উসমান গণি ইলি, ঈদগাঁও:
কক্সবাজার সদরের উপজেলা ঈদগাঁও ইউনিয়নের আলমাছিয়া সড়কটির বেহাল দশা। সংস্কারের অভাবে দীর্ঘদিনের সড়কটি বর্তমানে মরণ ফাঁদে পরিণত হয়ে পড়েছে।
এই সড়কের ইট-কংকর উঠে গেছে। সৃষ্টি হয়েছে বড় বড় গর্ত। খানাখন্দকের কারণে খালি পায়েও হাঁটাচলা দায় পড়েছে। তাতে ঘটছে ছোটখাট দুর্ঘটনা।
দীর্ঘকাল ধরে সংস্কারের কোন প্রকার উদ্যোগই দেখা নেই বলে চলে এই সড়কটি । দ্রুত সংস্কারের দাবী সচেতন মহলের।
ঈদগাঁও টু জালালাবাদ, পোকখালী, ইসলামাবাদ, চৌফলদন্ডি যেতে এই পথ ব্যবহার হয়।
এসব এলাকার অন্তত ১০ থেকে ২০ হাজার লোক এই সড়ক পথে দৈনিক আসা যাওয়া করে থাকে। ঈদগাঁও ফরিদ আহমদ কলেজ, আলমাছিয়া মাদরাসা, কক্সবাজার সরকারী কলেজ, রামু কলেজসব অনেক প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা এই পথ দিয়ে যাতায়াত করে।
দীর্ঘমাস ধরে ঈদগাঁও বাজারের দক্ষিন পার্শ্বস্থ ডিসি সড়কের দুপাশের গাইট ওয়াল করার পর থেকে এখনো পর্যন্ত সড়কটি পূর্ণভাবে সংস্কার করা হয়নি। যার কারনে, সড়কের দুই পাশের ব্যবসায়ীরা বহুকাল ধরে তাদের ব্যবসা বাণিজ্যিক নিয়ে মাথায় হাত দিয়েছে। অযোগ্য রাস্তার কারণে প্রত্যান্ত গ্রামাঞ্চলের লোকজন বাজারমুখী হচ্ছেনা।
ব্যবসায়ীরা জানান, দীর্ঘ সময়ের পরেও সড়কটি সংস্কার না হওয়ায় ব্যবসায়ীরা তাদের ব্যবসা বাণিজ্য নিয়ে দারুণ ভাবে বিপাকে পড়েছে। আবার অল্প বৃষ্টিতেই জন ও যানবাহন চলাচলে কষ্টকর হয়ে পড়ে। সংস্কার কাজ মাঝপথে থেমে থাকায় পথচারীসহ সাধারণ লোকজনের মাঝে চাপাক্ষোভ বেড়েই চলছে। পাশাপাশি যোগাযোগের আরেক বিকল্প সড়ক হিসেবে বর্তমানে ব্যবহৃত ঈদগাঁও আলমাছিয়া মাদ্রাসার পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া সড়কটিও মরন দশার কবলে পড়েছে। সড়ক জুড়েই ডজনাধিকেরও বেশি বড় বড় গর্তে সয়লাব হয়ে উঠেছে। সামান্য বৃষ্টিতে যত্রতত্র স্থানে গর্তে পানি জমে চলাফেরা অযোগ্য হয়ে পড়েছে। সে সাথে কদর্মাক্ত যেন চলাফেরায় কাল হয়ে পড়েছে। বেকায়দায় পড়েছে স্কুল-কলেজ ও মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরা। এমনকি বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্টানের ছাত্র-ছাত্রীরা নানা দূর্ভোগ আর দূর্গতি পেরিয়ে দৈনিক তাদের শিক্ষাঙ্গনে আসা যাওয়া করতে চোখে পড়ে।
বর্তমানে মাদ্রাসা সড়ক দিয়ে জন ও যান চলাচল অনেকটা বৃদ্ধি পেয়েছে। উক্ত সড়কটিতে গর্ত সৃষ্টির কারণে চলাফেরার অযোগ্য বললেই চলে। এদিকে জমে জন ও যান চলাচ সন্ধ্যাকালীন সময়ে যানবাহন চলাচল করতে গিয়ে যেকোন মুহুর্তে ছোট পরিবহন উল্টে অপ্রীতিকর দুর্ঘটনার আশংকাও প্রকাশ করেন চালকরা।
তবে ঈদগাঁও এলাকায় সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা খুবই অনুন্নত বলে জানান পবিস ঈদগাঁও অফিসের এজিএম প্রকৌশলী শ্যামল কুমার মল্লিক।এই সড়ক জুড়েই প্রায় অংশে ঝুকিঁপূর্ণ গর্ত। রক্ষা পেতে হলে সংস্কারের বিকল্প নেই। এই সড়কটি সংস্কারের সময়ের দাবী জানান এলাকাবাসী ও সচেতন মহলদের,শিক্ষার্থীরা।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •