অবশেষে জেল থেকে ছাড়া পেলেন হাসনাত করিম

ডেস্ক নিউজ:

দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর অবশেষে জেল থেকে ছাড়া পেলেন গুলশানে হলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গি হামলায় গ্রেফতার হওয়া হাসনাত রেজা করিম। বৃহস্পতিবার (৯ আগস্ট) বিকাল সাড়ে চারটার সময় গাজীপুরের কাশিমপুরের হাই সিকিউরিটি জেল থেকে মুক্তি পান ব্রিটেন ও বাংলাদেশের এই দ্বৈত নাগরিক। জেল থেকে বেরিয়ে আসার সময় সেখানে তার পরিবারের সদস্যরা উপস্থিত ছিল।

হাসনাতের কারামুক্তির বিষয়টি নিশ্চিত করে হাই সিকিউরিটি জেলার বিকাশ রায়হান বলেন, ‘হাসনাতকে অব্যাহতি দিয়ে আদালত থেকে যে নির্দেশনা এসেছে, তা যাচাই-বাছাই করার পর তাকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে।’

২০১৬ সালের ১ জুলাই গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে হামলার পরদিন থেকেই সন্দেহভাজন হিসেবে প্রথমে আটক ও পরবর্তীতে গ্রেফতার হয়ে কারাগারে ছিলেন তিনি। দুই বছর এক মাস ৯ দিনের মাথায় ঘরে ফিরলেন তিনি।

হাসনাত করিমের স্ত্রী শারমিনা করিম বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘আমরা খুশি। অবশেষে হাসনাত জেল থেকে মুক্তি পেয়েছে। আমাদের বিশ্বাস ছিল সে যেহেতু নির্দোষ, সেহেতু আজ হোক কাল হোক মুক্তি সে পাবেই। কিন্তু এই দুটি বছর আমাদের দুঃসহ জীবন পার করতে হয়েছে।’

গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গি হামলার দুই বছর পর গত ২৩ জুলাই হাসনাত করিমকে অব্যাহতি দিয়ে আদালতে অভিযোগপত্র দেয় এই মামলার তদন্ত সংস্থা কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিট- সিটিটিসি। ২৬ জুলাই ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম নুরুন্নাহার ইয়াসমিন চার্জশিটের নথিতে স্বাক্ষর করে সেটি চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেটেরের কাছে পাঠিয়ে দেন। সেখান থেকে চার্জশিট সন্ত্রাসবিরোধী বিশেষ ট্রাইব্যুনালে পাঠানো হয়। গত বুধবার (৮ আগস্ট) বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক মজিবুর রহমান চার্জশিট গ্রহণ করে হাসনাত করিমকে অব্যাহতির আদেশ এবং পলাতক দুই জঙ্গি মামুনুর রশিদ রিপন ও শরীফুল ইসলাম খালিদকে গ্রেফতারের জন্য পরোয়ানা জারি করেন। এর আগে ২০১৬ সালের ৫ অক্টোবার পুলিশের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে হাসনাতকে ৫৪ ধারার অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দিয়েছিল আদালত।

হাসনাত করিমনের পরিবার ও চার্জশিট থেকে পাওয়া তথ্যে জানা গেছে, ২০১৬ সালের ১ জুলাই ছিল হাসনাত করিমের মেয়ে শেফা করিমের ১৩তম জন্মদিন। মেয়ের জন্মদিন উপলক্ষে স্ত্রী শারমিনা করিম ও দুই সন্তানকে নিয়ে হাসনাত গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে রাতের খাবারের জন্য গিয়েছিলেন। রাত সাড়ে আটটার দিকে তারা ওই রেস্টুরেন্টে প্রবেশ করে খাবারের অর্ডার দিতে না দিতেই জঙ্গিরা সেখানে হামলা করে। রাতভর জঙ্গিদের হাতে জিম্মি ছিলেন তারা। পরদিন সকালে সেনা কমান্ডোদের অভিযান শুরুর আগ মুহূর্তে দেশি-বিদেশি আরও কয়েকজনের সঙ্গে বেরিয়ে আসেন হাসনাত করিম। এরপর প্রথমে পরিবারের অন্যান্য সদস্যসহ হাসনাতকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মিন্টো রোডের গোয়েন্দা কার্যালয়ে নেওয়া হয়।

দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর অবশেষে জেল থেকে ছাড়া পেলেন গুলশানে হলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গি হামলায় গ্রেফতার হওয়া হাসনাত রেজা করিম। বৃহস্পতিবার (৯ আগস্ট) বিকাল সাড়ে চারটার সময় গাজীপুরের কাশিমপুরের হাই সিকিউরিটি জেল থেকে মুক্তি পান বৃটেন ও বাংলাদেশের এই দ্বৈত নাগরিক। জেল থেকে বেড়িয়ে আসার সময় সেখানে তার পরিবারের সদস্যরা উপস্থিত ছিল। হাসনাতের কারামুক্তির বিষয়টি নিশ্চিত করে হাই সিকিউরিটি জেলার বিকাশ রায়হান বলেন, ‘হাসনাতকে অব্যাহতি দিয়ে আদালত থেকে যে নির্দেশনা এসেছে, তা যাচাই-বাছাই করার পর তাকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে।’

২০১৬ সালের ১ জুলাই গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে হামলার পরদিন থেকেই সন্দেহভাজন হিসেবে প্রথমে আটক ও পরবর্তীতে গ্রেফতার হয়ে কারাগারে ছিলেন তিনি। দুই বছর এক মাস ৯ দিনের মাথায় ঘরে ফিরলেন তিনি।

হাসনাত করিমের স্ত্রী শারমিনা করিম বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘আমরা খুশি। অবশেষে হাসনাত জেল থেকে মুক্তি পেয়েছে। আমাদের বিশ্বাস ছিল সে যেহেতু নির্দোষ, সেহেতু আজ হোক কাল হোক মুক্তি সে পাবেই। কিন্তু এই দুটি বছর আমাদের দুঃসহ জীবন পার করতে হয়েছে।’
গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গি হামলার দুই বছর পর গত ২৩ জুলাই হাসনাত করিমকে অব্যাহতি দিয়ে আদালতে অভিযোগপত্র দেয় এই মামলার তদন্ত সংস্থা কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিট- সিটিটিসি। ২৬ জুলাই ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম নুরুন্নাহার ইয়াসমিন চার্জশিটের নথিতে স্বাক্ষর করে সেটি চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেটেরের কাছে পাঠিয়ে দেন। সেখান থেকে চার্জশিট সন্ত্রাসবিরোধী বিশেষ ট্রাইব্যুনালে পাঠানো হয়। গত বুধবার (৮ আগস্ট) বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক মজিবুর রহমান চার্জশিট গ্রহণ করে হাসনাত করিমকে অব্যাহতির আদেশ এবং পলাতক দুই জঙ্গি মামুনুর রশিদ রিপন ও শরীফুল ইসলাম খালিদকে গ্রেফতারের জন্য পরোয়ানা জারি করেন। এর আগে ২০১৬ সালের ৫ অক্টোবার পুলিশের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে হাসনাতকে ৫৪ ধারার অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দিয়েছিল আদালত।

হাসনাত করিমনের পরিবার ও চার্জশিট থেকে পাওয়া তথ্যে জানা গেছে, ২০১৬ সালের ১ জুলাই ছিল হাসনাত করিমের মেয়ে শেফা করিমের ১৩তম জন্মদিন। মেয়ের জন্মদিন উপলক্ষে স্ত্রী শারমিনা করিম ও দুই সন্তানকে নিয়ে হাসনাত গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে রাতের খাবারের জন্য গিয়েছিলেন। রাত সাড়ে আটটার দিকে তারা ওই রেস্টুরেন্টে প্রবেশ করে খাবারের অর্ডার দিতে না দিতেই জঙ্গিরা সেখানে হামলা করে। রাতভর জঙ্গিদের হাতে জিম্মি ছিলেন তারা। পরদিন সকালে সেনা কমান্ডোদের অভিযান শুরুর আগ মুহূর্তে দেশি-বিদেশি আরও কয়েকজনের সঙ্গে বেরিয়ে আসেন হাসনাত করিম। এরপর প্রথমে পরিবারের অন্যান্য সদস্যসহ হাসনাতকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মিন্টো রোডের গোয়েন্দা কার্যালয়ে নেওয়া হয়।

কক্সবাজার নিউজ সিবিএন’এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ সংবাদ

মেসিকে’ ৩ লাখ টাকায় কিনলো সিআইপি ইসমাঈল

বদর মোকাম জামে মসজিদে ঈদুল আযহার নামাজ সকাল ৮.১৫মিনিটে

মাতারবাড়ীর জিয়াবুল খুনের ঘটনায় একটি অনুসন্ধানী রিপোর্ট

কক্সবাজারে ট্রাকের ধাক্কায় অজ্ঞাত বৃদ্ধার মৃত্যু

ঈদ ছুটিতে টানা ৫ দিন বন্ধ বেনাপোল স্থলবন্দর

জেলাবাসীকে জামায়াতের ঈদ-উল আযহার শুভেচ্ছা

উজানটিয়া ইউনিয়ন বিএনপি’র পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন

ওসির গাড়ীর ধাক্কায় ক্ষতবিক্ষত সিএনজি

সক্ষম ব্যক্তি কোরবানি না করলে কী শাস্তি?

চট্টগ্রামে সোয়া ২ কোটি টাকার ইয়াবাসহ নারী গ্রেফতার

আমীর খসরু কোথায়?

রোহিঙ্গারা মিয়ানমারের নাগরিক, ফিরিয়ে নিতে হবে : মাহাথির মোহাম্মদ

চার্জশিটের আগে সরকারি কর্মচারী গ্রেফতারে অনুমতি লাগবে

তাকবীরে তাশরীক কখন পড়বেন, কীভাবে পড়বেন?

পাটুয়ারটেকে প্রবাসীর স্ত্রী নির্যাতন: পুলিশের ঘটনাস্থল পরিদর্শন

কোরবানীর ঈদ হোক আত্মত্যাগ ও পরিবেশ সুরক্ষার

জেলা ছাত্রদলের নতুন কমিটিকে ফরিদ মিয়া আরমানের অভিনন্দন

সালমান শাহের মৃত্যু : রহস্য উদঘাটনের প্রতিবেদন ১৮ নভেম্বর

জামিনে মুক্ত আন্দোলনে গ্রেফতার ১৮ শিক্ষার্থী

৩০০ পরিবারে ভিজিএফ চাল দিলেন কাউন্সিলর পাখি