cbn  

মোঃ জয়নাল আবেদীন টুক্কু, নাইক্ষ্যংছড়ি:
বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ৫নং সোনাইছড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বাহান মারমার অবৈধ পাথর কোয়ারীতে অভিযান চালিয়েছে নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা নির্বাহী অফিসার (নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট) এর নেতৃত্বে কক্সবাজার পরিবেশ অধিদপ্তর।

রবিবার ও সোমবার(১১,১২ নভেম্বর) ২৬৯ নং সোনাইছড়ি মৌজার মইশকুম ঝিরিতে দুই দফায় এই অভিযানে কয়েক হাজার ঘনফুট অবৈধ পাথর জব্দ করা হয়েছে। এই ঘটনায় অর্থদণ্ড দেওয়া হয়েছে ৪০ হাজার টাকা।

জানা গেছে, গত বছরের ন্যায় এই বছরও সোনাইছড়ি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বাহান মার্মা ক্ষমতার প্রভাব খাটিয়ে তার ছেলে, মেয়ের জামাই ও জনৈক বশির আহমদের নেতৃত্বে সোনাইছড়ির মইশকুম ঝিরি নামক এলাকায় পাহাড় খোদাই করে ও ঝিরি থেকে অবৈধভাবে পাথর উত্তোলন করে আসছে। এসব পাথর উত্তোলনের জন্য জেলা প্রশাসনের কোনো অনুমোদনও নেই তাদের।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ঝিরি এবং পাহাড়ের আনাচে-কানাচে, গভীর জঙ্গলে টিলা খুঁড়ে অথবা পাহাড়ের উপত্যকায় সমতল মাটিতে গভীর গর্ত খুঁড়ে পাথর উত্তোলন করা হচ্ছে। উত্তোলিত পাথরগুলো সেখানে ভাঙা হচ্ছে এবং ট্রাক-পিকআপ করে বিভিন্ন ব্রীজের কাজের জন্য ঠিকাদারের নিকট বিক্রি করা হচ্ছে।

এ বিষয়ে সোনাইছড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বাহান মার্মা’র মুঠোফোনে একাধিকবার চেষ্টা করলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

কক্সবাজার পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক সাইফুল আশরাব জানান, পাথর উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (নির্বাহী ম্যাজিট্রেট) সাদিয়া আফরিন কচি জনান, চেয়ারম্যান ২৭২নং জারুলিয়া ছড়ি মৌজার জারুলিয়া ছড়া থেকে পাথর আহরণের জন্য আবেদন করেছিলেন। কর্তৃপক্ষ এখনও অনুমতি দেয়নি। আইন অমান্য করায় সরেজমিনে উত্তোলিত পাথর জব্দ করে জড়িতদের বিরুদ্ধে ৪০ হাজার টাকার অর্থদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •