মহাসড়কে ঝুঁকিপূর্ণ টেক-বাঁক : দূ্র্ঘটনার আশংকা

এম আবুহেনা সাগর,ঈদগাঁও :

চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কে ঝুঁকিপূর্ণ স্থানে টেকবাঁক এখন পর্যটনমুখী যাত্রীদের মরণ ফাঁদে পরিণত হয়ে পড়েছে। কোথাও ডানেমোড়, আঁকা বাঁকা রাস্তা বা সতর্কীকরণ চিহ্ন না থাকায় এসব এলাকায় দ্রুতগামী যানবাহন ও মালবাহী গাড়ী যেকোন মুহুর্তে দূর্ঘটনার আশংকা প্রকাশ করেন স্থানীয়রা।
প্রাপ্ত তথ্য মতে, ককসবাজার চট্টগ্রাম যাওয়ার সময় মহাসড়কে ছোট বড় প্রায় অসংখ্য টেকবাঁক রয়েছে। তৎমধ্যে খরুলিয়া, বাংলা বাজার,রামু,পানিরছড়া,জোয়ারিয়ানালা, ঈদগাঁও বাসষ্টেশন,ফকিরা বাজার,নাপিতখালী, মেধাকচ্ছপিয়া, ডুলাহাজারা, মালুমঘাটসহ বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ স্থানে। দুর থেকে এসব স্থানে টেক-বাঁকগুলী দেখা না যাওয়ার কারণে এ সকল টেকবাঁকে যানবাহনের ভয়াবহ দূর্ঘটনার আশংকা প্রকাশ করছেন যানবাহনের চালকরা। তাছাড়া মহাসড়কে অধিক বাঁকের পাশাপাশি একাধিকটির মত হাটবাজার থাকায় এটি উভয় মুখী গাড়ি চলাচলের ক্ষেত্রে মারাত্মক ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে। বিশেষ করে, লিংরোড, খরুলিয়া, পানিরছড়া,কালিরছড়া,ঈদগাঁও,ফকিরা বাজার, নাপিতখালী বটতল,নতুন অফিস,খুটাখালী, ডুলাহাজারা,মালুমঘাটসহ আরো অনেক। এসব ষ্টেশন ও বাজারে নানা যানবাহন দাঁড় করানোর কারণে যানজটের কবলে পড়তে হয় দীর্ঘক্ষণ । এতে করে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্রকন্যা কক্সবাজারে পর্যটক দেরকে অযথা সময় মহাসড়কের উপর নানা ক্ষেত্রে অপেক্ষা করতে হচ্ছে নিদিষ্ট স্থানে পৌঁছতে।
দেখা যায়, উল্লেখিত টেকবাঁকে প্রতিবছরই প্রাণহানির মত ঘটনা ঘটে। তৎমধ্যে বেশির ভাগ দূর্ঘটনা টেক বা বাঁকে অতিক্রম করার সময়। বর্তমানে চট্টগ্রাম কক্সবাজার মহাসড়কের গুরুত্ব দিন দিন বৃদ্বি পাচ্ছে। পর্যটন শহর কক্সবাজারে নানা স্থরের মানুষের যাতায়াত বেড়েছে দ্বিগুণ পরিসরে। ব্যস্ততম মহাসড়ক হিসাবে পরিচিতি পেলে টেকবাঁক ও ষ্টেশন ভিত্তিক বাজার এবং ঝুঁকিপূর্ণ অংশের কোনভাবেই কাজ করা হচ্ছেনা।
কয়েক যানবাহন চালকরা জানান, ককসবাজার সদরের ইসলামপুরের নাপিতখালী মোড়ের বাঁকটি অত্যান্ত ঝুঁকিপূর্ণ। দ্রুতগতিতে যানবাহন চালিয়ে আসলে সহজে গতি নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হয়না।
কজন পর্যটক জানান, চট্রগ্রাম – কক্সবাজার মহাসড়কের কোথাও বাঁক-টেকে সতর্কী করণ চিহৃ বসানো বা সাইনবোর্ড না থাকায় দূর্ঘটনার আশংকা প্রকাশ করেন তারা।
তবে খুটাখালীর প্রাক্তন ব্রাক শিক্ষা কর্মকতা মীর মোহাম্মদ নোমান জানান, মহাসড়ক কিংবা গ্রামীন সড়কে টেকঁবাকের কারনে সাধারন মানুষজনের রাস্তা পারাপারে দারুন ভাবে ব্যাঘাত ঘটছে। এমনকি সড়কের পাশে গড়ে উঠা বাজারগুলোতে নিদিষ্ট পরিমান জায়গা খালি না রেখে ভ্রাম্যমান দোকানের পসরা বসার কারনে যানবাহন ও সর্বশ্রেনী পেশার লোকজনের ভোগান্তি যেন চরম আকার ধারন করে।
অন্যদিকে সচেতন মহলের মতে, সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষ যদি টেকবাঁকে সতর্কীকরণ চিহৃ বসায় তাহলে দূর্ঘটনা থেকে পর্যটনসহ সাধারন লোক জন রক্ষা পাবে।

সর্বশেষ সংবাদ

আজ মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস

চকরিয়ায় চুলার আগুনে প্রবাসির বসতঘর ভস্মীভূত, পুড়ে ছাই নগদ টাকা মালামাল

মহান স্বাধীনতা দিবসে সিবিএন’র শুভেচ্ছা

অসাধারণ এক শিক্ষণীয় গল্প

মহান স্বাধীনতা দিবসে বৃহত্তর বার্মিজ মার্কেট ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির শুভেচ্ছা

প্রামাণ্যচিত্র-ব্ল্যাকআউট-সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্যদিয়ে শহীদ মিনারে গণহত্যা দিবস পালিত

মহেশখালীতে আ. লীগ-যুবলীগের গোলাগুলি, উভয় দলের অফিস ভাংচুর

রক্তিম আন্দোলনের স্রোতধারায় আমাদের স্বাধীনতাএই

শাহসূফী হযরত মাওলানা আবদুল জব্বার (রাহ.) এর ২১ তম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত

মশার কামড়ে অতিষ্ঠ প্রেমিকের গালে প্রেমিকার থাপ্পড়!

মেয়র মুজিবের চাচা মুক্তিযোদ্ধা ও ভাষা সৈনিক জালাল আহমদ রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন

বাবার মত আমিও জনগণের সেবা করে মরতে চাই -জুয়েল

শহীদ জাফরের নামে ডিসি’র সম্মেলন কক্ষের নামকরণ

কতটুকু ‘বিরোধী দল’ হতে পেরেছে জাতীয় পার্টি

প্রচারণায় এগিয়ে বই মার্কার প্রার্থী রশিদ মিয়া

পায়ে হেঁটে ৩ রোভারের দেড়শো কিলোমিটার পরিভ্রমণ

বদরখালীতে চুলার আগুনে পুড়েছে বসতঘর

পেকুয়ায় মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীর ‘ভুল’ ব্যালটে ভোট গ্রহণের অভিযোগ

ঈদগাহ আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষক নিয়োগ

কক্সবাজার ইয়ুথ জলবায়ু ফোরাম কমিটি গঠিত