ফারুক আহমদ, উখিয়া:

মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের অতিরিক্ত সচিব আইনুল কবির বলেছেন, রোহিঙ্গা অধ্যুষিত ক্ষতিগ্রস্থ স্থানীয় জনগোষ্টির আত্মসমাজিক উন্নয়নে উখিয়া ও টেকনাফে ৪০ হাজার দরিদ্র পরিবারকে খাদ্য নিরাপত্তা ও নগদ অর্থ সহায়তা প্রদানের কর্মসূচি চালু করা হয়েছে। তৎমধ্যে উখিয়ায় ২০ হাজার পরিবার রয়েছে। নারীর ক্ষমতায়ন ও আয় বর্ধন কর্মসূচির মাধ্যমে জীবিকা উপার্জন করার লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশেষ উদ্যোগে এতদ অঞ্চলের জনগনের সামাজিক নিরাপত্তা জোরদার করণে এ মহৎ কর্মসূচি বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।

মঙ্গলবার (১৩ নভেম্বর) উখিয়া অফিসার্স ক্লাবে খাদ্য নিরাপত্তা ও পুষ্টিমান উন্নয়ন (ইএফএসএন) ও ভিজিডি প্রকল্পের সংযোগ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে অতিরিক্ত সচিব এ কথা বলেন। উখিয়া উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো: ফখরুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্টিত সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন, মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক আবুল কাশেম।

জাতিসংঘ বিশ্বখাদ্য কর্মসূচি ও রির্সোস ইন্ট্রিগ্রেশন সেন্টার (রিক) এর সহযোগিতায় মহিলা ও শিশু বিষয়ক অধিদপ্তর আয়োজিত এ সভায় বক্তব্য রাখেন ডাব্লিওএফপি’র ন্যাশনাল প্রোগ্রাম অফিসার সানি সিং, জেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্ত সুব্রত বিশ্বাস, রত্মাপালং ইউপি চেয়ারম্যান খাইরুল আলম চৌধুরী, জালিয়া পালং ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল আমিন চৌধুরী, পালংখালী ইউপি চেয়ারম্যান এম গফুর উদ্দিন চৌধুরী। উখিয়া উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা মো: শওকত হোসেনের পরিচালনায় অনুষ্টিত সভায় আরো বক্তব্য রাখেন, ডাব্লিও এফপি’র ইএফএসএন এর প্রোগ্রাম অফিসার আমির হোসাইন, ডাব্লিও এফপির সিনিয়র প্রোগ্রাম এসোসিয়েট মোস্তাফিজুর রহমান, প্রকল্প সমন্বয়কারী সোহেল সানজিদ, মো: সেলিম উল্লাহ, নুর আজাদ চয়ন, আবু বক্কর ছিদ্দিক প্রমুখ। এ সময় সরকারী কর্মকর্তা, মহিলা মেম্বার ও বিভিন্ন এনজিও সংস্থার প্রতিনিধিগন উপস্থিত ছিলেন।

সভায় জানানো হয়, ইএফএসএন কর্মসূচীর আওতায় বর্তমানে উখিয়ার ৫টি ইউনিয়নে ১১ হাজার দরিদ্র পরিবারকে খাদ্য নিরাপত্তা ও পুষ্টিরমান উন্নয়নে মাসিক জীবিকা সহায়ক ভাতা প্রদান করা হচ্ছে। এছাড়াও প্রতিবন্ধিদেরকে ও চিকিৎসা প্রদান করা হয়।

সভায় আরো জানানো হয়, ভিজিডি কর্মসূচীর ২০ হাজার পরিবারের মধ্যে ইএফএসএন প্রকল্পের ১১ হাজার উপকার ভোগী সদস্যরাও অন্তভূক্ত হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •