cbn  

শফিক আজাদ,উখিয়া:

উখিয়াবাসির একমাত্র স্বাস্থ্য কেন্দ্র উখিয়া হাসপাতালের বিরুদ্ধে একের পর এক অনিয়ম,দুর্নীতি,স্বজনপ্রীতি সহ নানান অভিযোগ লেগে আছে। বিশেষ করে সম্প্রতি একজন প্রসূতি রোগীকে আটকিয়ে এ্যাম্বুলেন্স ভাড়া আদায়ের ঘটনায় ভুক্তভোগী (প্রসূতি রোগী)র স্বামী বাদী হয়ে রোববার (৪ নভেম্বর)স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্ঠ বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে। এ নিয়ে বর্তমানে স্থানীয় হতদরিদ্র অসহায় সাধারণ মানুষের মাঝে চরম উত্তেজনা ও ক্ষোভ বিরাজ করছে । তবে স্বাস্থ্য কর্মকর্তা বললেন, অভিযোগ তদন্তে ৩সদস্যের টিম গঠন করা হয়েছে। দোষী প্রমাণিত হলে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

রামু খুনিয়াপালং ইউনিয়নের গোয়ালিয়াপালং এলাকার মৃত নুর আহাম্মদের ছেলে ভুক্তভোগী মরিয়ম বেগমের স্বামী ওসমান গণির দায়েরকৃত অভিযোগের সুত্রে জানা যায়, গত ১৭ অক্টোবর তার স্ত্রীর প্রসব যন্ত্রনা বেড়ে গেলে সকাল ৮টার দিকে উখিয়া হাসপাতালে নিয়ে এসে ভর্তি করে। দীর্ঘ ৩ঘন্টা পর কর্তব্যরত চিকিৎসক মরিয়ম বেগম(প্রসূতি রোগী)র অবস্থা বেগতিক দেখে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে রেফার করেন। এমতাবস্থায় সে হাসপাতালের জরুরী বিভাগে এসে সরকারী নাম্বার থেকে এ্যাম্বুলেন্সের ড্রাইভার হুমায়ুন কবিরকে ফোন দেয়। ফোন দেওয়ার ২০মিনিট পর সে এসে ওসমান গণির নিকট থেকে গাড়ী ভাড়া বাবদ ৭শত টাকা দাবী করে বসে। তার কাছে এত টাকা নেই বলে অনেক আকুতি-মিনতি করলেও ড্রাইভার হুমায়ুন কবির তার কথা শুনতে চায়নি। এক প্রকার বাধ্য হয়ে কোন রকমে টাকা জোগাড় করে মরিয়মকে কক্সবাজার নিয়ে যায়।

সে অভিযোগ আরো উল্লেখ্য করেন, বর্তমান সরকার জনগণের দৌড়গোড়ায় স্বাস্থ্য সেবা পৌছে দিতে গ্রামে গ্রামে কমিউনিটি ক্লিনিক প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে সব ধরনের স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করেছে। আর ২০১৪সাল থেকে সব ধরনের প্রসূতি রোগী পরিবহণের যাবতীয় ভাড়া ফ্রি করে দিয়েছে। কিন্তু উখিয়া হাসপাতালে তা কেন মানা হচ্ছেনা?

এদিকে বেশ কয়েকজন সচেতন ব্যক্তি জানান, অনেক বছর ধরে এ ধরনের অভিযোগ ছিল না। গত ৩/৪মাস ধরে প্রসূতি রোগীর নিকট থেকে ভাড়া আদায়ের কথা শোনা যাচ্ছে। তারা এসব অনিয়মের সাথে জড়িত এ্যাম্বুলেন্সের ড্রাইভারের বিরুদ্ধে প্রশাসনিক ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী জানান। এ নিয়ে অভিযুক্ত এ্যাম্বুলেন্সের ড্রাইভার হুমায়ুন কবিরের সাথে দীর্ঘক্ষণ চেষ্টা করেও কথা বলা সম্ভব হয়নি।

এব্যাপারে জানতে চাইলে উখিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও প.প. কর্মকর্তা মোঃ আব্দুল মান্নান জানান, ওসমান গণি নামের এক ব্যক্তি প্রসূতি রোগী আটকিয়ে টাকা আদায়ের একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে। অভিযোগ পাওয়ার পর ৩ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। এছাড়াও সরকারি নির্দেশনা অমান্য করে কোন কর্মকর্তা বা কর্মচারী টাকা আদায় করে থাকলে অবশ্যই তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা সহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •