‘আর্জেন্টিনাকে পুরো সেট বদলাতে হবে’

স্পোর্টস ডেস্ক :
রাশিয়া বিশ্বকাপ ব্যর্থতার চূড়ান্তে পৌঁছে শেষ ষোল থেকেই বিদায় নিয়েছে আর্জেন্টিনা। ফুটবলের এই বিশ্ব আসরে খেলা ৪ ম্যাচে মাত্র ১টিতে জিতেছে আলবিসেলেস্তেরা। নিজেদের নামের প্রতি সুবিচার করতে পারেননি লিওনেল মেসি, সার্জিও আগুয়েরোরা।

তাই আর্জেন্টিনা ১৯৭৮ সালের বিশ্বকাপ জয়ী তারকা মারিও কেম্পেসের মতে বর্তমান দলের খেলোয়াড়দের বাইরে রেখে নতুন খেলোয়াড়দের নিয়ে পুনরায় সাফল্য অন্বেষণে নামা উচিৎ আর্জেন্টাইনদের। মারিও কেম্পেসের বদৌলতেই ১৯৭৮ সালে নিজেদের প্রথম বিশ্বকাপ জিতেছিল আর্জেন্টিনা।

সেবার ফাইনালে ২ গোলসহ মোট ৬ গোল করে নিজ দেশকে বিশ্বকাপ জেতানোর পাশাপাশি কেম্পেস নিজেও পেয়েছিলেন সর্বোচ্চ গোলদাতার পুরষ্কার গোল্ডেন বুট। পরে ডিয়েগো ম্যারাডোনার হাতে ১৯৮৬ সালের বিশ্বকাপ জেতার পর থেকে ৩২ বছর ধরে শিরোপাখরায় ভুগছে আর্জেন্টিনা।

আর্জেন্টিনার বর্তমান দল নিয়ে আর কোন কিছু জেতা সম্ভব নয় বলে মনে করেন কেম্পেস। তবে দলের প্রাণভোমরা মেসিকে এখনই হিসেবের বাইরে ফেলে দিতে রাজি নন তিনি। দিন দুয়েক আগে মেসিদের কোচ হওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করা কেম্পেস যেনো আর্জেন্টিনাকে নিয়ে নিজের পরিকল্পনার কথা জানিয়ে দেন সংক্ষেপে।

তিনি বলেন, ‘মেসিকে অবশ্যই জাতীয় দল থেকে বিশ্রামে পাঠানো উচিত। কেননা সে এখন আর পারছে না। আর্জেন্টিনায় যেসব খেলোয়াড় আছে তাদের নিয়ে আমাদের পরবর্তী মিশনের জন্য নেমে পড়া উচিত। এরপর প্রয়োজন পড়লে তাকে (মেসি) ডেকে নেয়া যাবে।’

এসময় মেসিদের বর্তমান দল সম্পর্কে কেম্পেস বলেন, ‘আমাদের এখন নতুন করে সব সাজানো উচিত। গত দশ বছর ধরে এই একই দল খেলছে। কিন্তু সাফল্যের ভাণ্ডার এখনো শূন্য। এখানেই শেষ, এদের চক্রপূরণ হয়েছে। এখন অন্যান্য নতুন খেলোয়াড়দের খোঁজ করা উচিৎ।’

এছাড়াও বর্তমান দলে মেসি নির্ভরতার কারণেই যত সমস্যা বলে উল্লেখ করেন কেম্পেস। দলের অন্যান্য খেলোয়াড়রা ঠিকঠাক নিজেদের দায়িত্ব পালন করছে না বলেও মনে করেন তিনি ।

কেম্পেস বলেন, ‘আর্জেন্টিনা এখন মেসি বলতে পাগল। সে এই দলের প্রাণভোমরা। যেদিন মেসি ব্যর্থ হয়, সেদিন অন্য কেউ দলের দায়িত্ব নিজ কাঁধে নিতে পারে। জাতীয় দলের খেলোয়াড়দের মধ্যে আমি ব্যক্তিত্ববোধ ও সাহসের কমতি দেখতে পাই।’

কক্সবাজার নিউজ সিবিএন’এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ সংবাদ

১ লাখ ৬০ হাজার মেট্রিকটন লবণ উদ্বৃত্ত, তবু আমদানির চক্রান্ত

ঈদগাঁও থেকে দোকানদার অপহরণঃ ৫ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবী!

‘হিংসাবিহীন মানুষ পাওয়া কঠিন’

যখন দশম শ্রেণির ছাত্রী এই সময়ের পিয়া

উখিয়ায় অসহায় মানুষের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছেন এসিল্যান্ড একরামুল ছিদ্দিক

কক্সবাজার শহরে বেড়েই চলছে চুরি ছিনতাই

হোটেল সী-গালের সংবর্ধনায় সিক্ত মেয়র মুজিবুর রহমান

বর্জ্য অপসারণে আরো একটি গাড়ি সংযোজন করলেন মেয়র মুজিব

মদ পানের অভিযোগে প্রধানমন্ত্রীর ফ্লাইটের ক্রু বহিষ্কার

এই জনপদটি ইয়াবা নামক বিষ বৃক্ষের আবক্ষে নিম্মজ্জিত : সকলের সহযোগিতা প্রয়োজন

যুগ্মসচিব হলেন কক্সবাজারের সন্তান শফিউল আজিম : অভিনন্দন

ধর্মীয় শিক্ষা মানুষের মাঝে মূলবোধের সৃষ্টি করে-এমপি কমল

কক্সবাজার সদর মডেল থানা পুলিশের অভিযানে ১৪জন আসামী গ্রেফতার

কক্সবাজার জেলা পুলিশকে আইসিআরসির ২৫০ বডি ব্যাগ হস্তান্তর

চকরিয়ায় পল্লীবিদ্যুতের ভুতুড়ে জরিমানা নিয়ে আতঙ্ক!

ঈদগাঁওয়ে পাহাড় কাটার দায়ে এক নারীকে ১ বছর কারাদন্ড

শুধু চালককে অভিযুক্ত করে লাভ নেই আমাদেরও সচেতন হতে হবে-ইলিয়াছ কাঞ্চন

মাওলানা সিরাজুল্লাহর মৃত্যুতে জেলা জামায়াতের শোক

কক্সবাজারের ৩দিন ব্যাপী ‘প্রাথমিক চক্ষু পরিচর্যা’ কর্মশালার উদ্বোধন

‘ঘরের ছেলে’র বিদায়ে ব্যথিত পেকুয়াবাসী