সংবাদদাতা:

চকরিয়ায় বিএনপি, অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের ৫০ জন নেতাকর্মীকে আসামী করে বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা দায়ের করেছে থানা পুলিশ।  গত শনিবার ঝটিকা মিছিলের সময় মহাসড়কে যানচালাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি, গাড়ি ভাংচুর ও অন্তর্ঘাতমূলক কাজ করার অভিযোগে ২৫ জনের নাম উল্লেখপূর্বক অজ্ঞাত আরো ২৫জনসহ ৫০জনকে আসামী করে মামলাটি দায়ের করেন থানার উপরিদর্শক (এসআই) মো. আবদুল বাতেন। এ মামলার এজাহারনামীয় তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

গ্রেপ্তার তিনজন হলেন, জসিম উদ্দিন, কাইছার হামিদ ও মো. বেলাল। ধৃতদের রবিবার আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। বিশেষ ক্ষমতা আইনে দায়ের করা এ মামলায় এজাহারনামীয় ২৫ জনের মধ্যে অপর আসামীরা হলেন, মো. রিয়াদ, আবদুল্লাহ আল নোমান, মো. মিনহাজ, ওয়াদুদ, আবু বক্কর, মো. জয়নাল আবেদীন, কুতুবউদ্দিন কমিশনার, এজাজুল, মো. জয়নাল,বাহাদুর, আবদুর রহিম, মো. সাবু, নজির আহাম্মদ, আবদুর রহমান, মনজুর মোর্শেদ, মহিউদ্দিন পুতু, আবদুল হাফেজ, মো. বেলাল উদ্দিন, কুতুবউদ্দিন সোহেল, মো. আবদুল খালেক ও পেকুয়ার মুনতাজির কামরান জাবিদ প্রকাশ মুকুট।

মামলার বাদী উপরিদর্শক (এসআই) মো. আবদুল বাতেন এজাহারে দাবী করেন, শনিবার দুপুরে বিএনপি জামায়াতের ৫০জন নেতাকর্মী পুরাতন বাস টার্মিনাল এসআলম কাউন্টারের সামনে জড়ো হয়ে ২১শে আগস্ট হামলার রায়কে কেন্দ্র করে সরকার বিরোধী বক্তব্য প্রদান করেন। তারেক রহমানসহ বিএনপি নেতৃবৃন্দের বিরুদ্ধে আদালতের ফরমায়েশি রায় বলে সরকার বিরোধী স্লোগান দিয়ে গাড়ি চলাচলে বাধা ও ভাংচুর চালায়। ওই ঘটনায় জড়িত তিনজনকে অভিযান চালিয়ে গ্রেপ্তার করা হয়।

চকরিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, আন্দোলনের নামে গাড়ী চলাচলে বাধা ও ভাংচুরসহ সাধারণ মানুষের ক্ষতি করার অধিকার কারো নেই। চকরিয়ার শান্ত পরিবেশকে অশান্ত করে তুলতে বেআইনি কাজ করায় জড়িতদের বিরুদ্ধে মামলাটি দায়ের হয়েছে। অজ্ঞাতদের সনাক্তপূর্বক চুড়ান্ত প্রতিবেদনে অন্তর্ভুক্ত করা হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •