জে.জাহেদ,চট্টগ্রাম :

সিএমপির “ট্রাফিক সপ্তাহ-২০১৮” উপলক্ষে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালী অনুষ্ঠিত হয়।

আজ ৬ আগষ্ট (সোমবার) সকাল ১১টা থেকে র‌্যালীটি দামপাড়া পুলিশ লাইন থেকে শুরু হয়ে জিইসি কনভেনশন সেন্টারে এসে সমাপ্ত হয়।

র‌্যালী শেষে পুলিশ কমিশনার মোঃ মাহাবুবর রহমান, পিপিএম, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (অর্থ ও প্রশাসন) মাসুদ উল হাসান, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) কুসুম দেওয়ান, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার ( ক্রাইম এন্ড অপারেশন) আমেনা বেগম, মাহবুব আলম সভাপতি চিটাগাং চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজ, এমএ মালেক সম্পাদক দৈনিক আজাদী, মোঃ জসিম উদ্দিন সম্পাদক দৈনিক পূর্বকোণ, মাঈন উদ্দিন আহমেদ মিন্টু সিনিয়র ভাইস-প্রেসিডেন্স বিজিএমইএ, অহিদ সিরাজ চৌধুরী স্বপন সদস্য সচিব, মহানগর কমিউনিটি পুলিশিং কমিটি সাঈদ গোলাম হায়দার মিন্টু বক্তব্য রাখেন।

এছাড়াও প্যানেল মেয়র জোবাইদা নার্গিস, কাউন্সিলর গিয়াস উদ্দিন, মাযহারুল ইসলাম চৌধুরী, গোলাম মোহাম্মদ জোবায়ের, হাসান মুরাদ বিপ্লব, আব্দুল কাদের, ইঞ্জিনিয়ার আশরাফ, আঞ্জুমান আরা, স্থপতি আশিক ইমরান, আহমদ হোসাইন, সাধারণ সম্পাদক, বণিক সমিতি, টেরী বাজার, এম আর আজিম সাবেক ছাত্র নেতা, শরফুউদ্দীন চৌধুরী রাজু, পরিচালক, জহুর আহমেদ চৌধুরী ফাউন্ডেশনসহ সিএমপির বিভিন্ন স্তরের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে নগরের বিভিন্ন পরিবহন মালিক ও পরিবহন শ্রমিক অংশগ্রহণ করেন।

স্কুলের বিপুল সংখ্যক শিক্ষার্থী এবং বিএনসিসি’র সদস্যরা র‌্যালীতে স্বতঃস্ফূর্ত ভাবে অংশগ্রহণ করেন।

র‌্যালী শেষে সকলে মিলে বেলুন উড়িয়ে “ট্রাফিক সপ্তাহ-২০১৮” এর শুভ উদ্বোধন করেন।

অনুষ্ঠানে বিশিষ্ট জনেরাও বক্তব্য প্রদান করেন।

বক্তারা পথচারীদের নিরাপদে সড়ক পারাপারের জন্য জিইসির মোড়ে চিটাগং চেম্বার অব কমার্সের পক্ষ থেকে ১টি ফুটওভার ব্রিজ তৈরী করে দেওয়ার আশ্বাস দেওয়া হয়।

এছাড়া টেরী বাজার বণিক সমিতির পক্ষ হতে কোতোয়ালী থানাধীন টেরিবাজার মোড় এলাকায় জনসাধারণের রাস্তা পারাপারের সুবিধার্থে আরেকটি ফুটওভার ব্রিজ তৈরী করে দেওয়ার আশ্বাস দেওয়া ***

পুলিশ কমিশনার সকলকে ট্রাফিক আইন মেনে চলার প্রতি অনুরোধ করেন। “নিরাপদ সড়ক চাই” আন্দোলনের জন্য শিক্ষার্থীদের ধন্যবাদ জ্ঞাপন এবং তাদের ক্লাসে ফিরে গিয়ে পড়ালেখায় মনোনিবেশ করার আহ্বান জানান।

এছাড়াও যত্রতত্র গাড়ি পার্কিং না করা ও চালকদের আরো দায়িত্বশীল ভূমিকা পালনের অনুরোধ করেন।

পুলিশ কমিশনার ট্রাফিক সপ্তাহ উদযাপনের মাধ্যমে পরিবহন শ্রমিকগণ ও চালকেরা আরো বেশি সচেতন হবেন বলে আশা প্রকাশ করেন।

ট্রাফিক পুলিশ,পথচারী, পরিবহন শ্রমিক ও চালকদের সর্বাত্মক সহযোগিতায় নগরীর যানজট পরিস্থিতি সহনীয় পর্যায়ে রাখা যাবে বলে মতামত দেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •