এখনো সাড়া জাগেনি ভোটারদের

শাহেদ মিজান, সিবিএন:
আলোচিত কক্সবাজার পৌরসভার নির্বাচনের ভোটগ্রহণের দিন ঘনিয়ে আসছে। নির্বাচনের প্রার্থীরা জোরেশোরে প্রচারণা চালাচ্ছে। প্রার্থীরা নিরলস প্রচারণা চালালেও এখনো ভোটারদের মাঝে নির্বাচন নিয়ে সাড়া জাগেনি। এখন পর্যন্ত ভোটাররা নির্বাচন নিয়ে প্রতিক্রিয়া দেখাচ্ছে না। এমনকি ভোট নিয়ে মুখও খুলছে না। বিশেষ করে কাউন্সিলের ভোট নিয়ে মুখে কুলোপ এটে আছেন ভোটাররা!

জানা গেছে, কক্সবাজার পৌরসভা নির্বাচনে পাঁচ মেয়র প্রার্থী ছাড়াও ৬৪জন সাধারণ কাউন্সিলর ও ১৮জন সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। প্রতীক পাওয়ার পর থেকে প্রার্থীরা পুরোদমে প্রচারণাসহ নির্বাচনী কার্যক্রম চালাচ্ছে। দিন পেরিয়ে রাত অবধি ধর্ণা দিচ্ছে ভোটারদের দুয়ারে দুয়ারে। সেই সাথে তাদের পরিবারের সদস্যরা ও সমর্থকেরাও চালাচ্ছে প্রচারণা। মাইকিংয়ে গম গম করছে পুরো পৌর এলাকা।

খোঁজ-খবর নিয়ে জানা গেছে, দলীয় প্রার্থী হওয়ায় পাঁচ মেয়র প্রার্থীর পক্ষে ভোটাররা নির্দিষ্ট হয়ে আছে। বিশেষ করে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মুজিবুর রহমান চেয়ারম্যান (নৌকা), বিএনপির প্রার্থী রফিকুল ইসলাম (ধানের শীষ) এবং জামায়াত সমর্থিত নাগরিক কমিটির প্রার্থী বর্তমান মেয়র (বরখাস্ত) সরওয়ার কামালের ভোটাররা দলীয় প্রার্থীকেই ভোট দেবেন। তারপরও মেয়র প্রার্থীদের পক্ষে কিছু ভোটার সাড়া দিলেও অধিকাংশের সাড়া নেই। অন্যদিকে ভোটার নিয়ে অন্ধকারে হাবুডুবু খাচ্ছেন কাউন্সিলর প্রার্থীরাও। কারণ কাউন্সিলর প্রার্থী নিয়ে এখন পর্যন্ত কোনো সাড়া নেই ভোটারদের। প্রার্থীরা নিরলস প্রচারণা চালালেও তাতে সাড়া দিচ্ছে না ভোটাররা। এতে করে এক প্রকার সাড়াহীন প্রচারণা চালাতে বাধ্য হচ্ছেন প্রার্থীরা। তারপরও তারা নাছোড়বান্দা। যে কোনোভাবেই ভোটারদের মন জয় করার চেষ্টা করছেন।

ভোটারদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, পৌরসভার ১২ ওয়ার্ডের অধিকাংশতেই একাধিক সাধারণ (পুরুষ) কাউন্সিলর প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে। এমনকি কয়েকটি ওয়ার্ডে পাঁচজনের বেশি প্রার্থী রয়েছে। সব প্রার্থী সমানভাবে প্রচারণা চালাচ্ছে। এতে দু’য়েকটি ওয়ার্ড ছাড়া বাকিগুলো এখনো নিশ্চিত হওয়া যাচ্ছে কে এগিয়ে থেকে কান্সিলর নির্বাচিত হচ্ছেন। তাই ভোটাররা দ্বিধা-দ্বন্দ্বে পড়ে কোনো প্রার্থীর দিকে সাড়া দিতে পারছে না।

৮নং ওয়ার্ডের ভোটার হাফিজুর রহমান বলেন, ‘মেয়র প্রার্থীর চেয়ে কাউন্সিলর প্রার্থীর ভোটযুদ্ধ জমে বেশি। কারণ সব প্রার্থী একই এলাকার হওয়ায় পাল্টাপাল্টি প্রচারণায় ভোটারদের মাঝে আমেজ বেশি থাকে। কিন্তু নির্বাচনের সময় দূরে থাকায় এখনো প্রতিযোগিতামূলক কিছু হচ্ছে না। তাই ভোটারারও সাড়ে দিচ্ছে না। এমনকি ভোট নিয়ে আড্ডাবাজিও তেমন চোখে পড়ছে না।

১১ নং ওয়ার্ডের ভোটার আবদুল হাকিম বলেন, ‘প্রচারণা জোরোশোরে চালালেও এখনো পর্যন্ত কে কাউন্সিলর হচ্ছেন তা স্পষ্ট হচ্ছে না। আমি চাই জনগণের পছন্দে যে এগিয়ে থাকবেন তাকেই ভোট দিই। তা এখনো স্পষ্ট না হওয়ায় কোনো প্রার্থীর পক্ষে সাড়া দিচ্ছি না। এমনকি নির্বাচনে আমেজও নিজেকে জড়াতে চাচ্ছি না। সিদ্ধান্ত নিতে ভুল হলে পরবর্তীতে নানাভাবে পস্তাতে হবে।’

কক্সবাজার নিউজ সিবিএন’এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ সংবাদ

একান্ত সাক্ষাৎকারে অতি. পুলিশ সুপার ইকবাল হোসাইন : অপরাধীর সাথে আপোষ নয়

প্রসঙ্গ : প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চলতি দায়িত্ব

বৃহত্তর ঈদগাঁওয়ের প্রায় ১শ কি.মি সড়ক চলাচলের অনুপযোগী, সেতুমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ

টেকপাড়ায় মাঠে গড়াল বৃহত্তর গোল্ডকাপ ফুটবল টূর্ণামেন্টের ৫ম আসর

মাতারবাড়ী কয়লাবিদ্যুৎ প্রকল্প পরিদর্শনে গেলেন বিভাগীয় কমিশনার

নতুন বাহারছড়ার সেলিমের অকাল মৃত্যু: মেয়র মুজিবসহ পৌর পরিষদের শোক

জেলা আ’ লীগের জরুরী সভা

মাদক কারবারীদের বাসাবাড়ীতে সাঁড়াশি অভিযান, ইয়াবাসহ আটক ৩

সৈকতে অনুষ্ঠিত হলো জাতীয় উন্নয়ন মেলা কনসার্ট

পেকুয়ায় অটোরিকশা চালককে তুলে নিয়ে মারধর

পুলিশ সুপারের সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ

ফেডারেশন অব কক্সবাজার ট্যুরিজম সার্ভিসেস এর সভাপতি সংবর্ধিত

কাউন্সিলর হেলাল কবিরকে বিশাল সংবর্ধনা

কলাতলীতে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ, দুইজনকে জরিমানা

আ. লীগের কেন্দ্রীয় টিমের জনসভায় সফল করতে জেলা শ্রমিকলীগ প্রস্তুত

মানবপাচারকারী রুস্তম আলী গ্রেফতার

দেশে গণতান্ত্রিক অধিকার নেই, পুলিশী রাষ্ট্রে পরিণত হয়েছে : শাহজাহান চৌধুরী

১২দিনেও খোঁজ মেলেনি মহেশখালীর ১৭ মাঝিমাল্লার

শেখ হাসিনার উন্নয়নের লিফলেট বিতরণ করলেন ড. আনসারুল করিম

কক্সবাজার সদর মডেল থানা পুলিশের অভিযানে গ্রেফতার-১০