প্রেস বিজ্ঞপ্তি:
উখিয়া উপজেলা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পারিষদের ভাইস চেয়ারম্যান সুলতান মাহমুদ চৌধুরী, সহ-সভাপতি নুরুল ইসলাম সিকদার, উপজেলা যুবদল সভাপতি আহসান উল্লাহ্, উপজেলা ছাত্রদলের আহবায়ক আরাফাত হোসেন চৌধুরী, রাজাপালং বিএনপি (দক্ষিণ) শাখার সভাপতি শাহজাহান আলী, উখিয়া উপজেলা জামায়াত ইসলামী’র আমীর মওলানা আবুল ফজল সহ ১৯ জনকে এজাহারভূক্ত আসামী করে উখিয়া থানায় ৩১ অক্টোবর বুধবার একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলায় আরো ৪০ জনকে অজ্ঞাতনামা আসামী করা হয়।
উখিয়ায় বিএনপি নেতা কর্মীদের বিরুদ্ধে মামলার ঘটনায় নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে তা প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছেন উখিয়া উপজেলা বিএনপি সভাপতি, উপজেলা চেয়ারম্যান জননেতা সরওয়ার জাহান চৌধুরী।
বুধবার (৩১অক্টোবর) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে তিনি এ প্রতিবাদ জানান। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, জনগণের মধ্যে ভীতি ও আতঙ্ক ছড়িয়ে দিয়ে চিরদিন রাষ্ট্রক্ষমতায় থাকার জন্য বর্তমান শাসকগোষ্ঠী দেশব্যাপী বিএনপিসহ বিরোধী দলীয় নেতা কর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা ও বানোয়াট মামলা দায়ের, গ্রেপ্তার, রিমান্ডে নিয়ে নির্যাতন করছে। এরি ধারাবাহিকতায় আজ আমাদের উখিয়া উপজেলা বিএনপি ও জামায়াতের নেতৃবৃন্দ উপর গায়েবী মামলা করা হয়েছে কোন কারণ বা ঘটনা সংগঠিত হওয়া ছাড়াই। এটা অত্যান্ত দুঃখ্যজনক। নির্বাচনের আগে ছলচাতুরি করে সরকার বিএনপি নেতৃবৃন্দদের দমাতে পারবে না৷
সরওয়ার জাহান চৌধুরী বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে সাজানো মামলায় দোষী বানিয়ে অন্যায়ভাবে কারাবন্দী রেখে নেতা কর্মীদের ওপর জুলুম নির্যাতন চালানো হচ্ছে। সরকার আবারও একতরফা নির্বাচনের মাধ্যমে জোর করে ক্ষমতা দখল করতে চায়।নেতৃবৃন্দের বিরুদ্ধে কাল্পনিক গায়েবি মামলা দায়েরের ঘটনায় বোঝা যায় সরকার পরিকল্পিতভাবে বিএনপিকে নিশ্চিহ্ন করার গভীর চক্রান্তে লিপ্ত। যে টি উখিয়া উপজেলা তথা গোটা দেশের মানুষ শক্তহাতে দমন করবে৷ সরকার যে দেউলিয়া হয়েগেছে গায়েবী মামলা তার অন্যতম প্রমান৷
বিএনপি নেতা কর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়েরের ঘটনায় সরওয়ার জাহান চৌধুরী নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানান।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •