শিলখালী উচ্চ বিদ্যালয়ের দুই প্রবীণ শিক্ষক বিদ্যালয়ের রত্ন

পেকুয়া সংবাদদাতা :
কক্সবাজার জেলার ঐতিহ্যবাহী শিলখালী উচ্চ বিদ্যালয়ের দুই প্রবীণ শিক্ষক বিদ্যালয়ের রত্ন। তার হলেন: আবদুল মালেক ও আবদুল মোনাফ। তারা দুইজনেই বিদ্যালয়ের যোগদানের পর থেকে অত্যন্ত দক্ষতা ও সুনামের সাথে বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করে আসছিলেন। তাদের যোগ্যতা, দক্ষতা বিবেচনা করে শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার স্বার্থে তাদেরকে বিদ্যালয়ে অনারারী শিক্ষক হিসেবে রাখা হয়। তাদের ত্যাগ, তিতীক্ষা ও পরিশ্রমের কারনে যুগ যুগ ধরে বিদ্যালয়ের সুনাম অক্ষুন্ন রাখতে সমর্থ হয়। বিদ্যালয়ে তাদের অবদানের কারনে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা অনেকে চিকিৎসক, জজ, ম্যাজিষ্ট্রেটসহ সরকারী গুরুত্বপূর্ন পদে অধিষ্টিত রয়েছে।

তথ্য সুত্রে জানা যায়, শিক্ষামন্ত্রনালয়ের প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী গত ১২ আগস্ট বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভা আহবান করা হয়। সভায় ৬০ এর উর্ধে শিক্ষকদের আগামী ১ সেপ্টেম্বর থেকে বিদ্যালয় থেকে অব্যাহতি দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। এ ব্যাপারে ওই দুইজন শিক্ষককে মৌখিকভাবে বলার জন্য প্রধান শিক্ষক মহোদয়কে দায়িত্ব অপর্ন করা হয়। এর প্রেক্ষিতে প্রধান শিক্ষক মহোদয় ওই দুই জন শিক্ষককে মৌখিকভাবে অবহিত করেন। এরপর থেকে ওই দুই জন শিক্ষক বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত ছিলেন। তাদের অব্যাহতির বিষয়টি শিক্ষার্থীরা জানতে পেরে তাদের মধ্যে বিরুপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়। ১৬ আগস্ট শিক্ষার্থীরা ওই দুই জন শিক্ষক বহাল রাখার দাবীতে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে। তারা বিদ্যালয়ের বারান্দা ও রাস্তায় অবস্থান গ্রহন করে। খবর পেয়ে পেকুয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাহাবুব উল করিম ও উপজেলার একাডেমিক সুপারভাইজার উলফাত জাহান চৌধুরী বিদ্যালয়ে উপস্থিত হন। তারা শিক্ষার্থীদের শ্রেনীকক্ষে ফিরিয়ে নেন। তাদের দাবীর প্রতি একমত পোষন করেন। এ দিকে তাদের অব্যাহতির বিষয়টি জানতে পেরে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী,অভিভাবক ও এলাকাবাসীর মধ্যে ব্যাপক প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে। তারা জানান, সামনে জেএসসি ও এস,এস,সি পরীক্ষা। এ মুহুর্তে পরিচালনা কমিটির এ ধরনের সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত হয়নি।

বিদ্যালয়ের একজন অভিভাবক সাংবাদিকদের জানান, আসলে আবদুল মালেক ও আবদুল মোনাফ স্যার ভাল শিক্ষক ছিলেন। সামনের দুটি পরীক্ষাকে সামনে রেখে এ ধরনের সিদ্ধান্ত নেওয়াটা ঠিক হয়নি। আগামী বছরের শুরুতে সিদ্ধান্ত নেওয়াটা উচিত ছিল। তিনি আরো জানান, ঈদুল আজহার ছুটির পর বিদ্যালয় খুললে হয়ত শিক্ষার্থীরা ক্লাস বর্জনসহ নানা ধরনের কর্মসুচী দিতে পারে। এতে করে শিক্ষার্থীদের পড়ালেখার দারুন ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এ ব্যাপারে প্রধান শিক্ষক মো: ইব্রাহীম জানায়, আসলে পত্রিকায় ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিষয়টি ভিন্নভাবে প্রকাশ করা হয়েছে। বিদ্যালয়ের উদ্ভুত পরিস্থিতির ব্যাপারে আমি দায়ী নই। বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি আসাদুজ্জামান চৌধুরী জানান, শিক্ষার্থীদের দাবীর প্রতি আমি একমত পোষন করছি। তবে ওই দিন বিদ্যালয়ে এ ধরনের কান্ড ঘটানোর ক্ষেত্রে কারা দায়ী তা খতিয়ে দেখার প্রয়োজন রয়েছে।

cbn
কক্সবাজার নিউজ সিবিএন’এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ সংবাদ

কক্সবাজারে ইয়াবা কারবারিদের আত্মসমর্পণ জানুয়ারির শেষে: মন্ত্রী

ঈদগাঁও রিপোর্টার্স সোসাইটির নতুন কমিটি

দলের করণীয় বললেন মওদুদ

সরকারের উন্নয়নের বার্তা ছড়িয়ে দিতে যোগ্য কান্ডারী কছির

উন্নয়ন ও জনসেবায় চকরিয়া-পেকুয়াবাসিকে আস্থার প্রতিদান দিব- জাফর আলম এমপি

বিক্ষুব্ধ বাংলাদেশি শ্রমিকদের আক্রমণের শিকার কুয়েত বাংলাদেশ দূতাবাসে

হুইল চেয়ারে মুহিত, পাশে নেই সুসময়ের বন্ধুরা

ভারত থেকে পালিয়ে আসা ১৩শ’ রোহিঙ্গা এখন বাংলাদেশে

উপজেলা নির্বাচনে ‘স্বতন্ত্রভাবে’ অংশ নেবে বিএনপি

ভাইস চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী ছাত্রলীগ নেতা হিমুর ব্যাপক গনসংযোগ

চট্টগ্রামে ৩টি হাইটেক পার্ক হচ্ছে

সংরক্ষিত আসনে এমপি চান মহেশখালীর মেয়ে প্রভাষক রুবি

ঈদগাঁওতে নৌকার চেয়ারম্যান মনোনয়ন প্রত্যাশী রাশেদের গণসংযোগ

অতিথি পাখির কলকাকলিতে মুখরিত বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্ক

কক্সবাজার সদর থানা পুলিশের অভিযানে গ্রেফতার ১১

গণিত ছাড়া জীবনই অচল : জেলা প্রশাসক

উখিয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ১, চালক আটক

শহর কৃষক লীগের সভাপতির মামলায় ওয়ার্ড সভাপতি গ্রেফতার

২৭০০ ইউনিয়নে সংযোগ তৈরি, বিনামূল্যে ইন্টারনেট ৩ মাস

লাইনে দাঁড়িয়ে বার্গার কিনলেন বিল গেটস!