ক্যাপশন: লোহাগাড়া পুটিবিলায়  বিষ প্রয়োগে জ্বালিয়ে দিয়েছে কৃষক নুরুল ইসলামের ধানক্ষেত।


লোহাগাড়া প্রতিনিধি:

লোহাগাড়া উপজেলার পুটিবিলা ইউনিয়নে পহরচাঁন্দা এলাকায় কৃষক নুরুল ইসলামের ১ কানি জমিতে রোপনকৃত ধানক্ষেতে বিষাক্ত বিষ প্রয়োগে জ্বালিয়ে দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ব্যাপারে কৃষক নুরুল ইসলাম উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে লিখিত অভিযোগ করেন।

অভিযোগ সুত্রে জানা যায, পুটিবিলা পহরচান্দাঁ এলাকায় পশ্চিম কলাউজান কুলাল পাড়া এলাকার ফজল করিমের পুত্র কৃষক নুরুল ইসলাম পুটিবিলা পহরচাঁন্দা এলাকায় রেপিনকৃত ধানক্ষেতে একই এলাকার মৃত আবদুল হাকিমের পুত্র ফজর আলী ৩০ অক্টোবর বিষাক্ত বিষ প্রয়োগ করে জ¦ালিয়ে দেয়। এ ব্যাপারে ভুক্তভোগী ফজর আলীকে বিবাদী কওে ৩১ অক্টোবর লোহাগাড়া উপজেলা নির্বাহী কার্যালয়ে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। উপজেলা নির্বাহী অফিসার অভিযোগটি তকলাউজান চেয়ারম্যানকেতদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য নির্দেশ দেনবলে জানা গেছে। অভিযোগ সুত্রে প্রকাশ, বিগত ১২/০৪/২০০৫ ইংরেজী ১১১ নং কবলামুলে মোক্তার আহমদ ওয়ারিশগণের বিক্রিত নুরুল ইসলাম গং খরিদা সুত্র মালিক হইয়া ১ খানি জায়গা ভোগ দখলে স্থিতি রয়েছে। উক্ত জায়গায় তারা ধানক্ষেত রোপন করে আসছে। কিন্তু পুর্ব শত্রুতার জের ধরে গত ৩০ অক্টোবর বিকেল ৫ টায় ফজর আলী ও তার দলবল নিয়া বিষাক্ত বিষ প্রয়োগ করে ধানক্ষেত জ্বালাইয়া দেয়।

এ ব্যাপারে ভুক্তভোগী কৃষক নুরুল ইসলাম কান্নাজনিত কন্ঠে বলেন, জায়গা গুলো আমরা ক্রয় করে ধানক্ষেত রোপন করে আসছি। কিন্তু প্রতিপক্ষ ফজর আলী পুর্ব পরিকল্পিত ভাবে তাদের ধানক্ষেতে বিষাক্ত বিষ ছিটিয়ে নষ্ট করে দেয়। তিনি সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের কাছে সুষ্ঠু বিচারের দাবী জানান।

পহরচাঁন্দা এলাকার বাসিন্দা আবুল হোসেন, সামশুল আলম ও নুরুল কবির বলেন, ফজর আলী এলাকার দুষ্ট প্রকৃতির লোক। নুরুল ইসলামের রোপনকৃত ধানক্ষেতে বিষ প্রয়োগ করে নষ্ট করতে তারা দেখেছেন বলেও জানান।

কলাউজান ইউপি চেয়ারম্যান এমএ ওয়াহেদ বলেন, বিষয়টি পুটিবিলা ইউপির তফসীলভুক্ত। ভূল তথ্যের ভিত্তিতে আমাকে মার্ক করেছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার। তাই তিনি এ ব্যাপারে কোন কথা বলতে নারাজ পোষণ করেন।

অন্যদিক, অভিযুক্ত ফজর আলীর সাথে যোগাযোগ করতে না পারায় তার বক্তব্যে নেওয়া সম্ভব হয়নি।

লোহাগাড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবু আসলাম বলেন, এ ব্যাপারে লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেছে। স্থানীয় চেয়ারম্যানকে তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য বলা হয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •