অবশেষে জেল থেকে ছাড়া পেলেন হাসনাত করিম

ডেস্ক নিউজ:

দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর অবশেষে জেল থেকে ছাড়া পেলেন গুলশানে হলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গি হামলায় গ্রেফতার হওয়া হাসনাত রেজা করিম। বৃহস্পতিবার (৯ আগস্ট) বিকাল সাড়ে চারটার সময় গাজীপুরের কাশিমপুরের হাই সিকিউরিটি জেল থেকে মুক্তি পান ব্রিটেন ও বাংলাদেশের এই দ্বৈত নাগরিক। জেল থেকে বেরিয়ে আসার সময় সেখানে তার পরিবারের সদস্যরা উপস্থিত ছিল।

হাসনাতের কারামুক্তির বিষয়টি নিশ্চিত করে হাই সিকিউরিটি জেলার বিকাশ রায়হান বলেন, ‘হাসনাতকে অব্যাহতি দিয়ে আদালত থেকে যে নির্দেশনা এসেছে, তা যাচাই-বাছাই করার পর তাকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে।’

২০১৬ সালের ১ জুলাই গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে হামলার পরদিন থেকেই সন্দেহভাজন হিসেবে প্রথমে আটক ও পরবর্তীতে গ্রেফতার হয়ে কারাগারে ছিলেন তিনি। দুই বছর এক মাস ৯ দিনের মাথায় ঘরে ফিরলেন তিনি।

হাসনাত করিমের স্ত্রী শারমিনা করিম বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘আমরা খুশি। অবশেষে হাসনাত জেল থেকে মুক্তি পেয়েছে। আমাদের বিশ্বাস ছিল সে যেহেতু নির্দোষ, সেহেতু আজ হোক কাল হোক মুক্তি সে পাবেই। কিন্তু এই দুটি বছর আমাদের দুঃসহ জীবন পার করতে হয়েছে।’

গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গি হামলার দুই বছর পর গত ২৩ জুলাই হাসনাত করিমকে অব্যাহতি দিয়ে আদালতে অভিযোগপত্র দেয় এই মামলার তদন্ত সংস্থা কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিট- সিটিটিসি। ২৬ জুলাই ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম নুরুন্নাহার ইয়াসমিন চার্জশিটের নথিতে স্বাক্ষর করে সেটি চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেটেরের কাছে পাঠিয়ে দেন। সেখান থেকে চার্জশিট সন্ত্রাসবিরোধী বিশেষ ট্রাইব্যুনালে পাঠানো হয়। গত বুধবার (৮ আগস্ট) বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক মজিবুর রহমান চার্জশিট গ্রহণ করে হাসনাত করিমকে অব্যাহতির আদেশ এবং পলাতক দুই জঙ্গি মামুনুর রশিদ রিপন ও শরীফুল ইসলাম খালিদকে গ্রেফতারের জন্য পরোয়ানা জারি করেন। এর আগে ২০১৬ সালের ৫ অক্টোবার পুলিশের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে হাসনাতকে ৫৪ ধারার অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দিয়েছিল আদালত।

হাসনাত করিমনের পরিবার ও চার্জশিট থেকে পাওয়া তথ্যে জানা গেছে, ২০১৬ সালের ১ জুলাই ছিল হাসনাত করিমের মেয়ে শেফা করিমের ১৩তম জন্মদিন। মেয়ের জন্মদিন উপলক্ষে স্ত্রী শারমিনা করিম ও দুই সন্তানকে নিয়ে হাসনাত গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে রাতের খাবারের জন্য গিয়েছিলেন। রাত সাড়ে আটটার দিকে তারা ওই রেস্টুরেন্টে প্রবেশ করে খাবারের অর্ডার দিতে না দিতেই জঙ্গিরা সেখানে হামলা করে। রাতভর জঙ্গিদের হাতে জিম্মি ছিলেন তারা। পরদিন সকালে সেনা কমান্ডোদের অভিযান শুরুর আগ মুহূর্তে দেশি-বিদেশি আরও কয়েকজনের সঙ্গে বেরিয়ে আসেন হাসনাত করিম। এরপর প্রথমে পরিবারের অন্যান্য সদস্যসহ হাসনাতকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মিন্টো রোডের গোয়েন্দা কার্যালয়ে নেওয়া হয়।

দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর অবশেষে জেল থেকে ছাড়া পেলেন গুলশানে হলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গি হামলায় গ্রেফতার হওয়া হাসনাত রেজা করিম। বৃহস্পতিবার (৯ আগস্ট) বিকাল সাড়ে চারটার সময় গাজীপুরের কাশিমপুরের হাই সিকিউরিটি জেল থেকে মুক্তি পান বৃটেন ও বাংলাদেশের এই দ্বৈত নাগরিক। জেল থেকে বেড়িয়ে আসার সময় সেখানে তার পরিবারের সদস্যরা উপস্থিত ছিল। হাসনাতের কারামুক্তির বিষয়টি নিশ্চিত করে হাই সিকিউরিটি জেলার বিকাশ রায়হান বলেন, ‘হাসনাতকে অব্যাহতি দিয়ে আদালত থেকে যে নির্দেশনা এসেছে, তা যাচাই-বাছাই করার পর তাকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে।’

২০১৬ সালের ১ জুলাই গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে হামলার পরদিন থেকেই সন্দেহভাজন হিসেবে প্রথমে আটক ও পরবর্তীতে গ্রেফতার হয়ে কারাগারে ছিলেন তিনি। দুই বছর এক মাস ৯ দিনের মাথায় ঘরে ফিরলেন তিনি।

হাসনাত করিমের স্ত্রী শারমিনা করিম বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘আমরা খুশি। অবশেষে হাসনাত জেল থেকে মুক্তি পেয়েছে। আমাদের বিশ্বাস ছিল সে যেহেতু নির্দোষ, সেহেতু আজ হোক কাল হোক মুক্তি সে পাবেই। কিন্তু এই দুটি বছর আমাদের দুঃসহ জীবন পার করতে হয়েছে।’
গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গি হামলার দুই বছর পর গত ২৩ জুলাই হাসনাত করিমকে অব্যাহতি দিয়ে আদালতে অভিযোগপত্র দেয় এই মামলার তদন্ত সংস্থা কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিট- সিটিটিসি। ২৬ জুলাই ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম নুরুন্নাহার ইয়াসমিন চার্জশিটের নথিতে স্বাক্ষর করে সেটি চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেটেরের কাছে পাঠিয়ে দেন। সেখান থেকে চার্জশিট সন্ত্রাসবিরোধী বিশেষ ট্রাইব্যুনালে পাঠানো হয়। গত বুধবার (৮ আগস্ট) বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক মজিবুর রহমান চার্জশিট গ্রহণ করে হাসনাত করিমকে অব্যাহতির আদেশ এবং পলাতক দুই জঙ্গি মামুনুর রশিদ রিপন ও শরীফুল ইসলাম খালিদকে গ্রেফতারের জন্য পরোয়ানা জারি করেন। এর আগে ২০১৬ সালের ৫ অক্টোবার পুলিশের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে হাসনাতকে ৫৪ ধারার অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দিয়েছিল আদালত।

হাসনাত করিমনের পরিবার ও চার্জশিট থেকে পাওয়া তথ্যে জানা গেছে, ২০১৬ সালের ১ জুলাই ছিল হাসনাত করিমের মেয়ে শেফা করিমের ১৩তম জন্মদিন। মেয়ের জন্মদিন উপলক্ষে স্ত্রী শারমিনা করিম ও দুই সন্তানকে নিয়ে হাসনাত গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে রাতের খাবারের জন্য গিয়েছিলেন। রাত সাড়ে আটটার দিকে তারা ওই রেস্টুরেন্টে প্রবেশ করে খাবারের অর্ডার দিতে না দিতেই জঙ্গিরা সেখানে হামলা করে। রাতভর জঙ্গিদের হাতে জিম্মি ছিলেন তারা। পরদিন সকালে সেনা কমান্ডোদের অভিযান শুরুর আগ মুহূর্তে দেশি-বিদেশি আরও কয়েকজনের সঙ্গে বেরিয়ে আসেন হাসনাত করিম। এরপর প্রথমে পরিবারের অন্যান্য সদস্যসহ হাসনাতকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মিন্টো রোডের গোয়েন্দা কার্যালয়ে নেওয়া হয়।

সর্বশেষ সংবাদ

‘একটিবার নতুন জীবন ভিক্ষা দিন, ইয়াবামুক্ত সমাজ উপহার দেব’

অবশেষে ইয়াবা ডন শাহাজান আনসারির আত্মসমর্পণ

বামপন্থী থেকে ইসলামী ধারা: আল মাহমুদের অন্য জীবন

ইয়াবা ব্যবসায়ীদের নিস্তার হবে না হবে না হবে না- স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

নতুন দুই মামলায় কারাগারে যাবে আত্মসমর্পণকারীরা

জামায়াত ভাঙছে, তারপর কী?

কক্সবাজারে মালয়েশিয়া পাচারের সময় ১৭ রোহিঙ্গা আটক

বিশ্বের ২৭২৯টি দলকে হারিয়ে নাসার প্রতিযোগিতায় বিশ্বচ্যাম্পিয়ন শাবি

আত্মসমর্পণ করেছে ১০২ ইয়াবা ব্যবসায়ী

আত্মসমর্পণ অনুষ্ঠানে তালিকাভুক্ত ইয়াবা কারবারিরাও!

আত্মসমর্পণ করছে তালিকাভুক্ত ৩০ ইয়াবা গডফাদার

মঞ্চে আত্মসমর্পণকারী ইয়াবাকারবারিরা

৯ শর্তে আত্মসমর্পণ করছে ইয়াবা ব্যবসায়ীরা

শুরু হচ্ছে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের আত্মমসমর্পণ অনুষ্ঠান

জনপ্রিয় হয়ে উঠছে পার্চিং পদ্ধতি

ঈদগড়ের সবজি দামে কম, মানে ভাল

রক্তদানে তরুণদের এগিয়ে আসতে হবে

যে মঞ্চে আত্মসমর্পণ

লামার সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ইসমাইল আর নেই

আজ আত্মসমর্পণ করবে টেকনাফের ১০২ ইয়াবা ব্যবসায়ী