শাহজালাল শাহেদ, চকরিয়া:

মাহামুহুরী নদীতে গোসল করতে নেমে পানিতে ডুবে চকরিয়া গ্রামার স্কুলের ৫ মেধাবি শিক্ষার্থীর মৃত্যুর ঘটনায় নিহতদের স্মরণে ৩দিনের শোক কর্মসূচির প্রথমদিন মঙ্গলবার ১৭জুলাই দুপুর সাড়ে ১২টায় বিদ্যালয় মিলনায়তনে খতমে কুরআন, তাহলীল, খাইরে খতম ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

উপাধ্যক্ষ নূর মোহাম্মদের সভাপতিত্বে দোয়া মাহফিলে উপস্থিত ছিলেন এডুকেয়ার ফাউন্ডেশনের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক হারুনুর রশীদ, অধ্যাপক রিদুয়ানুল হক, সাংবাদিক শাহরিয়ার মাহমুদ রিয়াদ ও সাংবাদিক শাহজালাল শাহেদ।

দোয়া মাহফিলে ছাত্রদের নিয়ে মাওলানা আরশাদ হোসাইন এবং ছাত্রীদের নিয়ে মাওলানা ওমর আলী পৃথক মুনাজাত পরিচালনা করেন। মুনাজাতে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মাঝে কান্নার রোল পড়ে যায়। প্রিয় সহপাঠী ও শিক্ষার্থীকে হারিয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন ছাত্র-শিক্ষক। এসময় শিক্ষক-শিক্ষিকা, মাধ্যমিক শাখার সর্বস্তরের শিক্ষার্থীসহ বিদ্যালয়ের বিভিন্ন পদের কর্মকর্তা-কর্মচারিগণ উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে আরো দুইদিন শোক কর্মসূচির আওতায় বুধবার ও বৃহস্পতিবার নিহতদের রুহের মাগফিরাত কামনায় খতমে কুরআন এবং দোয়া মাহফিল রয়েছে। অন্যদিকে অন্যান্য ধর্মাবলম্বী শিক্ষার্থীদের নিয়ে বিদ্যালয়ের শিক্ষক প্রণব কুমার দে বিশেষ প্রার্থনা পরিচালনা করেন। একইদিন উপজেলা ও পৌরশহরের বিভিন্ন বিদ্যালয়ে চকরিয়া গ্রামার স্কুলের ৫ মেধাবি শিক্ষার্থীর স্মরণে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

উল্লেখ্য, গত শনিবার ১৪জুলাই বিকালে মাতামুহুরী নদীর চরে ফুটবল খেলে গোসল করতে নামে চকরিয়া গ্রামার স্কুলের ৭/৮জন শিক্ষার্থী। এতে ৫জন ডুবে গিয়ে নিখোঁজ হয়ে যায়। বাকিরা সাঁতরিয়ে কূল ধরে প্রাণে বেঁচে যায়। নিখোঁজদের সন্ধ্যার পর থেকে একের পর এক সন্ধান মেলে। সর্বশেষ রাত সাড়ে ১২টার দিকে উদ্ধার অভিযান শেষ করা হয় প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলামের ছেলে অরভির লাশ উত্তোলনের মাধ্যমে। নিহত শিক্ষার্থীরা হলেন- দশম শ্রেণির এমশাদ, অরভি, ফারহান, তূর্ণ ও অষ্টম শ্রেণির ছাত্র মেহেরাব।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •