হেলাল উদ্দিন, টেকনাফ :
টেকনাফে ইউনাইটেড স্টুডেন্ট ফোরামের ঈদ পূর্ণমিলনী অনুষ্ঠানে চবির ডীন ও হ্নীলা মঈন উদ্দিন মেমোরিয়াল কলেজের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ড.ফরিদ উদ্দিন আহামেদ বলেছেন, এক সময় সারাদেশে টেকনাফের সুনাম ছিল। দেশের বিভিন্ন স্থানে টেকনাফের মানুষের কদর ছিল। এখন টেকনাফবাসী পরিচয় দিলে হয়রানির সম্মুখীন হতে হয়। আমাদের নিশ্চয় এই অপবাদ থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। এই ক্ষেত্রে অভিভাবকসহ সবাইকে সোচ্চার হতে হবে। কোটি কোটি টাকার বিনিময়ে চাকচিক্যময় ঘর-বাড়ি না করে ছেলে-মেয়েরা স্বাভাবিক নিয়মে স্কুল-মাদ্রাসায় যাচ্ছে কিনা তা অভিভাবকদের খতিয়ে দেখতে হবে। অসময়ে মোটর বাইক ও কার-মাইক্রো নিয়ে রাজকীয় চলাফেরা নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। মাদক চোরাকারবারী ও মাদকাসক্তদের নিকট হতে আপনার আমার ছেলে-মেয়েকে দূরে রাখতে হবে। আমাদের ছেলে-মেয়েদের সুশিক্ষায় শিক্ষিত করে গড়ে তুলতে হবে। আমরা সমন্বিতভাবে মাদককে না বললেই টেকনাফের হারানো গৌরব ফিরে আসবে আর টেকনাফবাসীকে হয়রানির সম্মুখীন হতে হবেনা। সুতরাং টেকনাফের হারানো ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনতে অভিভাবক,ছাত্র-যুব সমাজ, রাজনৈতিক নেতৃত্ব ও জনপ্রতিনিধিসহ সর্বস্তরের জনসাধারণকে আন্তরিকভাবে শিক্ষার উন্নয়নে এগিয়ে আসার আহবান জানান।
জানা যায়, ২৩ আগষ্ট সকাল ১০টায় টেকনাফ সদর ইউপির নতুন পল্লান পাড়া ইউনাইটেড স্টুডেন্টস ফোরামের ঈদ পূর্ণমিলনী ও আলোচনা সভা ছুফিয়া নুরিয়া দাখিল মাদ্রাসা মাঠে ৪ নং ওয়ার্ড মেম্বার আজিম উল্লাহর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। ফোরামের সদস্য মুফিজ উদ্দিনের পরিচালনায় উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চবির সমাজ বিজ্ঞান বিভাগের ডীন ও হ্নীলা মঈন উদ্দিন মেমোরিয়াল কলেজের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ড.ফরিদ উদ্দিন আহামেদ। প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কুতুপালং শরণার্থী ক্যাম্প ইনচার্জ রেজাউল করিম। প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন টেকনাফ সদর ইউপি চেয়ারম্যান শাহজাহান মিয়া। বক্তব্য রাখেন মোঃ রিদুওয়ানুল হক, অধ্যাপক আবু তাহের, প্রভাষক কায়সার রশিদ, টেকনাফ সাংবাদিক ইউনিটির সভাপতি সাইফুল ইসলাম সাইফী, ৩নং ওয়ার্ড মেম্বার শাহ আলম, ৭নং ওয়ার্ড মেম্বার ছৈয়দুল ইসলাম, ব্যাংকার নুরুল ইসলাম, জহির উদ্দিন, আলী আহমদ, মৌঃ ফরিদুল আলম, মোঃ আলম, মোঃ ফারুক, (এনডিসিএস) সভাপতি শফিকুল ইসলাম বকুল, সংগঠনের সভাপতি রবিজ আহমদ রবি, সাধারণ সম্পাদক নুরুল আবছার, সদস্য বাহা উদ্দিন প্রমুখ।
প্রধান অতিথি বর্তমানে টেকনাফে মাদকের ভয়াবহ পরিস্থিতিতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের অনুপস্থিতি এবং শিক্ষার্থীদের বেপরোয়া চলাফেলা নিয়ন্ত্রণ করতেই অভিভাবকদের সচেতন হওয়ার আহবান জানিয়ে উপরোক্ত কথা বলেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •