দরিয়ানগরের ইয়াবা সিন্ডিকেট আবারো সক্রিয়!

আহমদ গিয়াস:
কক্সবাজার শহরতলীর দরিয়ানগরকেন্দ্রিক ইয়াবা পাচারের সেই সিন্ডিকেটটি আবারো সক্রিয় হয়ে ওঠেছে। বিশেষ করে পৌর নির্বাচন উপলক্ষে শহর ও শহরতলীতে ইয়াবাবিরোধী অভিযান ঝিমিয়ে পড়ার সুযোগে রাজনৈতিক আশ্রয়ে থাকা ভয়ংকর ইয়াবা সিন্ডিকেটটি নতুন করে সক্রিয় হয়ে ওঠে। এখান থেকে প্রতিদিন লেনদেন হচ্ছে লাখ লাখ পিস ইয়াবা। এলাকাবাসী প্রতিবাদ করতে গিয়ে উল্টো মামলা-হামলা ও হুমকীর শিকার হচ্ছে।

সরেজমিন খোঁজ নিয়ে ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, গত কয়েক বছর ধরে র‌্যাবের ধারাবাহিক অভিযানে দরিয়ানগর ও কলাতলী এলাকার ইয়াবা সিন্ডিকেটটি তছনছ হয়ে গিয়েছিল। বড় ব্যবসায়ীরা গিয়েছিল পালিয়ে। কিন্তু সম্প্রতি এলাকার বেশ কয়েকজন ইয়াবা ডন জামিনে বেরিয়ে এসেছে। এরপর কিছুদিন তারা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণের পর পৌর নির্বাচনের সময়ে নতুন করে সংগঠিত করে তাদের সা¤্রাজ্য। বর্তমানে এ সিন্ডিকেট বেপরোয়াভাবে প্রকাশ্যে ইয়াবা ব্যবসা করে যাচ্ছে। আর এলাকার নেতা নামধারীরা রয়েছে তাদের গডফাদারের ভূমিকায়। বৈধ কোন পেশায় জড়িত না থাকা এসব ‘বেকার’ নেতারা তাদের ছত্রছায়ায় গড়ে তোলা ইয়াবা

সা¤্রাজ্যকে সুরক্ষিত রাখতে সেখানে যুক্ত করেছে অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীদের। কেউ যাতে এদের অবৈধ ব্যবসায় বাধা হয়ে না দাঁড়ায় সেজন্য প্রতিবাদকারীদের হুমকী দিতে এসব সন্ত্রাসীরা দলবদ্ধ হয়ে প্রায় এলাকায় মহড়া দেয়। ইতোমধ্যে এ সিন্ডিকেটের কব্জায় রয়েছে আধুনিক মডেলের একাধিক দামী গাড়ি। কিনেছে বেশ কয়েকটি দোকানও। আর তাদের এ ‘আলাদিনের চেরাগ’ হাতে পাওয়ার মতো হঠাৎ বড়লোক হওয়ার ঘটনা দেখে এলাকাবাসীর চক্ষু ছানাবড়া। শুধু তাই নয়, এদের কারণে আতংকিত এলাকার ভদ্র ও নিরীহ লোকজন। কারণ তারা এলাকার যুবকদের টার্গেট করছে সিন্ডিকেটে যুক্ত করতে। এ আতংকে অনেকেই দরিয়ানগর এলাকা ছাড়ছে।

এলাকাবাসী জানান, এ ইয়াবা সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে মুখ খোলার সাহস কারো নেই। কারণ এরা বড় অপরাধ চক্রের সদস্য এবং এদের অপকর্মের প্রতিবাদ করলে অপহরণ, খুন ও মিথ্যা মামলায় জড়িত করার হুমকী দেওয়া হয়। রবিবার রাতে ইয়াবা গডফাদার ও বনদস্যুরা একাধিক গ্রামবাসীকে হুমকী দিয়েছে বলে জানা গেছে।

সূত্র আরো জানায়, দরিয়ানগর বড়ছড়া আশ্রায়ণ কেন্দ্র ভিত্তিক এ সিন্ডিকেটে স্থানীয় চিহ্নিত ইয়াবা কারবারীরা ছাড়াও টেকনাফ অঞ্চলের লোক রয়েছে। এ সিন্ডিকেটটি টেকনাফ থেকে বাস, ট্রাক, সিএনজি, টমটম কিংবা নৌকাযোগে ইয়াবার বড় চালান এনে দুইদিন কক্সবাজারে রাখে। পরে সুযোগমতো নানা কৌশলে রাজধানী ঢাকা কিংবা বন্দরনগরী চট্টগ্রামে পাঠানো হয়। এই সিন্ডিকেটের অপতৎপরতা রোধে দরিয়ানগর এলাকায় গোয়েন্দা তৎপরতা বাড়ানোর দাবি এলাকাবাসীর।

কক্সবাজার নিউজ সিবিএন’এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন সংবাদের জনপ্রিয়তার প্রতি সরকারের সু-নজর জরুরী

ফ্রান্সস্থ প্রজ্ঞাবিহারের কঠিন চীবর দান উৎসব উদযাপিত

চট্টগ্রামে পাহাড়তলীতে অস্ত্রসহ যুবক আটক

পেকুয়ায় প্রশাসনের উদ্যোগে বিলবোর্ড, ব্যানার-ফেস্টুন অপসারন

গণপূর্ত বিভাগের দায়িত্বহীনতায় স্বাস্থ্য ও অপরাধ ঝুঁকিতে প্রায় তিন’শ শিক্ষার্থী

শিশু জুবায়ের’র উপর এ কেমন শাসন!

হাসিনা : এ ডটার’স টেলে বানান ভুল, ব্লকবাস্টারকে লিগ্যাল নোটিশ

ক্ষমতায় গেলে সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জাতীয়করণ করবে ঐক্যফ্রন্ট

“বিড়ালের গলায় মুক্তার মালা !”

লবণ উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনে গবেষণার বিকল্প নাই : বিসিক চেয়ারম্যান

চট্টগ্রামে দৈনিক কর্ণফুলী সম্পাদক আফসার উদ্দিন গ্রেফতার

চার দিনব্যাপী আয়কর মেলা সমাপ্ত, ৮০ লাখ ৫১ হাজার ৭৮০ টাকা রাজস্ব আদায়

নাইক্ষ্যংছড়িতে বীর বাহাদুরের পক্ষে একাট্টা

মাউশির নতুন মহাপরিচালক সৈয়দ গোলাম ফারুক

পৌর এলাকাকে ‘স্বাস্থ্যকর শহর’ করার ঘোষণা দিলেন মেয়র মুজিবুর রহমান

রাফিয়া আলম জেবা : অদম্য এক পিইসি পরীক্ষার্থী

ইসলামাবাদ থেকে অস্ত্রসহ যুবক গ্রেফতার

#METOO নারীর ভয়ঙ্কর কষ্টের কথা

সারাদেশে অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার অভিযান শুরু : চকরিয়ায় আইজিপি

৫২টি নভেম্বর পেরিয়ে ৫৩তে পদার্পণ চবির