তার ছোট ভাই জিয়াবুল হক নোটন হাজিরা দেওয়ার ঘটনার প্রমাণ পেয়ে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। পরে আদালতের মাধ্যমে জালিয়াতকারী নোটনকে কক্সবাজার কারাগারে পাঠানো হয়।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •