ঈদের পরে ফের শুরু হচ্ছে বঙ্গোপসাগরে মাছধরা : ঘাটে ঘাটে চলছে প্রস্তুতি

আহমদ গিয়াস, কক্সবাজার :
বর্ষাকালে বিরূপ আবহাওয়ার কারণে কক্সবাজারের গভীর বঙ্গোপসাগরে গত প্রায় দুই মাস মাছধরা বন্ধ থাকার পর ফের মাছধরা শুরু হচ্ছে আসছে ঈদুল আযহার পর। ঈদের পরে সাগরে গিয়ে পুরোদমে মাছধরা শুরু করতে জেলে-বহদ্দাররা ইতোমধ্যে প্রস্তুতিও শুরু করেছে। জেলে-বহদ্দারদের প্রস্তুতিতে জেলা শহর ও আশেপাশের মৎস্য অবতরণকেন্দ্র ও ঘাটগুলো সরগরম রয়েছে।
সরেজমিন খোঁজ নিয়ে জানা গেছে,
ট্রলার মালিক সূত্রে জানা গেছে, আষাঢ়-শ্রাবণ এই দুই মাস বর্ষাকালে কক্সবাজার বঙ্গোপসাগরের আবহাওয়া থাকে বিরোধপূর্ণ। এই সময়ে সাগরে মাছ ধরা ঝুঁকিপূর্ণ। এছাড়া এসময় মাছ ধরা পড়েও অপেক্ষাকৃত কম। তাই বেশিরভাগ ইলিশ জেলে এই দুই মাস সাগরে মাছ ধরে না। তবে বিহিন্দি জালের ট্রলারগুলো আবহাওয়ার অবস্থা বুঝে সাগর উপকূলে ‘পাঁচকাড়া’ মাছ ধরে। বিহিন্দি জালের ট্রলারগুলো দিনে গিয়ে দিনেই ফিরে আসে। এসব ট্রলারে ছোট আকারের নানা প্রজাতির সুস্বাদু মাছ ধরা পড়ে। এরমধ্যে তাইল্যা, ঘুইজ্জা, পোয়া, রূপচান্দা, ছুরি, লইট্টা, বরা, নাইল্যা, পুটি, ফাইস্যা, বাটা, অলুয়া মাছ, চিংড়িসহ আরো নানা প্রজাতির মাছ রয়েছে। বর্তমানে কক্সবাজার শহর থেকে উখিয়ার পাটুয়ারটেক পর্যন্ত অঞ্চলের উপকূলবর্তী সাগরে বিহিন্দি জালের বোটে ব্যাপকভাবে এসব ‘পাঁচকাড়া’মাছ ধরা পড়ছে।
কক্সবাজার শহরের প্রধান মৎস্য অবতরণ কেন্দ্র ফিশারীঘাটের মৎস্য ব্যবসায়ী জুলফিকার আলী জানান- বর্তমানে কক্সবাজার শহর থেকে পাটুয়ারটেক ও টেকনাফের উপকূলবর্তী সাগরে প্রচুর পরিমাণ ‘পাঁচকাড়া’ মাছ ধরা পড়ছে। যারমধ্যে উল্লেখযোগ্য হল বাটা ও লইট্টা মাছ। এরফলে বাজারে সামুদ্রিক মাছের সহজলভ্যতা সৃষ্টি হয়েছে। তবে গত দুই মাস ধরে সাগরে কোন ইলিশ ধরা পড়ছে না বলে জানান তিনি।
তিনি জানান- প্রতিকূল আবহাওয়ার কারণে গভীর সাগরে এখন ইলিশ ধরা বন্ধ থাকায় জেলে ও বোট মালিকরা বিহিন্দি জালের বোট নিয়ে ‘পাঁচকাড়া’ মাছ ধরেই জীবিকা নির্বাহ করছে। বর্তমানে বঙ্গোপসাগর উপকূলে উৎসবমুখর পরিবেশে পাঁচকাড়া মাছ ধরা হচ্ছে। কক্সবাজার শহরতলীর দরিয়ানগর ঘাটের ককশিটের বোটগুলোও উপকূলে অন্যান্য ট্রলারের পাশাপাশি সাগরে জাল ফেলে মাছ ধরছে। আর প্রতিদিন সাগর থেকে মাছ ধরে মাত্র কয়েক ঘন্টা পরই কূলে ফিরছে।
কক্সবাজার জেলা ফিশিং বোট মালিক সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক মাস্টার মোস্তাক আহমদ জানান, বিরূপ আবহাওয়ার কারণে আষাঢ়-শ্রাবণ মাস বা বর্ষাকালে কক্সবাজারের গভীর বঙ্গোপসাগরে প্রায় দুই মাস ইলিশ ধরা বন্ধ থাকে। ফলে ট্রলার মালিক ও জেলেদের অধিকাংশই বেকার সময় কাটায়। অনেকেই বিহিন্দি জালের বোট নিয়ে সাগরে মাছ ধরে। তবে কক্সবাজারের প্রায় ৭ হাজার ট্রলারের মধ্যে আশি শতাংশই এখন পোতাশ্রয়ে রয়েছে এবং ঈদের পরে সাগরে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে।
সোমবার বিকালে শহরের দরিয়ানগর, কলাতলী ও কস্তুরাঘাটে গিয়ে দেখা যায়, সাগরে মাছ ধরতে যেতে এখন থেকেই প্রস্তুতি শুরু করেছে জেলে-বহদ্দাররা। এরমধ্যে কেউ জাল মেরামত করছে, কেউবা মেরামত করছে বোট কিংবা যন্ত্রাংশ। এনিয়ে ব্যবস্ত সময় পার করছেন তারা। তাদের আশা, ঈদের পরে অনুকূল আবহাওয়ায় সাগরে পুরোদমে মাছধরা শুরু করবেন তারা।

cbn
কক্সবাজার নিউজ সিবিএন’এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ সংবাদ

চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব সভাপতি কলিম সরওয়ারকে আমিরাতে সংবর্ধনা

রিহ্যাব শারজাহ মেলায় অংশ নিচ্ছে ৫০ কোম্পানি ও ১০ ব্যাংক

হোপ হসপিটালে পোড়া রোগীদের সার্জারি ক্যাম্প

লেমশীখালী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবু ইউসুফ আর নেই

রামু কলেজে উগ্রবাদ-সহিংসতা প্রতিরোধে বিতর্ক প্রতিযোগিতা ও ওরিয়েন্টেশন

আওয়ামী লীগের সঙ্গে সম্পর্ক নেই ওলামা লীগের

বিয়েতে সৌদি নারীদের পছন্দের শীর্ষে বাংলাদেশি পুরুষরা

চুরি যাওয়া মোবাইল লক করে দেওয়ার সেবা চালু করছে বিটিআরসি

মহেশখালীতে বসতি উচ্ছেদ করে কয়লাবিদ্যুৎ প্রকল্পের রাস্তা নির্মাণ, উৎকন্ঠা

ফেরিওয়ালা

‘ওয়ার্ল্ড হিজাব ডে’ পালিত হবে ১ ফেব্রুয়ারি

সাবেক ফুটবলার কায়সার হামিদ কারাগারে

লাগাতার হাট-বাজার বয়কটে চরম দূর্ভোগে বাঘাইছড়ির লাখো মানুষ

সাবমেরিন ক্যাবলের কনসোর্টিয়ামে যুক্ত হলো বাংলাদেশ

রোহিঙ্গাদের দেখতে কক্সবাজারে জাতিসংঘের বিশেষ দূত

৩৭তম বিসিএস নন-ক্যাডারের ফল ফেব্রুয়ারিতে

একটি ব্রীজের জন্য ১০ গ্রামের মানুষের সীমাহীন দূর্ভোগ

কঠিন সময় পার করছে রেলওয়ে

ওয়াইফাই জোন স্থাপনের নিমিত্তে কউক’র আলোচনা সভা

স্বল্পমূল্যে অস্ত্র পাবেন সাংবাদিকরা