এখনো সাড়া জাগেনি ভোটারদের

শাহেদ মিজান, সিবিএন:
আলোচিত কক্সবাজার পৌরসভার নির্বাচনের ভোটগ্রহণের দিন ঘনিয়ে আসছে। নির্বাচনের প্রার্থীরা জোরেশোরে প্রচারণা চালাচ্ছে। প্রার্থীরা নিরলস প্রচারণা চালালেও এখনো ভোটারদের মাঝে নির্বাচন নিয়ে সাড়া জাগেনি। এখন পর্যন্ত ভোটাররা নির্বাচন নিয়ে প্রতিক্রিয়া দেখাচ্ছে না। এমনকি ভোট নিয়ে মুখও খুলছে না। বিশেষ করে কাউন্সিলের ভোট নিয়ে মুখে কুলোপ এটে আছেন ভোটাররা!

জানা গেছে, কক্সবাজার পৌরসভা নির্বাচনে পাঁচ মেয়র প্রার্থী ছাড়াও ৬৪জন সাধারণ কাউন্সিলর ও ১৮জন সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। প্রতীক পাওয়ার পর থেকে প্রার্থীরা পুরোদমে প্রচারণাসহ নির্বাচনী কার্যক্রম চালাচ্ছে। দিন পেরিয়ে রাত অবধি ধর্ণা দিচ্ছে ভোটারদের দুয়ারে দুয়ারে। সেই সাথে তাদের পরিবারের সদস্যরা ও সমর্থকেরাও চালাচ্ছে প্রচারণা। মাইকিংয়ে গম গম করছে পুরো পৌর এলাকা।

খোঁজ-খবর নিয়ে জানা গেছে, দলীয় প্রার্থী হওয়ায় পাঁচ মেয়র প্রার্থীর পক্ষে ভোটাররা নির্দিষ্ট হয়ে আছে। বিশেষ করে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মুজিবুর রহমান চেয়ারম্যান (নৌকা), বিএনপির প্রার্থী রফিকুল ইসলাম (ধানের শীষ) এবং জামায়াত সমর্থিত নাগরিক কমিটির প্রার্থী বর্তমান মেয়র (বরখাস্ত) সরওয়ার কামালের ভোটাররা দলীয় প্রার্থীকেই ভোট দেবেন। তারপরও মেয়র প্রার্থীদের পক্ষে কিছু ভোটার সাড়া দিলেও অধিকাংশের সাড়া নেই। অন্যদিকে ভোটার নিয়ে অন্ধকারে হাবুডুবু খাচ্ছেন কাউন্সিলর প্রার্থীরাও। কারণ কাউন্সিলর প্রার্থী নিয়ে এখন পর্যন্ত কোনো সাড়া নেই ভোটারদের। প্রার্থীরা নিরলস প্রচারণা চালালেও তাতে সাড়া দিচ্ছে না ভোটাররা। এতে করে এক প্রকার সাড়াহীন প্রচারণা চালাতে বাধ্য হচ্ছেন প্রার্থীরা। তারপরও তারা নাছোড়বান্দা। যে কোনোভাবেই ভোটারদের মন জয় করার চেষ্টা করছেন।

ভোটারদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, পৌরসভার ১২ ওয়ার্ডের অধিকাংশতেই একাধিক সাধারণ (পুরুষ) কাউন্সিলর প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে। এমনকি কয়েকটি ওয়ার্ডে পাঁচজনের বেশি প্রার্থী রয়েছে। সব প্রার্থী সমানভাবে প্রচারণা চালাচ্ছে। এতে দু’য়েকটি ওয়ার্ড ছাড়া বাকিগুলো এখনো নিশ্চিত হওয়া যাচ্ছে কে এগিয়ে থেকে কান্সিলর নির্বাচিত হচ্ছেন। তাই ভোটাররা দ্বিধা-দ্বন্দ্বে পড়ে কোনো প্রার্থীর দিকে সাড়া দিতে পারছে না।

৮নং ওয়ার্ডের ভোটার হাফিজুর রহমান বলেন, ‘মেয়র প্রার্থীর চেয়ে কাউন্সিলর প্রার্থীর ভোটযুদ্ধ জমে বেশি। কারণ সব প্রার্থী একই এলাকার হওয়ায় পাল্টাপাল্টি প্রচারণায় ভোটারদের মাঝে আমেজ বেশি থাকে। কিন্তু নির্বাচনের সময় দূরে থাকায় এখনো প্রতিযোগিতামূলক কিছু হচ্ছে না। তাই ভোটারারও সাড়ে দিচ্ছে না। এমনকি ভোট নিয়ে আড্ডাবাজিও তেমন চোখে পড়ছে না।

১১ নং ওয়ার্ডের ভোটার আবদুল হাকিম বলেন, ‘প্রচারণা জোরোশোরে চালালেও এখনো পর্যন্ত কে কাউন্সিলর হচ্ছেন তা স্পষ্ট হচ্ছে না। আমি চাই জনগণের পছন্দে যে এগিয়ে থাকবেন তাকেই ভোট দিই। তা এখনো স্পষ্ট না হওয়ায় কোনো প্রার্থীর পক্ষে সাড়া দিচ্ছি না। এমনকি নির্বাচনে আমেজও নিজেকে জড়াতে চাচ্ছি না। সিদ্ধান্ত নিতে ভুল হলে পরবর্তীতে নানাভাবে পস্তাতে হবে।’

cbn
কক্সবাজার নিউজ সিবিএন’এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ সংবাদ

নির্বাচনে মহাডাকাতি হয়েছে, অভিযোগ ড. কামালের

‘নোয়াখালীতে সমুদ্রবন্দর হবে’

আওয়ামী লীগের বিজয় সমাবেশ আজ

এরশাদের অবস্থা নাজুক, রোববার যাচ্ছেন সিঙ্গাপুর

পোকখালীতে নাতীর মৃতদেহ দেখতে গিয়ে মৃত হয়ে ফিরল দাদী, ৫ জন আহত

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন প্রশ্নে অস্পষ্ট অবস্থান আসিয়ান মন্ত্রীদের

কক্সবাজারে ইয়াবা কারবারিদের আত্মসমর্পণ জানুয়ারির শেষে: মন্ত্রী

ঈদগাঁও রিপোর্টার্স সোসাইটির নতুন কমিটি

দলের করণীয় বললেন মওদুদ

সরকারের উন্নয়নের বার্তা ছড়িয়ে দিতে যোগ্য কান্ডারী কছির

উন্নয়ন ও জনসেবায় চকরিয়া-পেকুয়াবাসিকে আস্থার প্রতিদান দিব- জাফর আলম এমপি

বিক্ষুব্ধ বাংলাদেশি শ্রমিকদের আক্রমণের শিকার কুয়েত বাংলাদেশ দূতাবাসে

হুইল চেয়ারে মুহিত, পাশে নেই সুসময়ের বন্ধুরা

ভারত থেকে পালিয়ে আসা ১৩শ’ রোহিঙ্গা এখন বাংলাদেশে

উপজেলা নির্বাচনে ‘স্বতন্ত্রভাবে’ অংশ নেবে বিএনপি

ভাইস চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী ছাত্রলীগ নেতা হিমুর ব্যাপক গনসংযোগ

চট্টগ্রামে ৩টি হাইটেক পার্ক হচ্ছে

সংরক্ষিত আসনে এমপি চান মহেশখালীর মেয়ে প্রভাষক রুবি

ঈদগাঁওতে নৌকার চেয়ারম্যান মনোনয়ন প্রত্যাশী রাশেদের গণসংযোগ

অতিথি পাখির কলকাকলিতে মুখরিত বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্ক