cbn  

এম.জিয়াবুল হক,চকরিয়া :

চকরিয়া উপজেলার ঢেমুশিয়া ইউনিয়নে পরীক্ষা দিতে যাওয়ার পথে জেএসসি পরীক্ষার্থী এক ছাত্রীকে পথরোধ করে উত্ত্যক্ত করেছে বখাটে দুর্বৃত্তরা। ওইসময় ঘটনার প্রতিবাদ করতে গিয়ে বাঁধা দেয়ায় উল্টো বখাটে দুর্বৃত্তরা ইউপি মেম্বার জামাল হোসেন (৫৫) ও তাঁর স্ত্রী জামেনা বেগমকে (৪৫) কুপিয়ে ও পিটিয়ে জখম করেছে। গুরুতর আহত স্বামী-স্ত্রীকে চকরিয়া উপজেলা সরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। শনিবার সকালে ইউনিয়নের তেচ্ছাপাড়া গ্রামে ঘটেছে এ হামলার ঘটনা। আহত জামাল হোসেন ঢেমুশিয়া ইউনিয়ন পরিষদের ৫নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার। তিনি ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সমাজ কল্যাণ সম্পাদক।

চকরিয়া হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আহত ইউপি মেম্বার জামাল হোসেন জানান, তাঁর মেয়ে ঢেমুশিয়া জিন্নতআলী চৌধুরী উচ্চ বিদ্যালয়ে অস্টম শ্রেণীতে অধ্যায়নরত। এবছর ইলিশিয়া জমিলা বেগম উচ্চ বিদ্যালয় থেকে জেএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে। শনিবার সকালে বাড়ি থেকে বের হয়ে পরীক্ষা দিতে যাওয়ার পথে স্থানীয় রুহুল কাদের প্রকাশ গনীর ছেলে বখাটে ইলিয়াছসহ সহযোগিরা তাঁর মেয়ের গতিরোধ করে র উত্তক্ত্য করেছে বখাটে দুর্বৃত্তরা। ওইসময় মেয়ের শোর-চিৎকারে ঘটনাস্থলে পৌঁেছ ঘটনার প্রতিবাদ করেন ইউপি মেম্বার জামাল হোসেন।

ইউপি মেম্বার অভিযোগ করেছেন, ঘটনার সময় বাঁধা দেয়ায় উল্টো ক্ষিপ্ত বখাটে ইলিয়াছ ও তাঁর বাবা গনীর নেতৃত্বে ৪-৫ জনের দুর্বৃত্তদল দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে তাঁর উপর (ইউপি মেম্বার) হামলা চালায়। ওইসময় তাঁরা প্রথমে জামাল হোসেনকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে জখম করে। পরে স্বামীকে উদ্ধারে আসলে তাঁর স্ত্রী জামেনা বেগমকেও পিটিয়ে জখম করে হামলাকারী দুর্বৃত্তরা।

ঘটনার কারনে আক্রান্ত ওই শিক্ষার্থী শনিবার যথাসময়ে পরীক্ষা কেন্দ্রে পৌঁছতে পারেনি। ফলে এ কারনে পরীক্ষায় যথাযথভাবে উত্তরপত্রও লিখতে পারেনি বলে জানান আক্রান্ত শিক্ষার্থী।

ঘটনার পরপর স্থানীয় লোকজন ও পরিবার সদস্যরা এগিয়ে এসে ঘটনাস্থল থেকে গুরুতর আহত স্বামী-স্ত্রীকে উদ্ধার করে চকরিয়া উপজেলা সরকারি হাসপাতালে ভর্তি করেছে। ঘটনার ব্যাপারে মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে জানিয়েছেন আহত ইউপি মেম্বার।

চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো.বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, জেএসসি পরীক্ষার্থীকে উত্ত্যক্ত ও তাঁর মা-বাবাকে মারধরের ঘটনায় থানায় গতকাল রোববার পর্যন্ত অভিযোগ পাওয়া যায়নি। তবে পরবর্তীতে লিখিত অভিযোগ পেলে অবশ্যই তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •