ঈমান উজ্জীবিত করার অনন্য স্থান রওজা মোবারক ও রিয়াজুল জান্নাত

ইমাম খাইর, মদিনা শরিফ থেকে:
ঈমান উজ্জীবিত করার অনন্য স্থান হলো রাসুলুল্লাহ (স:) এর রওজা মোবারক ও রিয়াজুল জান্নাত। যা স্বচক্ষে না দেখলে বোঝা অসম্ভব।

মদীনার অসংখ্য দর্শনীয় স্থানের মধ্যে রওজা মোবারক ও রিয়াজুল জান্নাতে ২৪ ঘন্টা ভীড় থাকে।
আলহামদুলিল্লাহ, সুম্মা আলহামদুলিল্লাহ।
মদিনায় এসে দুই দিনে ২ বার রওজা মোবারক জিয়ারত ও সালাত সালাম পেশ করার সুযোগ হয়েছে। দেখেছি স্বপ্নের রিয়াজুল জান্নাত।

তবে, এই দুই জায়গায় ভীড় সামলাতে নিয়োজিত কর্মীদের নিয়মিত হিমশিম খেতে হয়।

হজ ও ওমরা পালনকারীদের মদিনা আসার অন্যতম উদ্দেশ্য হলো- নবী করিম (সা.)-এর রওজা মোবারক জিয়ারত, রওজায় সালাম পেশ, রিয়াজুল জান্নাত বা বেহেস্তের বাগান পরিদর্শন, সুযোগ পেলে রিয়াজুল জান্নাতে দুই রাকাত নামাজ আদায় করা।

হাদিস ও ফিকাহের গ্রন্থগুলোতে এ বিষয়ে প্রচুর নির্দেশনা রয়েছে। ইসলামি স্কলারদের মতে, মদিনায় আসা ইবাদতের অংশবিশেষ।

রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, তোমরা কেউ মুমিন হতে পারবে না যতোক্ষণ না আমি তার কাছে তার পিতা, সন্তান এবং সমস্ত মানুষের চেয়ে অধিক প্রিয় হবো।

অন্য হাদিস শরীফে এসেছে, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, তোমাদের কেউ মুমিন হতে পারবে না। যতোক্ষণ না তার ইচ্ছা ও কামনা আমার নিয়ে আসা আদর্শের পূর্ণ অনুসারী হবে।

মুসলিম শরীফে এসেছে, যে আমার রওজা জিয়ারত করলো, তার জন্য আমার সুপারিশ ওয়াজিব হয়ে গেলো।

নবী করিম (সা.) আরও বলেন, যে হজ করলো কিন্তু আমার রওজা জিয়ারত করলো না; সে আমার প্রতি জুলুম করলো। -তিরমিজি

ইসলামি স্কলারদের মতে, হাজির জন্য মদিনা শরিফ জিয়ারত করা সুন্নত। অনেকে ওয়াজিবও বলে থাকেন।

এ কারণে হজপালনের আগে কিংবা পরে হাজিরা মদিনা শরিফ আসেন। মদিনায় অবস্থানকালে হাজিদের প্রথম এবং প্রধান কর্তব্য হচ্ছে, মসজিদে নববিতে হাজিরা দেওয়া এবং সেখানে দৈনিক পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ আদায় করা। মসজিদে নববিতে এক রাকাত নামাজের সওয়াব পঞ্চাশ হাজার রাকাত নামাজের সমান। এছাড়া মসজিদে নববীতে বিরতিহীনভাবে ৪০ ওয়াক্ত নামাজ জামাতের সঙ্গে আদায়ের আলাদা ফজিলত রয়েছে।

এ প্রসঙ্গে হাদিসে ইরশাদ হয়েছে, হয়রত রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেন, যে ব্যক্তি আমার মসজিদে চল্লিশ ওয়াক্ত নামাজ আদায় করেছে আর কোনো নামাজ কাজা করেনি, সে নিফাক (মোনাফিকি) আর দোজখের আজাব থেকে নাজাত পাবে।

মসজিদে নববির সর্বাপেক্ষা গুরুত্বপূর্ণ স্থান হলো- নবী করিম (সা.)-এর রওজা মোবারক। উম্মুল মুমিনিন হয়রত আয়েশা (রা.)-এর হুজরার মধ্যে হযরত রাসূলুল্লাহ (সা.)- এর পবিত্র রওজা মোবারক অবস্থিত। রাসূলের রওজার পাশে ইসলামের প্রথম খলিফা হযরত আবু বকর (রা.) ও ইসলামের দ্বিতীয় খলিফা হযরত উমর (রা.)-এর কবর। পাশে আরেকটি কবরের জায়গা খালি। এখানে হযরত ঈসা (আ.)-এর কবর হবে।

হযরত রাসূলুল্লাহ (সা.)-এর রওজা শরিফ জিয়ারতের ফজিলত প্রসঙ্গে বলা হয়েছে, যে ব্যক্তি রাসূলুল্লাহ (সা.)-এর ওফাতের পর তার রওজা মোবারক জিয়ারতে করলো, সে যেন রাসূলুল্লাহ (সা.) কে জীবদ্দশায় দর্শন করলো।

মসজিদে নববিতে প্রবেশের অনেকগুলো দরজা রয়েছে। এর মধ্যে পশ্চিম পাশে রাসূলের রওজা জিয়ারতের জন্য যে দরজা দিয়ে প্রবেশ করতে হয়, ওই দরজাকে ‘বাবুস সালাম’ বলা হয়। বাবুস সালাম দিয়ে প্রবেশ করে রাসূলের রওজায় সালাম শেষে ‘বাবুল বাকি’ দিয়ে বের হতে হয়।

মদিনায় জিয়ারতে হাজীদের জন্য সৌভাগ্যের বিষয়। কারণ মদিনায় এসে দুনিয়ায় জীবিত থাকতে জান্নাতে ভ্রমণের সুযোগ মেলে। কারণ নবী করিম (সা.)-এর রওজা শরিফ এবং এর থেকে পশ্চিম দিকে রাসূলে করিম (সা.)-এর মিম্বর পর্যন্ত স্বল্প পরিসরের স্থানটুকুকে রিয়াজুল জান্নাত বা বেহেশতের বাগিচা বলা হয়। এটি দুনিয়াতে একমাত্র জান্নাতের অংশ। এই স্থানে স্বতন্ত্র রঙয়ের কার্পেট বিছানো থাকে।

এই স্থানটুকু সম্পর্কে হযরত রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, আমার রওজা ও মিম্বরের মধ্যবতী স্থানে বেহেশতের একটি বাগিচা বিদ্যমান। এখানে প্রবেশকরা মানে জান্নাতে প্রবেশ করা।

বস্তুত দুনিয়ার সব কবরের মধ্যে সর্বোত্তম ও সবচেয়ে বেশি জিয়ারতের উপযুক্ত স্থান হলো- রাসূলুল্লাহ (সা.)-এর রওজা মোবারক। তাই এর উদ্দেশে সফর করা উত্তম। এ কথার ওপর পূর্বাপর সব উলামায়ে কেরামের ঐকমত্য রয়েছে।

হযরত রাসূলুল্লাহ (সা.)-এর আমলে মসজিদে নববীর আয়তন ছিলো ২৫০০ বর্গ মিটারের মতো। কিন্তু যুগের পরিক্রমায় প্রয়োজনের তাগিদে মসজিদে নববীর অনেক সংস্কার ও সম্প্রসারণ হয়েছে। এখন এর আয়তন প্রায় ২,৩৫,০০০ বর্গমিটার। একসঙ্গে প্রায় সাড়ে চার লাখ মুসল্লি একত্রে নামাজ আদায় করতে পারেন। মসজিদে নববীতে মহিলাদের জন্য স্থান একবারেই আলাদা।

সর্বশেষ সংবাদ

নবনির্বাচিত কক্সবাজার পৌর পরিষদের শপথ

তুরস্কের সংকটে পাশে দাঁড়াল কাতার

টেকনাফে জাতীয় শোক দিবস পালন

সৌদিতে পাঁচ বাংলাদেশি হজযাত্রীর মৃত্যু

ট্রাফিক সপ্তাহ : চট্টগ্রামে ১০ দিনে সাড়ে ১১ হাজার মামলা

বহু ব্যবসায়ীকে পথে বসিয়ে দেয়া সেই প্রতারক গ্রেফতার

কক্সবাজারে আহসান ও নজরুল বোডিং সীলগালা : মাদকসহ ১৩ পতিতা ও খদ্দের আটক 

রামু থানার ওসি মুহাম্মদ আবুল মনসুর

আলহাজ্ব ফজল আম্বিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে জাতীয় শোক দিবস পালিত

পেকুয়ায় চোরাই সিএনজি অটোরিকশা সহ চোর সিন্ডিকেটের দুই সদস্য আটক

শ্রেষ্ঠ অবৈধ অস্ত্র উদ্ধাকারী অফিসার নির্বাচিত হয়েছেন কক্সবাজারের আজমগীর

মারা গেলেন হাত-পা কর্তন করা মাতারবাড়ির সেই আ.লীগ নেতা

ঈদগাঁওতে বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত আত্মজীবনী নিয়ে পাঠচক্র

শ্বশুর বাড়ি থেকে গৃহবধূর লাশ উদ্ধার

কক্সবাজার পৌরসভার নবনির্বাচিতদের শপথ বৃহস্পতিবার

রামুতে টিফিনের টাকায় বঙ্গবন্ধু’র চিত্র প্রদর্শণী

জাতীয় শোক দিবস পালন করলো চকরিয়া প্রেসক্লাব

মগনামায় ছাত্রলীগের আলোচনা সভা ও গণভোজ অনুষ্ঠিত

চকরিয়ায় নানা আয়োজনে জাতীয় শোক দিবস পালিত

কক্সবাজার শহরে নির্ধারিত ৬১ স্থানের বাইরে কোরবানীর পশু জবাই করা যাবেনা