মাথায় চলছিল কীভাবে যাত্রীদের নিরাপদে নামানো যায়

ডেস্ক নিউজ:

কক্সবাজার বিমানবন্দরের চারপাশে ঘুরেছেন আটবার। অবতরণ করতে না পেরে চট্টগ্রামের শাহ আমানত বিমানবন্দর প্রদক্ষিণ করেছেন আরও দুবার। ফ্লাইটে থাকা ১৬৪ যাত্রী ও সাত ক্রু’র জীবন ছিল তার হাতে। ঠান্ডা মাথায় সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে অর্জিত অভিজ্ঞতা, দক্ষতা ও কৌশল কাজে লাগিয়ে নিরাপদে কক্সবাজারের ফ্লাইট নামিয়েছেন চট্টগ্রাম শাহ আমানত বিমানবন্দরে।

১৭১ আরোহীর প্রাণ বাঁচানো এই মহানায়কের নাম এখন সবার মুখে মুখে। তিনি ইউএস-বাংলার বিএস-১৪১ ফ্লাইটের পাইলট ক্যাপ্টেন জাকারিয়া। প্রচণ্ড মানসিক চাপের মুখে নিজেকে সংযত রেখে কীভাবে ৭৩৭ মডেলের বোয়িং বিমানটি নিরাপদে অবতরণ করালেন, সে বিষয়ে জাগো নিউজের সঙ্গে কথা হয় ইতোমধ্যে বীর হিসেবে আখ্যা পাওয়া পাইলট জাকারিয়ার।

ল্যান্ডিং করতে ব্যর্থ হলেন? বার বার চেষ্টা করলেন। সে সময়ের অভিজ্ঞতা কেমন ছিল?

জাকারিয়া বলেন, ‘অভিজ্ঞতা বলতে, এটা একটা ইমার্জেন্সি সময় ছিল। ইমার্জেন্সি পরিস্থিতি মোকাবেলায় আমাদের সবচেয়ে বেশি ট্রেইনড করানো হয়। যেভাবে ট্রেনিং দেয়া হয়েছিল, ঠিক সেভাবেই অ্যাকশনটা নিয়েছি।’

jagonews

তিনি বলেন, ‘প্রশিক্ষণ থাকলেও জরুরি অবস্থা মোকাবেলায় অবশ্যই পাইলটের কিছু কৌশল থাকে। আমি চেষ্টা করেছি, যতখানি নিরাপদ থাকা সম্ভব এবং কোনো ধরনের ক্ষতি যাতে না হয়। সবার নিরাপত্তার কথা চিন্তা করেই ল্যান্ডিংয়ের চেষ্টা করেছি।’

বাড়তি কোনো কৌশল অবলম্বন করেছিলেন?

জাকারিয়া বলেন, ‘ল্যান্ডিং করতে না পারলে কৌশল হচ্ছে ফুয়েল (তেল) কমাতে হবে। এ সময় ফুয়েল যত কমানো যায় ততই সেফ। ল্যান্ডিংয়ের সময় যদি আগুন লাগে, ফুয়েল না পেলে আগুনের তীব্রতা থাকবে না। এছাড়া এয়ারক্রাফট যতো হালকা থাকবে ঘর্ষণও কম হবে। তাই তেল কমানোর চেষ্টা করেছিলাম।’

বার বার ব্যর্থ হয়ে চট্টগ্রামে যখন সর্বশেষ ল্যান্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নিলেন তখন মাথায় কী চিন্তা ছিল?

বলেন, ‘আমার প্রধান দায়িত্ব ছিল, যাত্রীদের কীভাবে সুস্থ ও নিরাপদে নিচে নামানো যায়। সেটাই করেছি। মাথায় যদি অন্য কিছু আনি তাহলে এদিকে মনোযোগ দিতে পারতাম না।’

ল্যান্ডিংয়ের আগে কেবিনের অবস্থা কী ছিল? কিছু জানতেন?

jagonews

ক্যাপ্টেইন বলেন, ‘আমি সবসময়ই কেবিনের ভেতরের সঙ্গে ইন্টারকানেক্টেড থাকি। ভেতরের অবস্থা জেনেছি। তবে নিরাপদে ল্যান্ড করার পর যাত্রীরা যাওয়ার সময় আমাকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন। তারা অনেক খুশি।’

প্রসঙ্গত, বুধবার দুপুরে কক্সবাজারে অবতরণ করতে না পেরে চট্টগ্রামের শাহ্ আমানত বিমানবন্দরে জরুরি অবতরণ করে ইউএস-বাংলার ফ্লাইটটি। এতে ১১ শিশুসহ (ইনফ্যান্ট) ১৬৪ যাত্রী ও সাত ক্রু ছিলেন। ইউএস-বাংলার জরুরি অবতরণের পর চট্টগ্রামের শাহ্ আমানত বিমানবন্দরে ফ্লাইট উঠানামা বন্ধ রাখা হয়।

কক্সবাজার নিউজ সিবিএন’এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ সংবাদ

ড. কামালের আসল চেহারা উন্মোচিত: সজীব ওয়াজেদ জয়

গণমাধ্যমকর্মী আইন : যেসব সুবিধা পাবেন সাংবাদিকরা

৮ হাজার রোহিঙ্গাকে ‘স্বীকার’ করেছে মিয়ানমার

মালুমঘাট ডুলাহাজারা খুটাখালীতে পথসভায় ইলিয়াছ এমপি

চকরিয়ায় পুজা মন্ডপ পরির্দশনে জেলা প্রশাসক ও উপজেলা চেয়ারম্যান

রাষ্ট্র পরিবর্তনে আমার দু-কথা

বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে এবার তথ্য চুরি

চকরিয়ায় অণ্ডকোষ চেপে কেড়ে নিল ছাত্রের প্রাণ

২ লাখ ৬ হাজার ৯২০ পিস বার্মিজ সিগারেটসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক

কুতুবদিয়ায় অধিকাংশ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার নেই

সেন্টমার্টিন দ্বীপে পর্যটন সীমিত করণ প্রত্যাহারের দাবীতে প্রধানমন্ত্রীর কাছে টুয়াকের স্মারকলিপি 

১১ দল নিয়ে জেলা ফুটবল লীগ শুরু হচ্ছে ২৬ অক্টোবর

রামুতে দু’জন আটক : ২৫ হাজার টাকা জরিমানা আদায়

উন্নয়নশীল দেশ গঠনে আওয়ামী লীগের বিকল্প নেই- কমল এমপি

কক্সবাজারের পেকুয়ায় ‘গায়েবী মামলা’য় ১৬ বিএনপি নেতা-কর্মী আসামি

প্রথম আলোর বিতর্ক উৎসব ২৯ অক্টোবর 

চেয়ারম্যানের উদ্যোগে ৫’শ শিক্ষার্থী পেল একবেলা খাবার

সনাতন ধর্মালম্বীদের পুলিশ সুপার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন

কক্সবাজার-৪ আসনে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী মাওলানা মোহাম্মদ শোয়াইব

পেকুয়ায় ছিনতাইয়ের শিকার চীনা নাগরিক