পেকুয়া প্রতিনিধি:

পেকুয়ায় রাতের আধারে পাহাড় কেটে সমতলে পরিণত করেছে একদল দূর্বৃত্ত। এ কারণে পাহাড়ের উপরে বসবাসকারী অসহায় নুরুল ইসলামের বসতবাড়ি চরম ঝুকিতে মধ্যে রয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। যেখোন মূহর্তে বসতবাড়িটি ধ্বসে গিয়ে মারাত্মক দূর্ঘটনার আশঙ্কাও করছে নুরুল ইসলামের পরিবার। নুরুল ইসলাম বারবাকিয়া ইউনিয়নের পাহাড়িয়াখালী এলাকার মৃত আমিন উল্লাহর পুত্র।

পাহাড় কাটা অব্যাহত রাখায় বসতবাড়ি ধ্বসের আশঙ্কা করে নুরুল ইসলাম বলেন, দীর্ঘ বছর ধরে আমি অসহায় হয়ে পরিবার পরিজন নিয়ে পাহাড়ে বসবাস করে আসছি। বসতবাড়িসহ পাহাড়ের জমিটি দখল করার জন্য চক্রান্ত করে আসছিলেন একই এলাকার নুর আহমদ ও তার স্ত্রী দিলোয়ারা বেগম। এরই ধারাবাহিকতায় নুর আহমদ ও তার স্ত্রী দিলোয়ারা বেগমসহ আরো ৪/৫জন লোক গত তিন চারদিন ধরে রাতের আধারে অল্প অল্প করে পাহাড় কাটা শুরু করে। বিগত ৫/৬ মাস আগেও তারা পাহাড়টি কাটা শুরু করলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে বিষয়টি আমি অবগত করি। তারা পাহাড় কাটবেনা বলে মোছলেখা দিয়ে ছাড়া পান। তারা প্রভাবশালী ও মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করার হুমকি দেয়ায় আমি প্রতিবাদ করার সাহস পাচ্ছিনা। সর্বশেষ গতকাল দিনে পাহাড় কাটা অব্যাহত রাখায় বসতবাড়িটি সম্পূর্ণ ধ্বসে গিয়ে হতাহত হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। বর্তমানে প্রশাসনের আইনকে বৃদ্ধাগুলি দেখিয়ে আবারো পাহাড় কাটা অব্যাহত রাখায় পরিবার পরিজন নিয়ে চরম ঝুঁকিতে বসবাস করছি। এছাড়াও সকালে ঘুম থেকে ওঠে পাহাড় না কাটতে বারণ করলে আমাকে ও পরিবারকে মিথ্যা মামলা দিয়ে বসতবাড়ি ছাড়া করার প্রকাশ্যে হুমকি প্রদর্শণ করছে। এ বিষয়ে আমি পুলিশ সুপার, পেকুয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও ওসি মহোদয়ের দ্রুত হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •