কোটিপতি ৪র্থ শ্রেণির কর্মচারী রফিক

বিশেষ প্রতিবেদক:
রফিকুল আলম বাবুল। কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের ৪র্থ শ্রেনীর কর্মচারী তিনি। এক যুগেরও বেশি সময় এম.এল.এস.এস হিসেবে চাকরি করেছেন কক্সবাজার সদর ভূমি কার্যালয়ে। ওই কার্যালয়ের পাশেই কক্সবাজার শহরের বাহারছড়ার স্থানীয় বাসিন্দা হিসেবে রীতিমতো প্রভাব খাটিয়ে দাপট দেখিয়ে অবৈধ পন্থায় কয়েক কোটি টাকার মালিক হয়েছেন। কোটি টাকা ব্যয়ে তিনতলা বিশিষ্ট আলিশান বাড়ি নির্মাণ করেছেন। তার ছেলেকে রেলওয়েতে চাকরি দিতে ব্যয় করেছেন ১২ লাখ টাকা। নামে-বেনামে বিভিন্ন জায়গায় জমি কিনেছেন কয়েক কোটি টাকার। সরকারি ওই পদ ব্যবহার করে খতিয়ান জালিয়াতি, দালালি থেকে শুরু করে ভূমি কার্যালয় কেন্দ্রিক নানা অপকর্মে আলোচিত নাম রফিকুল আলম। এমনকি ৪র্থ শ্রেনী কর্মচারী সমিতির নেতা পরিচয়েও তিনি দাপট খাটান খোদ ভূমি কার্যালয়ের অন্যান্য কর্মচারীদের উপর। ক্ষমতার ছটি ঘুরান ভূমি কার্যালয়ে আসা সাধারণ মানুষের উপর।

সর্বশেষ ২০১৬ সালের জুলাই মাসে এক অভিযোগের প্রেক্ষিতে রফিকুল আলমকে কক্সবাজার সদর ভূমি কার্যালয় থেকে বদলি করা হয় রামুর গর্জনিয়া ভূমি কার্যালয়ে। কিন্তু সেখানেও তার অভ্যাসের পরিবর্তন হয়নি। গর্জনিয়া ভূমি কার্যালয়ে মাসের অধিকাংশ সময়ই তিনি অনুপস্থিত থাকেন। ৪র্থ শ্রেনী কর্মচারী সমিতির নেতা পরিচয়ে অনিয়মের আশ্রয় নিয়ে হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর করেন। তার ভয়ে তটস্থ থাকেন খোদ তার অফিসের লোকজনও। তার বেশির ভাগ সময় কাটে কক্সবাজার শহরে। তিনি কক্সবাজার শহরে অবস্থান করে খতিয়ান জালিয়াতি থেকে শুরু করে ভূমি অফিসের দালালী করে থাকেন। সাধারণ মানুষকে অযথা হয়রানী করেন। ভূক্তভোগী লোকজন জেলা প্রশাসনের ক্ষমতাধর এই ৪র্থ শ্রেনীর কর্মচারীর বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ করেন।

ভূক্তভোগীরা জানান, রফিকুল আলম কক্সবাজার সদর ভূমি অফিসে থাকাকালীন হয়রানীর মাধ্যমে সাধারণ মানুষের রক্ত চুষে খেয়েছেন। ভূমি অফিসে সেবা নিতে আসা সাধারণ মানুষকে জিম্মি করে কাড়ি কাড়ি টাকা অবৈধ পন্থায় আয় করেছেন। আর এখন গর্জনিয়া ভূমি অফিসেও একইভাবে সাধারণ লোকজনকে হয়রানী করে চলেছেন।

গর্জনিয়া ভূমি অফিসে কাজ না করে অধিকাংশ সময় কক্সবাজার অবস্থান করে নানা অপকর্ম চালান। যে কয়দিন গর্জনিয়া থাকেন, সেসময় সাধারণ মানুষ তার হয়রানীতে অতিষ্ট থাকেন। ভূক্তভোগীদের প্রশ্ন-একজন ৪র্থ শ্রেনীর কর্মচারীর এতো ক্ষমতার উৎস কোথায়? তার এতো সম্পদের উৎস নিয়েও কোন ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না। তিনি কক্সবাজার পৌর শহরের আলিরজাহাল এলাকায় কোটি টাকা ব্যয়ে তিনতলা বাড়ি নির্মান করেছেন। শহরের কলাতলী, চন্দ্রিমা এলাকাসহ বিভিন্ন স্থানে কয়েক কোটি টাকার জমি কিনেছেন। তার এক ছেলেকে রেলওয়েতে চাকরি দিতে ১২ লাখ টাকা ব্যয় করেছেন। চলেন রাজার হালে। ভূমি অফিস কেন্দ্রিক তার কর্মস্থল হওয়ায় সাধারণ মানুষকে অযথা হয়রানী করে অতিষ্ট করে তুলছেন। কর্মস্থলে তার অনিয়ম, সাধারণ মানুষকে হয়রানী ও অবৈধ পন্থায় কোটি কোটি টাকার মালিক বনে যাওয়া গর্জনিয়া ভূমি অফিসের এম.এল.এস.এস রফিকুল আলম বাবুল এর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে ভূক্তভোগীরা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন জানিয়েছেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে রফিকুল আলম তার বিরুদ্ধে সমস্ত অভিযোগ মিথ্যা এবং সবকিছু ষড়যন্ত্র বলেও দাবি করেন তিনি।

কক্সবাজার নিউজ সিবিএন’এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ সংবাদ

বিএনপি নেতা হাবিব-উন-নবী খান সোহেল গ্রেফতার

রামুর গর্জনিয়ায় বজ্রপাতে একই পরিবারের নারীসহ আহত ৫

কক্সবাজারে প্রথম নির্মিত হচ্ছে সি,আই কোম্পানি ইন্ডাস্ট্রি

মহেশখালী পৌর ছাত্রদলের আংশিক কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা

এসপি মাসুদ হোসাইনের কক্সবাজারে যোগদান, ডিসি’র সাথে সৌজন্য সাক্ষাত

জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে দূর্যোগ ব্যবস্থাপনার জন্য ইওসি স্থাপন

পেকুয়ায় প্রবাহমান খালে মাটি ভরাট করলেন প্রভাবশালী

কোনাখালীতে দোকান পুড়ে ছাই

বুবলীর সঙ্গে শাকিবের বিয়ে, গুঞ্জন নাকি সত্যি?

সাবেক ডিসি ও ইউএনওসহ তিনজনের কারাদণ্ড

ইয়াবাসহ আইন মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা আটক

চকরিয়া উগ্রবাদ ও সহিংসতা প্রতিরোধে দক্ষতা উন্নয়ন প্রশিক্ষণ

চকরিয়ায় কথিত চিকিৎসকের ভূল চিকিৎসার শিকার বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী

রামুর গর্জনিয়ায় বজ্রপাতে একই পরিবারের নারীসহ আহত ৫

মালুমঘাটে প্রভাবশালীর সহযোগিতায় চলছে বাল্য বিবাহ!

চট্টগ্রাম কলেজে ছাত্রলীগের কমিটি নিয়ে দফায় দফায় সংঘর্ষ

নিরাপদ সড়ক চাই: নিজে বাঁচব, অপরকে বাঁচাব

বিএনপির ১৭৩ প্রার্থী প্রায় চূড়ান্ত

চবি উপাচার্যের সাথে মিশর আল আযহার বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিনিধি দলের সাক্ষাৎ

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যকে সংবর্ধনা