এম.মনছুর আলম, চকরিয়া:

চকরিয়ায় ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে আবু ইউসুফ জয় (২৬) নামের এক ছাত্রলীগ নেতার করুণ মৃত্যু হয়েছে। চট্রগ্রাম মহানগরীর পার্ক ভিউ হাসপাতালের (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় রবিবার সকাল সাড়ে ৭টায় তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

নিহত এ ছাত্রনেতা চকরিয়া পৌরসভা ২ন¤॥^র ওয়ার্ডের হালকাকারা মৌলভীর চর এলাকার নুরুল ইসলামের ছেলে ও চকরিয়া পৌরসভা ছাত্রলীগের সাবেক আহ্বায়ক।

নিহতের পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, ছাত্রনেতা ইউসুফের আগে থেকে বড় ধরণের কোনো অসুখ ছিল না। গত এক সপ্তাহ পূর্বে(রবিবার) দুপুরের পর কিছুটা অসস্থিবোধ করলে সে বাহির থেকে বাসায় ফিরে আসেন।এর পর ইউসুফের প্রচ- মাথা ব্যাথা ও জ্বরে ভোগে। ভোরের দিকে অবস্থার অবনতি হতে থাকে। স্থানীয় চিকিৎসকদের পরামর্শে সে’দিন থেকে প্রাথমিক চিকিৎসা চলতে থাকে। পরবর্তীতে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি দেখাগেলে এক পর্যায়ে তাকে দ্রুত চট্রগ্রাম মহানগরী কাতালগঞ্জ পার্ক ভিউ প্রাইভেট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।শনিবার বিকাল ৪টায় তার অবস্থা অবনতি হলে লাইফ সার্পোট রাখা হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় রবিবার সকাল সাড়ে ৭টায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

হাসপাতালের একজন চিকিৎসক জানান, একজন সুস্থ মানুষের দেহে রক্তে প্লাটিলেটের পরিমাণ সর্বনিম্ন দেড় লাখ থেকে সাড়ে ৪ লাখ থাকে। কিন্তু ইউসুফের রক্তে প্লাটিলেটের পরিমাণ কমে আসে। রক্তে প্লাটিলেটের পরিমাণ কমে যাওয়ায় স্বজনরা তাকে বাঁচাতে কয়েক ব্যাগ ব্লাড দেন। কিন্তু তবুও তাকে বাঁচানো যায়নি। তার মৃত্যুর এ খবরের সত্যতা নিশ্চিত করেন চকরিয়া পৌরসভা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি মো: ওয়ালিদ মিল্টন।তিনি বলেন, পার্ক ভিউ হাসপাতালের চিকিৎসকরা তাকে জানিয়েছেন, ডেঙ্গু হেমোরেজিক জ্বরে আক্রান্ত হয়ে মূলত রোগীর মৃত্যু হয়।এ দিকে তার অকাল মৃত্যুতে পুরো এলাকা জুড়ে শোকের ছায়া নেমে আসে। নিহত ছাত্রনেতা ইউসুফের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করে বিবৃতি দেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ জাফর আলম, সাধারণ সম্পাদক ও ইউপি চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী, চকরিয়া পৌরসভার মেয়র মো: আলমগীর চৌধুরী, চকরিয়া প্রেসক্লাবের সভাপতি এম জাহেদ চৌধুরী, সাবেক সভাপতি সিনিয়র সাংবাদিক এম আর মাহমুদ, সাধারণ সম্পাদক মিজবাহউল হক, চকরিয়া পৌরসভা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান জাহেদুল ইসলাম লিটু, সাধারণ সম্পাদক আতিক উদ্দিন চৌধুরীসহ অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •