cbn  

সিবিএন:
কক্সবাজার শহরের ফুয়াদ আল খতিব হাসপাতালে নার্স এবং কর্তব্যরত চিকিৎসকের অবহেলায় রাইয়ান নামে দেড় বছরের একটি শিশুর মৃত্যুর অভিযোগ পাওয়া গেছে। বুধবার (২৬ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় শিশুটির মৃত্যু হয়। শিশুটি রাইয়ান উখিয়া উপজেলার হলদিয়াপালং ইউনিয়নের পাগলির বিল এলাকার মাহমুদুল হকের পুত্র।

শিশুটির নানা আবদুস সালাম জানান, আগুনে পুড়লে শিশুটিকে সোমবার ফুয়াদ আল খতিব হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। হাসপাতালের চিকিৎসক নূরুল করিম ও মেজর ইমরানের তত্বাবধানে তার চিকিৎসা চলছিল। কিন্তু হাসপাতালের নিয়মিত ডিউটি চিকিৎসক ও নার্সরা শিশুটির সঠিক দেখভাল করেনি। মঙ্গলবার থেকে শিশুটির অস্থিরতা বেড়ে যায়। সব সময় ছটফট করতে থাককে। এই নিয়ে হাসপাতালের নিয়মিত ডিউটি চিকিৎসক ও নার্সদের বারবার বললেও তারা বিষয়টি গুরুত্ব দেয়নি। শেষে বুধবার বিকালে শিশুটি নীরব হয়ে যায়। তারপরও নার্সরা বলে- ঘুমের ওষুধ দেয়ার কারণে এরকম হয়েছে। পরে জোরাজুরিতে ভালো করে দেখে তারা শিশুটিকে সদর হাসপাতালে রেফার করেন। সেখানে নিয়ে গেলে তাকে মৃত্যু ঘোষণা করেন সেখানকার দায়িত্বরত চিকিৎসক।

তবে হাসপাতালে সহকারী ম্যানেজার সেলিম উল্লাহ জানান, হাসপাতালের চিকিৎসক নূরুল করিম ও মেজর ইমরানের তত্বাবধানে চললেও মাঝখানে ডা. আবদুল সালামকে দিয়েও চিকিৎসা করিয়েছে রোগীর স্বজনেরা।

মুঠোফোনে ফুয়াদ আল খতিব হাসপাতালের সুপার ডা. শাহ আলম বলেন, এই শিশুটা আদৌ অবহেলায় মারা গেছে কিনা আমি নিশ্চিত নই। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।’

হলদিয়াপালং ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম ঘটনার খবর পেয়ে হাসপাতালে উপস্থিত হন। তিনি জানান, শিশুটা মারা যাওয়ার দুই ঘণ্টা পর ছাড়পত্রে লেখা হলো, সরকারি হাসপাতালে উন্নত চিকিৎসার জন্য যোগাযোগ করার জন্য। এবং শিশু মারা যাওয়ার পর পরই সবাই লাপাত্তা হয়ে যায়। হাসপাতালের কেউ কথা বলতে চাচ্ছে না। এর থেকে স্পষ্ট বুঝা যায়, ভুক্তভোগিদের অভিযোগ সত্য।

কক্সবাজার সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফরিদ উদ্দীন খন্দকার বলেন, ঘটনার খবর পেয়ে হাসপাতালে পুলিশ পাঠানো হয়। খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •