এখনো সাড়া জাগেনি ভোটারদের

শাহেদ মিজান, সিবিএন:
আলোচিত কক্সবাজার পৌরসভার নির্বাচনের ভোটগ্রহণের দিন ঘনিয়ে আসছে। নির্বাচনের প্রার্থীরা জোরেশোরে প্রচারণা চালাচ্ছে। প্রার্থীরা নিরলস প্রচারণা চালালেও এখনো ভোটারদের মাঝে নির্বাচন নিয়ে সাড়া জাগেনি। এখন পর্যন্ত ভোটাররা নির্বাচন নিয়ে প্রতিক্রিয়া দেখাচ্ছে না। এমনকি ভোট নিয়ে মুখও খুলছে না। বিশেষ করে কাউন্সিলের ভোট নিয়ে মুখে কুলোপ এটে আছেন ভোটাররা!

জানা গেছে, কক্সবাজার পৌরসভা নির্বাচনে পাঁচ মেয়র প্রার্থী ছাড়াও ৬৪জন সাধারণ কাউন্সিলর ও ১৮জন সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। প্রতীক পাওয়ার পর থেকে প্রার্থীরা পুরোদমে প্রচারণাসহ নির্বাচনী কার্যক্রম চালাচ্ছে। দিন পেরিয়ে রাত অবধি ধর্ণা দিচ্ছে ভোটারদের দুয়ারে দুয়ারে। সেই সাথে তাদের পরিবারের সদস্যরা ও সমর্থকেরাও চালাচ্ছে প্রচারণা। মাইকিংয়ে গম গম করছে পুরো পৌর এলাকা।

খোঁজ-খবর নিয়ে জানা গেছে, দলীয় প্রার্থী হওয়ায় পাঁচ মেয়র প্রার্থীর পক্ষে ভোটাররা নির্দিষ্ট হয়ে আছে। বিশেষ করে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মুজিবুর রহমান চেয়ারম্যান (নৌকা), বিএনপির প্রার্থী রফিকুল ইসলাম (ধানের শীষ) এবং জামায়াত সমর্থিত নাগরিক কমিটির প্রার্থী বর্তমান মেয়র (বরখাস্ত) সরওয়ার কামালের ভোটাররা দলীয় প্রার্থীকেই ভোট দেবেন। তারপরও মেয়র প্রার্থীদের পক্ষে কিছু ভোটার সাড়া দিলেও অধিকাংশের সাড়া নেই। অন্যদিকে ভোটার নিয়ে অন্ধকারে হাবুডুবু খাচ্ছেন কাউন্সিলর প্রার্থীরাও। কারণ কাউন্সিলর প্রার্থী নিয়ে এখন পর্যন্ত কোনো সাড়া নেই ভোটারদের। প্রার্থীরা নিরলস প্রচারণা চালালেও তাতে সাড়া দিচ্ছে না ভোটাররা। এতে করে এক প্রকার সাড়াহীন প্রচারণা চালাতে বাধ্য হচ্ছেন প্রার্থীরা। তারপরও তারা নাছোড়বান্দা। যে কোনোভাবেই ভোটারদের মন জয় করার চেষ্টা করছেন।

ভোটারদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, পৌরসভার ১২ ওয়ার্ডের অধিকাংশতেই একাধিক সাধারণ (পুরুষ) কাউন্সিলর প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে। এমনকি কয়েকটি ওয়ার্ডে পাঁচজনের বেশি প্রার্থী রয়েছে। সব প্রার্থী সমানভাবে প্রচারণা চালাচ্ছে। এতে দু’য়েকটি ওয়ার্ড ছাড়া বাকিগুলো এখনো নিশ্চিত হওয়া যাচ্ছে কে এগিয়ে থেকে কান্সিলর নির্বাচিত হচ্ছেন। তাই ভোটাররা দ্বিধা-দ্বন্দ্বে পড়ে কোনো প্রার্থীর দিকে সাড়া দিতে পারছে না।

৮নং ওয়ার্ডের ভোটার হাফিজুর রহমান বলেন, ‘মেয়র প্রার্থীর চেয়ে কাউন্সিলর প্রার্থীর ভোটযুদ্ধ জমে বেশি। কারণ সব প্রার্থী একই এলাকার হওয়ায় পাল্টাপাল্টি প্রচারণায় ভোটারদের মাঝে আমেজ বেশি থাকে। কিন্তু নির্বাচনের সময় দূরে থাকায় এখনো প্রতিযোগিতামূলক কিছু হচ্ছে না। তাই ভোটারারও সাড়ে দিচ্ছে না। এমনকি ভোট নিয়ে আড্ডাবাজিও তেমন চোখে পড়ছে না।

১১ নং ওয়ার্ডের ভোটার আবদুল হাকিম বলেন, ‘প্রচারণা জোরোশোরে চালালেও এখনো পর্যন্ত কে কাউন্সিলর হচ্ছেন তা স্পষ্ট হচ্ছে না। আমি চাই জনগণের পছন্দে যে এগিয়ে থাকবেন তাকেই ভোট দিই। তা এখনো স্পষ্ট না হওয়ায় কোনো প্রার্থীর পক্ষে সাড়া দিচ্ছি না। এমনকি নির্বাচনে আমেজও নিজেকে জড়াতে চাচ্ছি না। সিদ্ধান্ত নিতে ভুল হলে পরবর্তীতে নানাভাবে পস্তাতে হবে।’

সর্বশেষ সংবাদ

অসহায় প্রতিবন্ধী পরিবারের আর্তনাদে আকাশ বাতাস ভারী হয়ে উঠেছে

সামিটের এলএনজির জাহাজ এখন মহেশখালীতে

শনিবার রাত থেকে ইন্টারনেটের গতি ধীর হতে পারে

আজ পবিত্র শবে বরাত

ঈদের পর সরকারকে ১০ নম্বর হুঁশিয়ারি!

এবার খুরুশ্কুল আশ্রয়ণ প্রকল্পের সড়কের জমিতে ভবন নির্মাণ

মাতামুহুরী ব্রীজে ফের দেবে গেছে,  দূর্ঘটনার আশঙ্কা

চকরিয়ায় মাংসের মূল্য নির্ধারণ করলেন প্রশাসন

ভালুকিয়া যুব কল্যাণ সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক কাশেমের অকাল মৃত্যু

সব ধর্মের অনুসারীদের নিজ ধর্ম পালনের সমান সুযোগ নিশ্চিত করেছে সরকার-ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

শহরের বায়তুশ শরফ এলাকা থেকে ৪ দিন ধরে কন্যা শিশু নিখোঁজ

খরুলিয়ায় প্রবাসীর জমি দখলের অভিযোগ, থানায় মামলা

সীতাকুণ্ডে কক্সবাজারের ‘ইয়াবাপ্রেমী’ দুই প্রেমিক যুগল আটক,২০ হাজার ইয়াবা উদ্ধার

‘ধারালো দা’সহ আটক হামলাকারীর বিরুদ্ধে মামলা নেয়নি পুলিশ’

স্বপ্নজালের জরুরী সভা অনুষ্ঠিত

জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জকে গ্রেফতারের প্রতিবাদে মানববন্ধন

লামায় প্রান্তিক কৃষকের তামাক লুটের অভিযোগ, মারধরে আহত ৭

ঈদগাঁও বাজারে শবে বরাত ও রোজাকে পুঁজি করে ব্যবসায়ীদের ফায়দা লুটার চেষ্টা!

২৭ বছরের প্রেমিকের টানে বাংলাদেশে ৫২ বছরের মার্কিন নারী

প্রশ্নপত্রে পর্নোতারকার নাম দেয়া সেই শিক্ষক বরখাস্ত