দরিয়ানগরের ইয়াবা সিন্ডিকেট আবারো সক্রিয়!

আহমদ গিয়াস:
কক্সবাজার শহরতলীর দরিয়ানগরকেন্দ্রিক ইয়াবা পাচারের সেই সিন্ডিকেটটি আবারো সক্রিয় হয়ে ওঠেছে। বিশেষ করে পৌর নির্বাচন উপলক্ষে শহর ও শহরতলীতে ইয়াবাবিরোধী অভিযান ঝিমিয়ে পড়ার সুযোগে রাজনৈতিক আশ্রয়ে থাকা ভয়ংকর ইয়াবা সিন্ডিকেটটি নতুন করে সক্রিয় হয়ে ওঠে। এখান থেকে প্রতিদিন লেনদেন হচ্ছে লাখ লাখ পিস ইয়াবা। এলাকাবাসী প্রতিবাদ করতে গিয়ে উল্টো মামলা-হামলা ও হুমকীর শিকার হচ্ছে।

সরেজমিন খোঁজ নিয়ে ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, গত কয়েক বছর ধরে র‌্যাবের ধারাবাহিক অভিযানে দরিয়ানগর ও কলাতলী এলাকার ইয়াবা সিন্ডিকেটটি তছনছ হয়ে গিয়েছিল। বড় ব্যবসায়ীরা গিয়েছিল পালিয়ে। কিন্তু সম্প্রতি এলাকার বেশ কয়েকজন ইয়াবা ডন জামিনে বেরিয়ে এসেছে। এরপর কিছুদিন তারা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণের পর পৌর নির্বাচনের সময়ে নতুন করে সংগঠিত করে তাদের সা¤্রাজ্য। বর্তমানে এ সিন্ডিকেট বেপরোয়াভাবে প্রকাশ্যে ইয়াবা ব্যবসা করে যাচ্ছে। আর এলাকার নেতা নামধারীরা রয়েছে তাদের গডফাদারের ভূমিকায়। বৈধ কোন পেশায় জড়িত না থাকা এসব ‘বেকার’ নেতারা তাদের ছত্রছায়ায় গড়ে তোলা ইয়াবা

সা¤্রাজ্যকে সুরক্ষিত রাখতে সেখানে যুক্ত করেছে অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীদের। কেউ যাতে এদের অবৈধ ব্যবসায় বাধা হয়ে না দাঁড়ায় সেজন্য প্রতিবাদকারীদের হুমকী দিতে এসব সন্ত্রাসীরা দলবদ্ধ হয়ে প্রায় এলাকায় মহড়া দেয়। ইতোমধ্যে এ সিন্ডিকেটের কব্জায় রয়েছে আধুনিক মডেলের একাধিক দামী গাড়ি। কিনেছে বেশ কয়েকটি দোকানও। আর তাদের এ ‘আলাদিনের চেরাগ’ হাতে পাওয়ার মতো হঠাৎ বড়লোক হওয়ার ঘটনা দেখে এলাকাবাসীর চক্ষু ছানাবড়া। শুধু তাই নয়, এদের কারণে আতংকিত এলাকার ভদ্র ও নিরীহ লোকজন। কারণ তারা এলাকার যুবকদের টার্গেট করছে সিন্ডিকেটে যুক্ত করতে। এ আতংকে অনেকেই দরিয়ানগর এলাকা ছাড়ছে।

এলাকাবাসী জানান, এ ইয়াবা সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে মুখ খোলার সাহস কারো নেই। কারণ এরা বড় অপরাধ চক্রের সদস্য এবং এদের অপকর্মের প্রতিবাদ করলে অপহরণ, খুন ও মিথ্যা মামলায় জড়িত করার হুমকী দেওয়া হয়। রবিবার রাতে ইয়াবা গডফাদার ও বনদস্যুরা একাধিক গ্রামবাসীকে হুমকী দিয়েছে বলে জানা গেছে।

সূত্র আরো জানায়, দরিয়ানগর বড়ছড়া আশ্রায়ণ কেন্দ্র ভিত্তিক এ সিন্ডিকেটে স্থানীয় চিহ্নিত ইয়াবা কারবারীরা ছাড়াও টেকনাফ অঞ্চলের লোক রয়েছে। এ সিন্ডিকেটটি টেকনাফ থেকে বাস, ট্রাক, সিএনজি, টমটম কিংবা নৌকাযোগে ইয়াবার বড় চালান এনে দুইদিন কক্সবাজারে রাখে। পরে সুযোগমতো নানা কৌশলে রাজধানী ঢাকা কিংবা বন্দরনগরী চট্টগ্রামে পাঠানো হয়। এই সিন্ডিকেটের অপতৎপরতা রোধে দরিয়ানগর এলাকায় গোয়েন্দা তৎপরতা বাড়ানোর দাবি এলাকাবাসীর।

সর্বশেষ সংবাদ

রামুর ২ ইয়াবা ব্যবসায়ী ৩০ হাজার ইয়াবাসহ চট্টগ্রামে গ্রেপ্তার

কক্সবাজার আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে প্যানেল পরিচিতি সভা অনুষ্ঠিত

সদর উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী হচ্ছেন আবদুর রহমান

স্যালুট লোকমান হাকিম মাস্টার

নিবার্হী ম্যাজিস্ট্রেট জয়ের সুমধুর আবৃতির ভিডিও প্রকাশ

 প্রথম আলোয় সংবাদ প্রকাশ,  মুক্তিযোদ্ধার সন্তানের সংবাদ সম্মেলন

চকরিয়া-পেকুয়াকে এগিয়ে নিতে সহযোগিতা চাই : চট্টগ্রামে এমপি জাফর আলম

উখিয়ার ভূমিদস্যু নুরুল হক মুন্সি আটক, জনমনে স্বস্তি

গর্জনিয়াতে সরকারী পাহাড় কেটে ভবন নির্মাণ

দুই প্যানেলের ৩৪ প্রার্থীর প্রচারণায় সরগরম আদালত প্রাঙ্গণ

বান্ধবীর বাসায় বেড়াতে গিয়ে ফেরেনি কক্সবাজার বায়তুশ শরফের ছাত্রী

ইঞ্জিনিয়ার শফিউল্লাহ ও কাউন্সিলরলের ভাইয়ের মৃত্যুতে মেয়র মুজিবসহ পৌর পরিষদের শোক

কাউন্সিলর আকতার কামালের ভাইয়ের মৃত্যুতে এমপি কাজলের শোক

খোদাভীতি সম্পন্ন মানুষ গড়তে নূরানী শিক্ষা বিপ্লব ছড়িয়ে দিতে হবে : ড. খালিদ হোসেন

রামুর মানব পাচারকারী চক্রের হোতা মনোহরী শর্মা কারাগারে

তালশাড়ী সানরাইজ পাবলিক স্কুলের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা

আল মাহমুদ ছিলেন মানবতাবাদী ও দেশপ্রেমিক কবি

উখিয়ায় কে পাচ্ছেন নৌকার টিকেট

ঈদগড়ে অভিনব কায়দায় কাঠ পাচারকালে ট্রাক আটক

কক্সবাজার সদর থানা পুলিশের অভিযানে গ্রেফতার-৮