cbn  

শাহীন মাহমুদ রাসেল:
খরুলিয়াতে জরাজীর্ণ সড়ক সংস্কার, এলাকাবাসী খুশি, খানা-খন্দে ভরা কক্সবাজার সদর উপজেলার ঝিলংজা ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ডের খামার পাড়া সড়কে আর সিসি ঢালাই ও কার্পেটিং করা হয়েছে। এতে এলাকাবাসী বেশ খুশি।

জানা যায়, সদরের ঝিলংজা ইউনিয়নের ৮ নং ও ৯ নং ওয়ার্ডে বর্ষা, জলোচ্ছ্বাসসহ প্রাকৃতিক দুর্যোগে ক্ষয়ক্ষতি কিছুটা বেশি হয়। এলাকার রাস্তাঘাটগুলোও ক্ষতির শিকার হয়। আর দীর্ঘদিন ধরে সংস্কারের অভাবে এসব সড়ক হয়ে পড়ে চলাচলের অযোগ্য।

এলাকাবাসী জানান, ইউনিয়নের ৯ নং খামার পাড়া সড়কটি, দীর্ঘদিন সংস্কার না হওয়ায় অবস্থা খুবই করুণ হয়ে পড়ে। গভীর খানা-খন্দ ও সলিং ওঠে যাওয়ায় বর্ষা মৌসুমে সড়কগুলো দিয়ে চলাচল রীতিমতো দুরূহ। সার্বিক বিবেচনায় জেলা পরিষদের এডিবি ও রাজস্ব থেকে সড়কগুলোর সংস্কারে বরাদ্দের আবেদন করেন ঝিলংজা ইউপি চেয়ারম্যান টিপু সুলতান। তাঁর আবেদনের এবং অবদানের প্রেক্ষিতে সড়কে আর সিসি ঢালাইয়ের জন্য ২০ লাখ টাকা বরাদ্দ দেন জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান খাঁন বাহাদুর মোস্তাক আহমেদ।

বরাদ্দ পেয়ে জেলা পরিষদের প্রকৌশলীর মাধ্যমে দ্রুত কাজ শেষ করেন ইউপি চেয়ারম্যান টিপু সুলতান ও মেম্বার শরীফ উদ্দিন।

খামার পাড়া, মেহের আলী পাড়া, এবং সিকান্দার পাড়া গ্রামের বাসিন্দারা বলেন, পাশে নদী হওয়ায় এখানে ঝড়-বৃষ্টি জলোচ্ছ্বাসের প্রকোপ বেশি। তাই রাস্তাঘাট দ্রুত ক্ষতিগ্রস্ত হয়। সড়কগুলো বেশ কয়েক বছর খানা-খন্দে ভরা ছিল। অতীতে কোন চেয়ারম্যান মেম্বার এসড়ের অবস্থা দেখেও না দেখার ভান করে থাকতো, কোনদিন কেউ খবরাখবর রাখেনি, এখন আমাদের চেয়ারম্যান টিপু সুলতানের বদৌলতে এলাকার নতুন দিগন্ত স্থাপন হল।

চেয়ারম্যান টিপু সুলতান বলেন, চলতি অর্থ বছরে জেলা পরিষদ থেকে ২০ লাখ টাকা ব্যয়ে খামার পাড়া সড়কটি রাজস্ব খাত থেকে বিশ লক্ষ লাখ টাকা ব্যয়ে আর সিসি ঢালাই করা হয়েছে।

ইউপি সদস্য শরীফ উদ্দিন বলেন, সড়কটি জরাজীর্ণ হয়ে যাওয়ায় প্রত্যন্ত অঞ্চলের হাজার হাজার মানুষ দুর্ভোগে ছিলেন। সড়কটি আর সিসি ঢালাই হওয়ায় এলাকার হাজার হাজার মানুষ খুশি।

এলাকার তরুণ সমাজকর্মী মহিউদ্দীন সোহেল বলেন, এলাকার মানুষের উপকারে যেকোনো কাজকে অগ্রাধিকার দিয়ে থাকেন মান্যবর ইউপি চেয়ারম্যান টিপু সুলতান। আমাদের এলাকার গ্রাম্য সড়কগুলোর দুর্ভোগের কথা বললে সে দ্রুত ব্যবস্থা নিয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •