cbn  

বার্তা পরিবেশক
মহেশখালীতে বহু মামলার আসামী আটক হলেও মাত্র একটি মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে সোপর্দ করার অভিযোগ উঠেছে। হত্যা, ধর্ষণ ও অস্ত্র মামলাসহ ৩০টিরও অধিক মামলায় অভিযুক্ত ও গ্রেফতারী পরোয়ানাভুক্ত দুধর্ষ সন্ত্রাসীকে কেবলমাত্র জামিনযোগ্য ১টি মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে চালান দেয়ার কয়েক ঘন্টার মধ্যেই জামিনে মুক্তি পেয়ে ফের এলাকায় ফিরে ফাঁকা গুলি বর্ষণ করে উল্লাস প্রকাশ করে বলে খবর পাওয়া গেছে। তার বিরুদ্ধে দায়ের হওয়া বিভিন্ন মামলার বাদীদেরকে প্রাণনাশের হুমকি দিয়েছে বলে অভিযোগ গেছে। এতে আতংকিত এলাকাবাসী সংবাদ সম্মেলন করেছে। অভিযুক্ত সন্ত্রাসী আজিজুল হক (৩২) নয়াপাড়া কেরুনতলী এলাকার মো. বকসুর ছেলে।
২০১৫ সালে আজিজের হাতে নিহত মোজাম্মেল প্রকাশ কালুর স্ত্রী বিলকিস আরা গতকাল শহরের একটি হোটেলে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে জানান, উপরোক্ত আজিজুল হক এলাকার ত্রাস ও আন্ত:জেলা ডাকাত দলের সদস্য। মহেশখালী থানা ও জেলার বিভিন্ন আদালতে তার বিরুদ্ধে হত্যা, ডাকাতি, ধর্ষণ ও অস্ত্র মামলাসহ ৩০টিরও অধিক মামলা বিচারাধীন রয়েছে। এর মধ্যে জিআর ৪৮/০৬, জিআর ২৭৯/১৫, নারী নির্যাতন মামলা নং-৯৫৯/০৬ ও সিআর ২২/২২১ উল্লেখযোগ্য। আদালতে বিচারাধীন এসব মামলায় সে দীর্ঘদিন ধরে পলাতক রয়েছে। পলাতক থেকে এলাকায় ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে আসছিল। অবশেষে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গতকাল বুধবার সকাল ১১টায় নিজ বাড়ি থেকে তাকে আটক করে মহেশখালী থানার পুলিশ। এসআই রোকন এ অভিযানে নেতৃত্ব দেন। আজিজুল হকের বিরুদ্ধে দুই ডজনেরও অধিক মামলায় গ্রেফতারী পরোয়ানা জারী থাকলেও থানায় নিয়ে যাওয়ার পর বহুমূখী দেনদরবার শুরু হয়। নগদ লেনদেনের পর অবশেষে অন্যান্য মামলা গোপন করে জামিনযোগ্য একটি মামলায় তাকে আদালতে চালান দেয় পুলিশ। ফলে গতকালই জামিনে মুক্তি পেয়ে যায় দুধর্ষ সন্ত্রাসী আজিজ।
এলাকাবাসী জানান, মুক্তি পাওয়ার পর এলাকায় গিয়ে শতাধিক রাউন্ড গুলি ছুঁড়ে উল্লাস প্রকাশ করে আজিজ ও তার সাঙ্গপাঙ্গরা। দুধর্ষ আসামী এভাবে মুক্তি পাওয়া ও গুলি বর্ষণের ফলে এলাকায় আতংক ছড়িয়ে পড়ছে। বিভিন্ন মামলায় গ্রেফতারী পরোয়ানাভুক্ত সন্ত্রাসী আজিজকে আটক করার দাবী জানিয়েছেন এলাকাবাসী।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •