শাহিদ মোস্তফা শাহিদ, সদর
বন সম্পদ রক্ষায় বনকর্মীদের পাশাপাশি এলাকার সচেতন জনগণকে এগিয়ে আসতে হবে।তাহলে রক্ষা করা সহজ হবে বৈচিত্র্যময় বনজ সম্পদ। সচেনতার অভাবে বন সম্পদ হারিয়ে যেতে বসেছে। এর থেকে উত্তরণের সহজ উপায় হচ্ছে স্থানীয়দের সহযোগিতা। সরকারী দায়িত্ব পালনে অনেক বাঁধা বিপত্তি আসার পরও তাদের অর্পিত দায়িত্ব সাহসীকতার সাথে
পালন করে যাচ্ছে বনককর্মীরা।এক শ্রেণীর অসাধু বনদস্যুদের কারনে সরকারি সম্পদ অনেকটা দখলে চলে গেছে।কিন্তু বন বিভাগের দুঃসাহসিক অভিযানে ফিরে পেয়েছে সরকারি হেক্টর হেক্টর ভূমি।
২ অক্টোবর বিকাল ৩টায় ঈদগাঁও রেঞ্জ কর্মকর্তার বিদায় ও বরন অনুষ্ঠানে বক্তারা এসব কথা বলেন।ঈদগাঁও রেঞ্জের বন কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের আয়োজনে অনুষ্ঠিত এ অনুষ্ঠিত হয়।জোয়ারিয়ানালা রেঞ্জ কর্মকর্তা আবদু রাজ্জাকের সভাপতিত্বে ঈদগড় রেঞ্জ কর্মকর্তা এমদাদুল হকের উপস্থাপনায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন কক্সবাজার সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মোঃ আবু তালেব,আমন্ত্রিত অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন ঈদগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ফরিদুল আলম,অবসরপ্রাপ্ত প্রবীন শিক্ষক আলহাজ্ব ফরিদুল আলম।বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বাঁকখালী রেঞ্জ কর্মকর্তা একেএম আতা এলাহী,মেহের ঘোনা রেঞ্জ কর্মকর্তা মোঃ মামুন মিয়া।বিদায়ী রেঞ্জ কর্মকর্তা মাজহারুল ইসলাম, নবাগত রেঞ্জ কর্মকর্তা মোঃ হাফিজুর রহমান।এর আগে বিদায়ী কর্মকর্তার উদ্দেশ্যে মানপত্র পাঠ করেন ভোমরিয়া ঘোনা বিট কর্মকর্তা মোঃ ইলিয়াস হোসেন।
অন্যন্যাদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন পূর্ণগ্রাম বিট কর্মকর্তা জহুরুল হক,স্টাপ শাহাদাত হোসেন প্রমূখ।এসময় ঈদগাঁও ইউপি চেয়ারম্যান ছৈয়দ আলম, সদর রেঞ্জ কর্মকর্তা হাসান মেহেদী,স্থানীয় সাংবাদিক মোঃ রেজাউল করিম,শাহিদ মোস্তফা শাহিদ, স্থানীয় মেম্বার আবদুল হাকিম,আওয়ামীলীগ নেতা নুরুল হুদা,মানবাধিকার কর্মী নাছির উদ্দীন পিন্টুসহ বিট অফিসের কর্মকর্তা,কর্মচারী,হেডম্যান,ভিলেজার,উপকারভোগীসহ অনেকেই উপস্থিত ছিলেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •