শাহেদ মিজান, সিবিএন:
বর্তমান সরকার তাদের উন্নয়নের তথ্য জনগণের কাছে পৌঁছে কয়েক বছর ধরে উন্নয়ন মেলার আয়োজন করে আসছে। এই মেলায় সরকারের সেবা সম্পর্ক বিস্তারিত তথ্য প্রদান ও তাৎক্ষণিক এবং সহজে সেবা প্রাপ্তির সুযোগ করে দেয়া। এতে জনগণ উপকৃত হচ্ছে। এই লক্ষ্য সামনে রেখে সরকার এবার বৃহৎ পরিসরে সারা দেশে একযোগে উন্নয়ন মেলার আয়োজন করেছে। আজ বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হচ্ছে এই মেলা। কক্সবাজারে গোল চত্বর মাঠে বৃহৎ আকারে এই মেলা অনুষ্ঠিত হবে। এই জন্য জাঁকজমকপূর্ণ আয়োজন করা হয়েছে।

জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, বর্তমান সরকারের আমলে সারা দেশের মধ্যে কক্সবাজারে উন্নয়ন হয়েছে সবচেয়ে বেশি। বর্তমানে এ জেলায় ৬৯টি উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়নাধীন। প্রধানমন্ত্রীর অগ্রাধিকার ভিত্তিক বৃহৎ প্রকল্প রয়েছে ১২টি। কক্সবাজারে সরকারের প্রায় ৩ লাখ কোটি টাকার প্রকল্প বাস্তবায়নের পথে। কক্সবাজারে অনুষ্ঠেয় জাতীয় উন্নয়ন মেলা হবে ব্যতিক্রমধর্মী ও জাঁকজমকপূর্ণ। ৪ অক্টোবর সকালে ১০ হাজার মানুষের অংশগ্রহণে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রার মধ্য দিয়ে মেলার শুভ সূচনা হবে। এরপর প্রধানমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মেলার শুভ উদ্বোধন ঘোষণা করবেন।

জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন জানান, মেলায় প্রতিদিন বিকেল ৪টা থেকে সন্ধ্যে ৬টা পর্যন্ত বঙ্গবন্ধুর উন্নয়ন দর্শন ও আজকের বাংলাদেশ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ১০টি বিশেষ উদ্যোগ, টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি), শিক্ষিত জাতি সমৃদ্ধ দেশ-শেখ হাসিনার বাংলাদেশ বিষয়ে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে।

সন্ধ্যার পরে থাকবে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। তিনদিনের মেলায় দেশের বিখ্যাত ব্যান্ড গ্রুপ সোলস, স্বনামধন্য শিল্পী ফকির শাহাবুদ্দিন, বাউল শিল্পী রিংকু, প্রতীক হাসানসহ দেশ সেরা শিল্পীরা গান পরিবেশন করবেন।

এছাড়াও ছাড়াও থাকবে রাখাইন ও স্থানীয় শিল্পীদের মনোমুগ্ধকর পরিবেশনা। স্কুল, কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীদের জন্য থাকবে রিয়েলিটি শো, কুইজ, রচনা ও চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা। মেলার শেষ দিনে থাকবে উন্নয়ন কর্মকা-ের লেজার শো এবং আতশবাজি।

জেলাপ্রশাসক মো. কামাল হোসেন আরো বলেন, এবারের মেলায় সব সরকারি বিভাগ, বাহিনী, সংস্থা, দপ্তর, পরিদপ্তরের স্টল থাকবে। যেকোন মানুষ মেলা প্রাঙ্গণে গিয়ে জানতে পারবেন সরকারি কোন দপ্তরের কোন ধরনের সেবা প্রদানের বাধ্যবাধকতা রয়েছে।

তিনি বলেন, ইতিমধ্যে মেলাকে ঘিরে থিম সং রচনা করা হয়েছে। যেখানে তুলে ধরা হয়েছে কক্সবাজার জেলার ইতিহাস, ঐতিহ্য, দর্শনীয় স্থান এবং চলমান উন্নয়ন প্রকল্পসমূহ। এই গানে উন্নয়নের জয়যাত্রার পাশাপাশি বঙ্গোপসাগর, নদী, এবং পাহাড় বেষ্টিত এই জনপদের মানুষের কথা তুলে ধরা হয়েছে।

শুধু মেলা প্রাঙ্গণের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকবে না এবারের উন্নয়ন মেলা। ডিজিটাল ভ্যানের মাধ্যমে শহরে প্রদর্শন করা হবে কক্সবাজারে সরকারের উন্নয়ন কর্মকা- এবং মেগা প্রকল্প সমূহের চিত্র। এছাড়া উন্নয়য়নের খবর মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছাতে জেলার ৭১টি ইউনিয়নে বড় এলইডি স্ক্রিনের সাহায্যে উন্নয়নের চিত্র দেখানো হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •