কোটিপতি ৪র্থ শ্রেণির কর্মচারী রফিক

বিশেষ প্রতিবেদক:
রফিকুল আলম বাবুল। কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের ৪র্থ শ্রেনীর কর্মচারী তিনি। এক যুগেরও বেশি সময় এম.এল.এস.এস হিসেবে চাকরি করেছেন কক্সবাজার সদর ভূমি কার্যালয়ে। ওই কার্যালয়ের পাশেই কক্সবাজার শহরের বাহারছড়ার স্থানীয় বাসিন্দা হিসেবে রীতিমতো প্রভাব খাটিয়ে দাপট দেখিয়ে অবৈধ পন্থায় কয়েক কোটি টাকার মালিক হয়েছেন। কোটি টাকা ব্যয়ে তিনতলা বিশিষ্ট আলিশান বাড়ি নির্মাণ করেছেন। তার ছেলেকে রেলওয়েতে চাকরি দিতে ব্যয় করেছেন ১২ লাখ টাকা। নামে-বেনামে বিভিন্ন জায়গায় জমি কিনেছেন কয়েক কোটি টাকার। সরকারি ওই পদ ব্যবহার করে খতিয়ান জালিয়াতি, দালালি থেকে শুরু করে ভূমি কার্যালয় কেন্দ্রিক নানা অপকর্মে আলোচিত নাম রফিকুল আলম। এমনকি ৪র্থ শ্রেনী কর্মচারী সমিতির নেতা পরিচয়েও তিনি দাপট খাটান খোদ ভূমি কার্যালয়ের অন্যান্য কর্মচারীদের উপর। ক্ষমতার ছটি ঘুরান ভূমি কার্যালয়ে আসা সাধারণ মানুষের উপর।

সর্বশেষ ২০১৬ সালের জুলাই মাসে এক অভিযোগের প্রেক্ষিতে রফিকুল আলমকে কক্সবাজার সদর ভূমি কার্যালয় থেকে বদলি করা হয় রামুর গর্জনিয়া ভূমি কার্যালয়ে। কিন্তু সেখানেও তার অভ্যাসের পরিবর্তন হয়নি। গর্জনিয়া ভূমি কার্যালয়ে মাসের অধিকাংশ সময়ই তিনি অনুপস্থিত থাকেন। ৪র্থ শ্রেনী কর্মচারী সমিতির নেতা পরিচয়ে অনিয়মের আশ্রয় নিয়ে হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর করেন। তার ভয়ে তটস্থ থাকেন খোদ তার অফিসের লোকজনও। তার বেশির ভাগ সময় কাটে কক্সবাজার শহরে। তিনি কক্সবাজার শহরে অবস্থান করে খতিয়ান জালিয়াতি থেকে শুরু করে ভূমি অফিসের দালালী করে থাকেন। সাধারণ মানুষকে অযথা হয়রানী করেন। ভূক্তভোগী লোকজন জেলা প্রশাসনের ক্ষমতাধর এই ৪র্থ শ্রেনীর কর্মচারীর বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ করেন।

ভূক্তভোগীরা জানান, রফিকুল আলম কক্সবাজার সদর ভূমি অফিসে থাকাকালীন হয়রানীর মাধ্যমে সাধারণ মানুষের রক্ত চুষে খেয়েছেন। ভূমি অফিসে সেবা নিতে আসা সাধারণ মানুষকে জিম্মি করে কাড়ি কাড়ি টাকা অবৈধ পন্থায় আয় করেছেন। আর এখন গর্জনিয়া ভূমি অফিসেও একইভাবে সাধারণ লোকজনকে হয়রানী করে চলেছেন।

গর্জনিয়া ভূমি অফিসে কাজ না করে অধিকাংশ সময় কক্সবাজার অবস্থান করে নানা অপকর্ম চালান। যে কয়দিন গর্জনিয়া থাকেন, সেসময় সাধারণ মানুষ তার হয়রানীতে অতিষ্ট থাকেন। ভূক্তভোগীদের প্রশ্ন-একজন ৪র্থ শ্রেনীর কর্মচারীর এতো ক্ষমতার উৎস কোথায়? তার এতো সম্পদের উৎস নিয়েও কোন ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না। তিনি কক্সবাজার পৌর শহরের আলিরজাহাল এলাকায় কোটি টাকা ব্যয়ে তিনতলা বাড়ি নির্মান করেছেন। শহরের কলাতলী, চন্দ্রিমা এলাকাসহ বিভিন্ন স্থানে কয়েক কোটি টাকার জমি কিনেছেন। তার এক ছেলেকে রেলওয়েতে চাকরি দিতে ১২ লাখ টাকা ব্যয় করেছেন। চলেন রাজার হালে। ভূমি অফিস কেন্দ্রিক তার কর্মস্থল হওয়ায় সাধারণ মানুষকে অযথা হয়রানী করে অতিষ্ট করে তুলছেন। কর্মস্থলে তার অনিয়ম, সাধারণ মানুষকে হয়রানী ও অবৈধ পন্থায় কোটি কোটি টাকার মালিক বনে যাওয়া গর্জনিয়া ভূমি অফিসের এম.এল.এস.এস রফিকুল আলম বাবুল এর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে ভূক্তভোগীরা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন জানিয়েছেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে রফিকুল আলম তার বিরুদ্ধে সমস্ত অভিযোগ মিথ্যা এবং সবকিছু ষড়যন্ত্র বলেও দাবি করেন তিনি।

কক্সবাজার নিউজ সিবিএন’এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ সংবাদ

কক্সবাজারে আয়কর মেলা, তিনদিনে ৫৯ লাখ টাকা রাজস্ব আদায়

পোকখালীতে চিংড়ি ঘেরে ডাকাতির চেষ্টা, মালিককে কুপিয়ে জখম

মহেশখালীতে ৩দিন ব্যাপী কঠিন চীবর দানোৎসব শুরু

ইন্টারনেট সুবিধার আওতায় কক্সবাজার প্রেসক্লাব

আওয়ামীলীগ ভাওতাবাজিতে চ্যাম্পিয়ন : ড. কামাল

সত্য বলায় এসকে সিনহাকে জোর করে বিদেশ পাঠানো হয়েছে: মির্জা ফখরুল

সাতকানিয়ায় মাদকসহ আটক ২

কক্সবাজারে হোটেল থেকে বন্দী ঢাকার তরুণী উদ্ধার

৩০০ আসনে প্রার্থী চূড়ান্ত ইসলামী আন্দোলনের

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে খেলনা বেলুনের সিলিন্ডার বিস্ফোরণে আহত ৯

চকরিয়া আসছেন পুলিশের আইজি, উদ্বোধন করবেন থানার নতুন ভবন

না ফেরার দেশে গর্জনিয়ার জমিদার পরিবারের দুই মহিয়সী নারী

চকরিয়ায় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে যুবকের মৃত্যু

চকরিয়ায় ৪০শতক জমিতে দরিদ্র কৃষকের ক্ষেতে দুবৃর্ত্তের তান্ডব

পিসফুল ইউনাইটেড ক্লাবের অগ্নিদগ্ধে মৃত রায়হানের স্বরণ সভা ও দোয়া মাহফিল 

১০ নম্বরি হলেও নির্বাচন বয়কট করবো না : ড. কামাল

প্রকৃত নেতা মাত্রই পল্টিবাজ : ইমরান খান

ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে অধিনায়ক সাকিব, ফিরেছেন সৌম্য

বিজয় ফুল তৈরী প্রতিযোগিতায় চট্টগ্রাম বিভাগে প্রথম উখিয়ার নওশিন

চকরিয়ার রুবেল বাঁচতে চায়