প্রেস বিজ্ঞপ্তি:

১৩ অক্টোবর কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের সম্মেলন কক্ষে জেলার চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের মাসিক পুলিশ-ম্যাজিস্ট্রেসী সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ তৌফিক আজিজ এর সভাপতিত্বে এ সম্মেলনে ন্যায়বিচার নিশ্চিতের লক্ষ্যে ম্যাজিস্ট্রেসী ও পুলিশ বিভাগের কার্যক্রমে সার্বক্ষণিক সমন্বয় রাখার আহ্বান জানানো হয়।

সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কক্সবাজার জেলার জেলা ও দায়রা জজ খোন্দকার হাসান মোঃ ফিরোজ। তিনি তাঁর বক্তৃতায় ম্যাজিস্ট্রেসী ও পুলিশ বিভাগের কার্যক্রমে গতিশীলতা আনয়নসহ সমন্বয় সভার সুফল জনগণের সম্মুখে পরিস্ফুট করার আহ্বান জানান। বিশেষ অতিথি হিসেবে সভায় উপস্থিত ছিলেন নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-২ এর বিচারক জেবুন্নাহার আয়শা, জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ কামাল হোসেন ও পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন।

স্বাগত বক্তব্যে চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ তৌফিক আজিজ ২০১৮ সনের নয় মাসে চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের আওতাধীন সকল আদালতে মোট ১২,১৩১টি মামলা নিষ্পত্তির তথ্য উপস্থাপন করেন। বিচারাধীন ২৬,৫৬৯টি মামলার পাশাপাশি এ সময়ে দায়ের/প্রাপ্তি ঘটে ১১,৬৯৭টি, যেখানে সকল আদালতে ১,২৮২টি দোতরফা রায় সহ মোট ১২,১৩১টি মামলা নিষ্পত্তির পর ২৬,১৩৫টি মামলা বিচারাধীন থাকে। তিনি উক্তরূপ নিষ্পত্তিতে সক্রিয় সহযোগিতার জন্য পুলিশ সহ সংশ্লিষ্ট সকল বিভাগকে ধন্যবাদ জানান। বিশেষ অতিথি জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ কামাল হোসেন তাঁর বক্তব্যে উক্তরূপ নিষ্পত্তি প্রশংসনীয় ও বিচার বিভাগের একটি উজ্জল দৃষ্টান্ত মর্মে অভিহিত করেন।

সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তামান্না ফারাহ’র সঞ্চালনায় উক্ত সভায় আগতদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আশরাফুল আফসার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ আদিবুল ইসলাম, জেলা আইনজীবি সমিতির সভাপতি মোহাম্মদ নুরুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক ইকবালুর রশিদ আমিন, পাবলিক প্রসিকিউটর মমতাজ আহম্মদ, জিপি মুহাম্মদ ইসহাকসহ সকল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাগণ, জেল সুপার বজলুর রহমান এবং র‌্যাব, কোস্ট গার্ড, বন বিভাগ ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাগণ। তাঁরা প্রত্যেকে সভার বিষয়বস্তুর উপর স্বীয় গুরুত্বপূর্ণ অভিমত প্রদান করেন।

বর্তমানে কর্মরত সকল জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটগণ সন্তোষজনক পরিমাণ মামলা নিষ্পত্তির পরও মামলা দায়েরের হার অত্র জেলায় বেশী হওয়ায় চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ তৌফিক আজিজ বিচারাধীন মামলার সংখ্যা হ্রাসকরণের লক্ষ্যে সকল পর্যায়ের কর্মকর্তাগণকে প্রয়োজনীয় দিক নির্দেশনা প্রদান করেন।। সভায় জেলার বিচারকগণের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট রাজিব কুমার বিশ্বাস, সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সুশান্ত প্রসাদ চাকমা, মুহাং হেলাল উদ্দিন, রাজিব কুমার দেব, মোঃ তারেক আজিজ, রেজাউল হক ও সিনিয়র সহকারী জজ আলাওল আকবর।

  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •