শাহিদ মোস্তফা শাহিদ, কক্সবাজার সদর:

কক্সবাজার সদর উপজেলা নির্বাহীকর্মকর্তা (ইউএনও’র) দাপ্তরিক মোবাইল নম্বর ক্লোন করে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে নগদ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। এ ধরনের খবর পেয়ে থানায় সাধারণ ডায়েরী করার প্রস্তুতি নিচ্ছে।

ঈদগাহ আদর্শ শিক্ষা নিকেতন কেজি স্কুলের সিনিয়র শিক্ষক নুরুল ইসলাম জানান, উক্ত স্কুলের জন্য কোরআই মডেলের দুটি ল্যাপটপ বরাদ্দ এসেছে। সার্ভিস চার্জ বাবদ ১৫ হাজার টাকা প্রধান শিক্ষক একেএম আলমগীর থেকে দাবী করেন। এসময় ইউএনওর নম্বরে কল না করে অন্য একটি নম্বরে যোগাযোগ করতে বলেন।

আরো একটি বিকাশ নম্বর দিয়ে বলেন টাকাগুলো ঐ বিকাশ নম্বরে দিতে। প্রধান শিক্ষক সরল বিশ্বাসে ঐ নম্বরে দুই কিস্তিতে ১৪ হাজার ৭শ ৯০ টাকা দেন। পরে একই নম্বর থেকে পুনরায় টাকা দাবী করলে বিষয়টি সন্দেহ জনক হয়। সন্দেহের ধু¤্রজাল সৃষ্টি হলে তিনি বিষয়টি তাৎক্ষণিক ইউএনওকে বলেন।

এসময় ইউএনও জানায় তিনি কাউকে ফোন করে টাকা চাইনি। পরে ঐ নম্বরে একাধিক বার যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হয়। বন্ধ থাকায় কথা বলা সম্ভব হয়নি বলে জানায় প্রধান শিক্ষক। খবর পেয়ে সদর ইউএনও এইচএম মাহফুজুর রহমান স্কুলে এসে খোঁজখবর নেন। সিনিয়র শিক্ষক নুরুল ইসলাম বলেন বিকাশ হেল্প লাইনে যোগাযোগ করে ৯ হাজার ৭ শ ৮ টাকা আটকানো হয়েছে। এ ব্যাপারে ইউএনও এইচ এম মাহফুজুর রহমান বলেন, সংঘবদ্ধ একটি প্রতারক চক্র বিভিন্ন সময়ে সরকারি কর্মকর্তাদের মোবাইল নম্বর ক্লোন করে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেয়।

একইভাবে আমার নম্বরটিও ক্লোন করে টাকা হাতিয়ে নেওয়ার খবর পেয়ে প্রতারক চক্রের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। উক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষকেও থানায় জিডি করতে বলা হয়েছে। পাশাপাশি সর্বসাধারণকে এ ব্যাপারে সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •