বার্তা পরিবেশক:
“শহরে ১২ নং ওয়ার্ডস্থ লাইট হাউজ এলাকায় নির্বাচনী প্রচারনায় কাউন্সিলর প্রার্থী নুরুল ইসলাম দানুর কর্মীর উপর হামলা চালিয়েছে দূর্বৃত্তরা। প্রতিদ্বন্ধী প্রার্থী কাজী মোর্শেদ বাবু ইতোমধ্যে বুঝতে পেরেছে।যে আমার বিজয় সুনিশ্চিত। আমার জনপ্রিয়তা ও সাধারণ ভোটারদেও সমর্থন কোনভাবে ঠেকাতে না পেরে ষড়যন্ত্রের আশ্রয় নিয়েছে”- বলে অভিযোগ করেছেন দানু।

অভিযোগ মতে, তারই অংশ হিসেববে মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬ টার দিকে লাইট হাউজ খোরশেদের দোকানের পাশে এ হামলার ঘটনা ঘটে বাবুর কর্মীরা। আহত দানুর কর্মী হলেন, ১২ নং ওয়ার্ড সৈকত পাড়া এলাকার হাজী মোঃ ফরিদুল আলমের ছেলে মোঃ আলম কায়েস। আহত ব্যাক্তিকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়ার জন্য নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে তার পরিবারের সদস্যরা।

এদিকে হামলার ঘটনায় কাউন্সিলর প্রার্থী নুরুল ইসলাম দানুর ব্ল্যাক বোর্ড মার্কা সমর্থনকারীরা কলাতলী এলাকায় প্রতিবাদ মিছিল বের করেন। তাদের দাবী করে বলেন, নির্বাচনী প্রচারনায় বাধা কেন। কর্মীদের উপর হামলা কেন। আমরা শান্ত পরিবেশ আশা করছি ১২ নং ওয়ার্ডের প্রার্থীদের কাছে।

আহত মোঃ আলম কায়েস জানান, ১২ নং ওয়ার্ড থেকে কাউন্সিলর প্রার্থী নুরুল ইসলাম দানুর পক্ষে প্রচারনা করায় আমাকে হামলা চালিয়ে ৪/৫ জন ব্যাক্তি। দানুর নির্বাচনী প্রচারনা করার জন্য ৫/৭ জন কর্মীসহ লাইট হাউজ এলাকায় যায়। আর সেখানে ১২ নং ওয়ার্ডরে কাউন্সিলর প্রার্থী কাজী মোর্শেদ বাবুর পোষ্টার ছিঁড়ে পেলার অভিযোগ এনে আমাকে মারধর করে।

স্থানীয়রা জানান, আসন্ন পৌর নির্বাচনের ভোটের দিন বাকি আর ৭ দিন। এই পর্যন্ত কোন জায়গায় আপত্তিকর ঘটনা ঘটে নাই। এই প্রথম লাইট হাউজ এলাকায় নির্বাচনী প্রচারনায় আমাদের কর্মীকে আহত করেছে। কেন হামলা চালিয়েছে তার প্রশাসনের কাছে তার বিচার চাই। আমরা চাই সবাই এক সাথে প্রচারনার মধ্যে দিয়ে শান্তিতে ভোট দিব। মূলত দানুর বিজয় নিশ্চিত দেখে বিরোধী প্রার্থী বাবুর লোকজন এই হামলা করেছে দাবি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •