চকরিয়ায় খুচরা বিক্রেতার গুদামে বিপুল পরিমাণ চোরাই সার মজুদ!

এম.জিয়াবুল হক,চকরিয়া :

চকরিয়া উপজেলার ডুলাহাজারা ইউনিয়নের ৬নম্বর ওয়ার্ডের দায়িত্বপ্রাপ্ত খুচরা বিক্রেতা পলাশ দে’র গুদামে বিপুল পরিমাণ চোরাই সার মজুদের সত্যতা পেয়েছে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নির্দেশে গঠিত তদন্ত কমিটি। ইউনিয়নের দায়িত্বপ্রাপ্ত বিসিআইসির সার ডিলার মের্সাস রূপালী ইঞ্জিনিয়ারিং থেকে নামমাত্র বরাদ্দের সার উত্তোলনের ফাঁেক ফাঁেক অভিযুক্ত খুচরা বিক্রেতা পলাশ দে দীর্ঘদিন ধরে চট্টগ্রাম ও ঘোড়াশাল থেকে চোরাই পথে এসব সার কিনে এনে ডুলাহাজারা বাজারস্থ তাঁর গুদামে মজুদ করেছে।

সরকারিভাবে নিয়ম আছে একজন খুচরা বিক্রেতা তাঁর গুদামে একটন মতো সার মজুদ রাখতে পারবেন। কিন্তু তদন্তে খুচরা বিক্রেতা পলাশ দে’র গুদামে পাওয়া গেছে প্রায় ২৩ মেট্রিক টন সার। এ ধরণের অভিযোগের প্রেক্ষিতে চকরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নুরউদ্দিন মুহাম্মদ শিবলী নোমান ঘটনাটি তদন্তের নির্দেশ দেন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তাকে।

জানা গেছে, চকরিয়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো.আতিক উল্লাহ বিষয়টি তদন্তের জন্য উপজেলা কৃষি বিভাগের উদ্ভিদ সংরক্ষন কর্মকর্তা মহিউদ্দিনকে দায়িত্ব দেন। নির্দেশের প্রেক্ষিতে গত ২৩ জুলাই বিকেল পাঁচটার দিকে খুচরা বিক্রেতা পলাশ দে’র ডুলাহাজারা বাজারস্থ গুদামে উপস্থিত হন তদন্ত কর্মকর্তা মহিউদ্দিন। ওইসময় গুদামে তল্লাসি চালিয়ে দেখেন সেখানে মজুদ রয়েছে ১০টন ইউরিয়া সার, ৬টন টিএসপি সার, ৪টন এমওপি সার, ৩টন ডিএপিসহ সর্বমোট ২৩ মেট্রিক টন সার। ওইসময় মজুদ তালিকা প্রস্তুত করে তদন্ত কর্মকর্তা অভিযুক্ত খুচরা বিক্রেতা পলাশ দে এবং উপস্থিত স্বাক্ষীদের সাক্ষরও নিয়েছেন।

তদন্ত কর্মকর্তা ও উপজেলা কৃষি বিভাগের উদ্ভিদ সংরক্ষন কর্মকর্তা মহিউদ্দিন বলেন, তদন্তের পর ইতোমধ্যে এ সংক্রান্ত প্রতিবেদন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার দপ্তরে দাখিল করা হয়েছে। তদন্তে দেখা গেছে,অভিযুক্ত খুচরা বিক্রেতা বিগত পাঁচ মাসের মধ্যে ইউনিয়নের দায়িত্বপ্রাপ্ত বিসিআইসির সার ডিলার মের্সাস রূপালী ইঞ্জিনিয়ারিং থেকে দুইবার সার উত্তোলন করেছেন। তারমধ্যে ২১ ফেব্রুয়ারী তারিখে ৭৫০ কেজি ইউরিয়া ও ২২ ফেব্রুয়ারী তারিখে একটন ইউরিয়া সার নিয়েছেন। এরপর থেকে খুচরা বিক্রেতা পলাশ দে আর কোন ধরণের সার মুল ডিলার থেকে নেয়নি।

ভুক্তভোগীরা অভিযোগ তুলেছেন, খুচরা বিক্রেতার গুদামে অতিরিক্ত সার মজুদের বিষয়টি তদন্তে প্রমাণিত হওয়ার পর গত ২৬ জুলাই তদন্ত কর্মকর্তা এ সংক্রান্ত তদন্ত প্রতিবেদন চকরিয়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার দপ্তরে জমা দিয়েছেন।

অভিযোগ উঠেছে, অভিযুক্ত খুচরা বিক্রেতাকে অপকর্ম থেকে রক্ষা করতে একটি মহল নানভাবে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার দপ্তরে তদবির শুরু করেছেন। যার কারনে তদন্তের অগ্রগতির বিষয়টি উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার দপ্তর থেকে চকরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে জানাতে ইচ্ছেকৃতভাবে সময় করা হচ্ছে বলেও অভিযোগ তুলেছেন ভুক্তভোগীরা।

সর্বশেষ সংবাদ

দৌড়ে পালাচ্ছিল সবাই, মৃত্যুর মুখে ঝাঁপিয়ে পড়লেন এএসআই ফিরোজ

রোহিঙ্গাদের গণহত্যা তদন্তে আসছে আইসিসির প্রতিনিধিরা

মুহতামিম সিরাজের বিরুদ্ধে চেক প্রতারণা মামলা

চকরিয়ায় সাম্প্রতিক বন্যা পরিস্থিতি নিয়ে মতবিনিময় সভা

গরুর মৃত্যুতে ক্ষুব্ধ মুখ্যমন্ত্রী, ৮ সরকারি কর্মকর্তা বরখাস্ত

খুটাখালী থেকে দুই যুবক অপহরণ

বদর মোকাম থেকে মাঝেরঘাট পর্যন্ত সড়কের সংস্কার করা হবে -মেয়র মুজিব

মিয়ানমারকে অবশ্যই রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে হবে : প্রধানমন্ত্রী

ডুলাহাজারায় একালাবাসীর অভিযানে ইয়াবা সহ যুবক আটক, পুলিশে সোপর্দ

রহস্যজনক ওয়ালরাইটিংয়ে আতঙ্কঃ তদন্তে নেমেছে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী

যে কারণে টাখনুর নিচে কাপড় পরা নিষিদ্ধ

ভবিষ্যত পৃথিবীর জন্য প্রস্তুতির ক্ষেত্র কক্সবাজারে

পেকুয়ায় প্রবাহমান খাল থেকে ৩ টি বাঁধ অপসারণ

চট্টগ্রামে বিএনপির মহাসমাবেশ সফল করুন -সরওয়ার জাহান চৌধুরী

মুফতি মাওলানা হাবিব উল্লাহ জেলা জামায়াতের ভারপ্রাপ্ত আমীর

অন্যায়ভাবে কর্মী ছাটাই করেছে সিলেট যুব একাডেমি

চট্টগ্রামে অধ্যক্ষের বাসায় চকরিয়ার তরুণীর ঝুলন্ত মরদেহ

উল্লাপাড়ায় ট্রেনের ধাক্কায় বর-কনেসহ ৮ জন নিহত

কোর্ট পুলিশের হাতে আইনজীবি নাজেহাল !

চকরিয়ায় বানভাসী মানুষের সীমাহীন কষ্ট : চরম দুর্ভোগ