আন্তর্জাতিক ডেস্ক:
আদালত থেকে জামিন পেলেন স্বঘোষিত ‘গডম্যান’ গুরমিত রাম রহিম সিং। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল ডেরায় থাকা প্রায় ৪০০ পুরুষের অণ্ডকোষ জোর করে কেটে দিয়েছেন তিনি। ভারতের কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা (সিবিআই) এ মামলা পরিচালনা করছিল। শুক্রবার পঞ্চকুলার সিবিআই আদালত সেই মামলায় রাম রহিমের জামিন মঞ্জুর করেন।

তবে মামলার জামিন পেলেও জেল থেকে মুক্ত হচ্ছেন না রাম রহিম। কেননf তিনি জামিন পেয়েছে অনুগামীদের যৌনাঙ্গচ্ছেদের মামলায়। কিন্তু তার বিরুদ্ধে ডেরার দুই শিষ্যকে ধর্ষণের অভিযোগ রয়েছে। সেই অভিযোগে আদালত তাকে ২০ বছরের কারাদণ্ডে দিয়েছে। আপাতত সেই দণ্ড ভোগ করতে হচ্ছে তাকে।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমগুলোর প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, চলতি বছরের ২৩ আগস্ট সিবিআইয়ের স্পেশাল জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট রাম রহিমের জামিনের আবেদন খারিজ করেছিল। এরপরই সেই রায়কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে সিবিআই বিচারক জগদীপ সিংয়ের কাছে আবেদন করেন রাম রহিম।

দুই নারী ভক্তকে ধর্ষণের অভিযোগে করা দুটি মামলায় দোষী সাব্যস্ত করা হয় রাম রহিমকে। এরপর নেওয়া হয় রোহতক শহর থেকে ১০ কিলোমিটার দূরের সানোরিয়া কারাগারে। রাম রহিমকে দুটি মামলায় ১০ বছর করে ২০ বছরের কারাদণ্ড দেন সিবিআই আদালত।

রাম রহিমের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠে শুরুর দিকে তার পালিত কন্যা হানিপ্রীতকে ধর্ষণ করেছিলেন। ডেরার প্রাক্তন অনুসারীদের দাবি, রাম রহিমের সার্বক্ষণিক সহযোগী হওয়ার আগে হানিপ্রীত তার দ্বারা ধর্ষণের শিকার হয়েছিলেন

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •