কক্সবাজারের  নিউজ কক্সবাজার ডটকম নামক অনলাইন পত্রিকায়  গত ২৯ মে প্রকাশিত “ইয়াবা পাচারকারী জাহাঙ্গীর সিন্ডিকেট ধরাছোঁয়ার বাইরে” শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদটি আমার দৃষ্টিগোচর হয়েছে। সংবাদে আমাকে ইয়াবা ব্যবসার সাথে জড়িয়ে মানহানিকর তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে। যা সম্পূর্ণ মিথ্যা, বানোয়াট, উদ্দেশ্য প্রণোদিত ও মানহানিকর। আমি উক্ত ভূঁয়া সংবাদের তীব্র নিন্দা ও জোর প্রতিবাদ জানাচ্ছি। প্রকাশিত সংবাদে উল্লেখ করা হয়েছে ‘মাদক ব্যবসায়ী বন্দুকযুদ্ধে নিহত হওয়াই রীতিমত আতংকে দিন কাটছে কক্সবাজারের টেকনাফ বাহারছড়ার ইয়াবা পাচারকারী জাহাঙ্গীর সিন্ডিকেট। আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর মাদক বিরোধী কঠোর অভিযানের ফলে তাদেরকে বেশ কয়েক দিন যাবত রাস্তায় মধ্যে তেমন বাহাদুরি করতে দেখা যাচ্ছে না। যা আমাদের পরিবারের বিরুদ্ধে কিছু কুচক্রীমহলের ষড়যন্ত্রের বহি প্রকাশ মাত্র। সংবাদে আরো প্রকাশ করা হয়েছে ফাঁকে ফাঁকে তাদের অবৈধ ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। আর থেকে যাচ্ছে ধরাছোঁয়ার বাইরে। ইয়াবা পাচারে টেকনাফ বাহারছড়া একটি সুবিধাজনক এলাকা হওয়ায় জাহাঙ্গীর সিন্ডিকেট ইয়াবা ব্যবসা করে আঙুল ফুলে কলাগাছ বনে গেছে। মূলত আমাদের ব্যবসায়ীক ভাবে সুনাম ক্ষুন্ন করার জন্য সাংবাদিকদের এসব মিথ্যা,ভূঁয়া তথ্য দিয়ে সংবাদ প্রকাশ করা হয়েছে। মূলত আমরা দুই ভাই শামশুল আলম ও জাহাঙ্গীর আলমের শামলাপুর বাজারে একটি কাপড় ও একটি টেইলার্সের দোকান করে কোন রকম জীবিকা নির্বাহ করে আসছি। আমরা কোন সময় ইয়াবা ব্যবসার সাথে জড়িত নই। এলাকার কিছু দৃঃস্কৃতিকারী আমার ভাই ও আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে নেমেছে। তারই অংশ হিসেবে মিথ্যা ও ভুল তথ্য দিয়ে ইয়াবা ব্যবসায়ী বানিয়ে আমার পরিবারকে বিপদের মুখে ঠেলে দেওয়ার পাঁয়তারা চালিয়ে যাচ্ছে। আমি উক্ত মিথ্যা, বানোয়াট ও ষড়যন্ত্রমূলক সংবাদের আবারও জোর প্রতিবাদ জানাচ্ছি। জাতির বিবেক সাংবাদিক ভাইদের প্রতি অনুরোধ করছি কারো বিরুদ্ধে যাচাই বাচাই না করে যেন কোন নিরীহ মানুষকে বিপদের মুখে ঠেলে না দিতে। পাশাপাশি উক্ত বানোয়াট ও মিথ্যা সংবাদে বিভ্রান্ত না হতে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনসহ সকলের প্রতি বিনীত অনুরোধ করছি।

প্রতিবাদকারী

শামশুল আলম ও জাহাঙ্গীর আলম

পিতা-ইজ্জত আলী

সাং- শামলাপুর নয়াপাড়া, উপজেলা, টেকনাফ, জেলা, কক্সবাজার।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •