cbn  
মোঃ নিজাম উদ্দিন, চকরিয়া:
সড়ক দুর্ঘটনা প্রতিরোধে সারা দেশে ধরপাকড়াও চলছে ফিটনেস বিহীন যানবাহন। অযান্ত্রিক যানবাহনের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রয়েছে মহাসড়কে।
সরকারী কঠোর নির্দেশনায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সহায়তায় পরিবর্তন ঘটছে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের চকরিয়ার যানবাহনগুলোতে। ছোটবড় যানবাহনে ফিরছে শৃঙ্খলা। যদিও অভিযানকালে দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে সাধারণ যাত্রীদের। পুলিশি আটকের ভয়ে চালকরা যাত্রীবাহী অনেক যানবাহন মহাসড়কে চলাচল বন্ধ রেখেছে। এসময় প্রচলিত যানবাহনের বিরুদ্ধে দ্বিগুণ ভাড়া আদায়ের অভিযোগ করেন ভুক্তভোগী যাত্রীরা।
সম্প্রতি চকরিয়া মহাসড়কে যাত্রীদের সহজলভ্য যানবাহন হিউম্যান হুলার জিটু, ম্যাজিক, ছাড়পোকা নামের পরিবহন। এসব গাড়ির সকল কাগজপত্র ঠিকঠাক রয়েছে বলে দাবী করেন মালিকরা। কিন্তু পুলিশ বলেন এদের কাগজপত্র তল্লাসি করে দেখা যায়, যাত্রীবাহী এসব গাড়ির অনেকের অনুমোদন রয়েছে মালবাহী হিসেবে। আবার অনেকের মহাসড়কে চলাচলের কোনপ্রকার অনুমোদন নাই। এছাড়া ড্রাইভিং লাইসেন্স বিহীন শিশু-কিশোরদের ব্যবহার হচ্ছে চালক ও হেলফার হিসেবে।
এদিকে গতকাল ডুলাহাজারাতে মহাসড়ক কিনারায় সারিবদ্ধভাবে অর্ধ ডজনাধিক যাত্রীবাহী হিউম্যান হুলার জিটু গাড়ি উপরের ছাউনি ছাড়া দেখা যায়। মালুমঘাট হাইওয়ে পুলিশের ফাঁড়ির টিএসআই আবদুল হাকিমের কাছ থেকে এ ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এসব গাড়ির মালবাহী হিসেবে চলাচলের অনুমোদন থাকার শর্তেও মহাসড়কে যাত্রী বহন করে আসছিল। আমরা এসব গাড়ির মালিকদের সতর্ক করার পর উপরের ছাউনি কেটে তাদের লাইসেন্স অনুযায়ী মালবাহী পরিবহনে রুপান্তর করেছে।
মালুমঘাট হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পুলিশ পরিদর্শক আলমগীর হোসেন বলেন, মহাসড়কে দুর্ঘটনা প্রতিরোধে সকল প্রকার অভিযান অব্যাহত থাকবে। লাইসেন্স ও ফিটনেস বিহীন যানবাহন কিছুতেই ছাড় দেওয়া হচ্ছে না। তিনি আরো বলেন, মহাসড়কে চলাচলরত যানবাহনগুলোকে গতিসীমা নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে। তার ব্যতিক্রম চালকদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।
চিরিঙ্গা হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ নুরে আলম, ক্রমবর্ধমান অভিযানে চকরিয়ার মহাসড়কে যানবাহনের মধ্যে শৃংখলা ফিরে আসার কথা জনান।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •