cbn  

শাহেদ মিজান, সিবিএন:
কক্সবাজারে ইয়াবা ব্যবসায়ীর হাত ধরে পালিয়েছে অজুফা বেগম নামে ২ সন্তানের এক জননী। টেকনাফ রঙ্গীখালী এলাকার বাসিন্দা চিহ্নিত ইয়াবা ব্যবসায়ী নূরুল আলিম মোজাহিদের হাত ধরেই পালিয়েছেন তিনি। গত ৬ নভেম্বর তারা নিরুদ্দেশ হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন ওই গৃহবধূর স্বামী গোমাতলী এলাকার মঞ্জুর আলম। এই ঘটনায় থানায় অভিযোগ করেছেন স্বামী।

মঞ্জুর আলম অভিযোগ করে জানান, তার বাড়ি গোমাতলী। তবে তিনি বর্তমানে কক্সবাজারের ঝিংলজার উত্তর ডিককুল এলাকায় পরিবার নিয়ে বসবাস করছেন। তাদের এক ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে। তারা সুখে-শান্তিতে বসবাস করে আসছিল। মাস ছয়েক ধরে স্ত্রী অজুফা বেগমের চলাফেরা অস¦াভাবিক দেখা যায়। বাপের বাড়িসহ আত্মীয় বাড়ি যায় বলে দুদিন-তিনদিন বাড়ি থেকে নিরুদ্দেশ হয়ে যায়। বিষয়টি এক পর্যায়ে স্বামীর সন্দেহ হয়। সম্প্রতি বাপের যাওয়ার কথা বলে বাড়ি থেকে বের হয়ে যায় অজুফা। এর মধ্যে তিনদিন পর্যন্ত কোনো খোঁজ-খবর না থাকায় সন্দেহ হলে বাপের বাড়িতে খোঁজ নেয়া হয় স্বামী মঞ্জুর। কিন্তু অজুফা বেগম বাপের বাড়ি যায়নি। পরে বিভিন্ন ভাবে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, তিনদিন পর্যন্ত ঢাকায় অবস্থান করছিল অজুফা বেগম। বিষয়টি খোঁজ নিয়ে স্বামী জানতে পারে ইয়াবা ব্যবসায়ী হলো টেকনাফ রঙ্গীখালী এলাকার বাসিন্দা নূরুল আলিম মোজাহিদের সাথে অজুফা বেগমের প্রেমের সম্পর্ক হয়। ঢাকা থেকে বাড়িতে এলে বিষয়টির ব্যাপারে জানতে চাইলে অজুফা বেগম স্বামীর উপর ক্ষুব্ধ হয়। এর একদিন পর গত ৬ নভেম্বর নূরুল আলিম মোজাহিদের সাথে কোলের ছেলেসহ পালিয়ে যায় অজুফা।

স্বামী মঞ্জুর আলম আরো বলেন, ‘পালিয়ে গিয়ে তারা কোথায় আছে জানি না। তবে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে অজুফা ও মোজাহিদ আমাকে মেরে ফেলার হুমকি দিচ্ছে। আমি অজুফাকে চাই না, আমি আমার ছেলে ফেরত চাই। এই জন্য আমি আইনের আশ্রয় নিয়েছি।’

অভিযোগ মতে, ইয়াবা ব্যবসায়ী মোজাহিদ বর্তমানে কক্সবাজার শহরের আলির জাহাল এলাকায় বসবাস করছেন। তার স্ত্রী ও সন্তান রয়েছে। তার ইয়াবা ব্যবসার বিশাল সিন্ডিকেট রয়েছে। তার ইয়াবা পাচারের সিন্ডিকেটে বেশ কিছু মেয়েও রয়েছে। এভাবে মেয়েদের নিয়ে ইয়াবা পাচার করতে গিয়ে দু’টি বিয়ে করেছেন মোজাহিদ। ইয়াবা পাচার করতে গিয়ে ভিন্ন মেয়ের মাধ্যমে অজুফা বেগমের সাথে তার পরিচয় হয় মোজাহিদের। পরিচয় সূত্র ধরে লোভে পড়ে মোজাহিদের ইয়াবা পাচারের সিন্ডিকেটের সাথে জড়িত হয় অজুফা। সে বিভিন্ন সময় ঢাকাসহ বিভিন্ন স্থানে ইয়াবা বহন নিয়ে গেছেন। এক পর্যায়ে মোজাহিদের সাথে পরকিয়ায় জড়িয়ে পড়ে স্বামী-সংসার ফেলে তার হাত ধরে পালিয়ে গেছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •