কহ না পিয়ার হে..!


আলমগীর মাহমুদ


শহিদুল হক বাবুল,নজরুল ইসলাম বাদল আমার কলেজ জীবনের মল্লযোদ্ধা। গরিমার সাম্রাজ্যে সম্রাট বনতে একে অন্যকে কুপোকাত করতাম। বাদল কোর্টের সেরেস্তাদার। বাবুল আই,সি,ডি,ডি আর বি চকরিয়ায় গবেষণা কারবারি।

বাবুল সুইজারল্যান্ডে দুইবার চীনে একবার আন্তজার্তিক সেমিনারে নির্বাচিত হয়ে সে দেশে নিজ রচিত প্রবন্ধ পাঠের সৌভাগ্যবান বনে। আজও কক্সবাজার কলেজের গরিমাধারীর শ্রেষ্ঠত্বধারীর কম্পিটিশনটা আমাদের মধ্যে রয়েই গেছে। আগে হতো ক্লাসে বইয়ের পড়ায়। এখন চিন্তায়,ভাবে, অনলাইনে। খোঁচাই, আর ক্ষেপাই।

আজ প্রকৃতির প্রকৃতি নিয়ে ক’টি ছবি অনলাইনে দিতেই বাবুলের তলবি ডাক “চকরিয়ার ছবিও দেখছি, চকরিয়া আসলা কবে? ছবি কি ধারের!!

জওয়াবে কই.. আমি আমার হাত,চোখ,হৃদয়ের আবরণ বানিয়ে রেখেছি একঝাঁক ছাত্রছাত্রী / এলাকায় বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ুয়াদের। যারা ডেভেলপ করেছে নুতন নুতন চিন্তার,সৃষ্টিশীলতার। কক্সবাজারের মাটিতে থাকতে ছিল না যাহ ।
এসব মেধাবীরা এক একটা মানুষ এক একটা পৃথিবী। একেকটা ছুটি একেকটা দৃষ্টিদান, গ্রহন, অনুষ্ঠান ভাবায় আমারে।এযুগের ভাবুকদের ভাবনা “বিমোহিত করবে তোমাকে তুমিও যে মেধাবী। তবে আগ বাড়িয়ে এদের আবিষ্কার করে না নিলে দেখা, বুঝা,অনুভবে আসা, আনা কঠিন।এরা যে জোনাকি পোকার বেশে।

এমন নান্দনিক ভাবধারায় ধনীদের ভাবখানা আমার বিভিন্ন ক্লাসের ছাত্রছাত্রীদেরকে তাঁদের মূখে শুনাই।ওখানে তারাঁ পৌঁছাল কোন চিন্তায়, তাঁদের মাধ্যমে বিলাই।

যে কাজটার জন্য শিষ্যদের “অমরণী” গাছ হয়েই বেঁচে আছি। নিন্দুকেরা আয়ারে ঝাল মিঠায় ” ব্যক্তিত্বহীন” ছাত্রছাত্রীর সাথে শুধু কথা বলে, প্রপাগান্ডায়।

তাঁরা ভাবে পরীক্ষা পাশের তাবিজই বিদ্যা,ভাবনা চিন্তা ট্রাসফার,। যাহ পরীক্ষায় আসে না তাহ বিদ্যা নয়,পরীক্ষা মন্ত্র শিখিয়ে সীলেবাস শেষ করাই শিক্ষকের কর্ম।আমি তাঁদের বুঝাতেও চন্দ্রবিন্দুর ব্যবহারে করেছি।তারাই যে আমারে জ্বালিয়ে তোলে!!

এমন এক ‘চোখ’ এবার গিয়েছিল চকরিয়া। কাঁকারা ছিল এবার ঈদে তাঁর দর্শনের স্থান।এইসব মানুষকে আমি আমার শিক্ষক হিসেবে নিয়েছি।

তাঁর কাছেই পয়গাম “এই আছে।” সে আমারে ম্যানশন করেহে। শীঘ্রই তোমাকে নিয়ে ঘুরে আসবো চকরিয়া কাঁকারা। দেখে আসবো আদম শাহের আমলে নির্মিত মসজিদ।

এই ছেলেটি যখন ঐ এলাকায় যায় তাঁর আরেক বন্ধু সিলেটে সম্ভবত ভ্রমনে। তাদের অনলাইন কথনে অচিন কক্সবাজারকে কি নন্দন কথনে সুড়সুড়িতে লোলুপতা বাড়িয়েছে সবাইর, দেইখ…

কলাম লিখতে ভুল করা যখন প্রগাঢ়। তখন সবাইর ভাবনা এই আলমগীর প্রফেসার? সবাই সমালোচনা করেছে।এই নুতন প্রজন্ম অনলাইনে আগিয়ে ম্যাসেঞ্জারে মেসেঞ্জারে শিখিয়ে যায় ভুল না করার মন্ত্র “কী বোর্ডের ‘ব্যবহার ।কখনও পরিচয় ছিল না আমাদের।সেদিন ”মহাভারত ” উপহার করে ভালবাসার বন্ধন বিনাসূতায় বেঁধে যায়।

মিসুয়েল ট্রাষ্ট ব্যাংকের জামাল উদ্দিন,এই salman nadir আমারে ভাবাইয়াছে “মানুষ যদি মানুষের ভালবাসা পায়, সে অসাধ্য সাধনের ক্ষমতা অর্জন করে” অসাধ্য সাধনে..একবার নজরে ছে নজরে মিলে “কহ নাঃ পিয়ার হে…!


লেখক : বিভাগীয় প্রধান।সমাজবিজ্ঞান বিভাগ। উখিয়া কলেজ। [email protected]

কক্সবাজার নিউজ সিবিএন’এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ সংবাদ

অপরাধ দমনে চট্টগ্রামে আইপি ক্যামেরা বসাচ্ছে সিএমপি পুলিশ 

বিশ্ব ইজতেমা স্থগিত হয়নি: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়

রামুতে ৩৮ হাজার ইয়াবার ট্রাক সহ আটক ২

খুরুস্কুল বাসীকে কাঁদিয়ে চির বিদায় নিল মেধাবী ছাত্র মিশুক

টেকনাফে অভিযানেও থামছে না ৩ ভাইয়ের ইয়াবা বানিজ্য

পেকুয়ায় চাঁদার দাবীতে দোকান সংস্কারে বাধা ও ভাংচুর

গণমাধ্যম ও সাংবাদিকদের সহযোগিতা চেয়েছেন মেয়র মুজিবুর রহমান

চকরিয়ায় সুরাজপুর আলোকশিখা পাঠাগার’র চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা পুরস্কার বিতরণ ও গুণীশিক্ষক সংবর্ধনা

কক্সবাজার ক্রীড়া লেখক সমিতির কমিটি গঠিত

সাংবাদিক বশিরের মাতার জানাযা সম্পন্ন বিভিন্নমহলের শোক

বিজিবি ক্যাম্প এলাকায় সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ডের প্রামান্য চিত্র প্রদর্শন

টেকনাফ সাংবাদিক ফোরাম’র আহবায়ক কমিটি গঠিত

কক্সবাজার-৩ আসনে বিএনপির মনোনয়নপত্র জমা দিলেন অধ্যাপক আজিজ

“দুখরে রোগে ও ভয় পায়!”

নিরাপদ জীবনে ফিরতে চায় ইয়াবা ব্যবসায়ীরা

রোববার থেকে বিএনপির সাক্ষাৎকার শুরু

মিয়ানমারে শতাধিক রোহিঙ্গা গ্রেফতার

বিএনপি নেতা আবু সুফিয়ান (চট্টগ্রাম-৮) আসনে মনোনয়নপত্র নিলেন

কক্সবাজার-২ আসনে কারাবন্দী আবুবকরের পক্ষে মনোনয়ন ফরম জমা

ঈদগাঁওতে ইউনিক পরিবহন ও টমটমের মুখোমুখি সংঘর্ষে আহত ৪